করোনার কারণে বন্ধ আন্তঃরাজ্য সীমান্ত; সমস্যায় দুই রাজ্যের সাধারণ মানুষের

Bangla Digital Desk | News18 Bangla | 08:15:38 PM IST Apr 27, 2021

করোনাভাইরাস এর দ্বিতীয় ঢেউ অতিমাত্রায় সক্রিয় ভারতবর্ষজুড়ে। সংক্রমণের হার দিন দিন ঊর্ধ্বমুখী। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলার সঙ্গে সঙ্গে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় করোনা সংক্রমনের হার ঊর্ধ্বমুখী। কিন্তু করোনা সচেতনতায় ভিন্ন  চিত্র বিভিন্ন বাজার এলাকায়। কোথাও মাস্ক ছাড়াই মানুষের ভিড়। কোথাও ফাঁকা দোকান ও রাস্তাঘাট। পূর্ব মেদিনীপুরের সদর শহর তমলুক চেনা ভীড় উধাও। করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের জেরে তমলুকের বর্গভীমা মন্দিরে মঙ্গলবার এর পুজো দেওয়ার ভিড় অনেক কম। মন্দির সংলগ্ন দোকান ঘর ফাঁকা বললেই চলে। আবার নন্দকুমার বাজারে মাস্ক ছাড়াই অবাধে কেনাবেচা করছে সাধারণ মানুষ থেকে বিক্রেতারা।জেলা প্রশাসনকে আরও উদ্যোগী করোনা সংক্রমণ রোধে। কিন্তু বিভিন্ন বাজারে মাস্ক ছাড়া কেনাবেচা বন্ধ না হলে জেলায় করোনা সংক্রমনের চিত্র বাড়তেই থাকবে। সাধারণ মানুষ মাস্ক ছাড়া বাইরে বা বাজারে যেভাবে ঘোরাফেরা করছে তাতে করোনা সংক্রমণের হার ভয়াবহ হবে। প্রশাসন বিভিন্ন বাজারে এসে মাইকিং করলেও সচেতনতার অভাব সাধারণ মানুষের মধ্যে।

বন্ধ আন্তরাজ্য সীমান্ত সমস্যায় দুই রাজ্যের সাধারণ মানুষের

পশ্চিমবঙ্গ – ওড়িশা সীমান্ত লাগোয়া পূর্ব মেদিনীপুরের দিঘাতে অস্থায়ী ভাবে বাঁশের ব্যারিকেড করে দিলো ওড়িশা প্রশাসন। সেই নিয়ে উত্তেজনা ছড়াল সৈকত শহরে।পণ্যবাহী গাড়ি ছাড়া অন্য যান চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি ঘোষনা করে সরকারি নির্দেশিকা জারি করেছে ওড়িশা সরকার। পন্যবাহী গাড়িকে ছাড় দিলেও যাত্রীবাহী গাড়ি ঢোকার উপরে কড়া নিষেধাজ্ঞা এই নির্দেশিকায় ।জানা গেছে নির্দেশিকায় উড়িষ্যার বাসিন্দাদের দুই প্রান্তে যাতায়াতের উপরে ছাড় দেওয়া হলেও বাংলার মানুষদের ওড়িশায় ঢোকার উপরে আছে নিষেধাজ্ঞা।এই নিয়ে বিবাদ তৈরী হয়। দুই পক্ষের মধ্যে বিবাদ তৈরী হয়।এই ঘটনাকে ঘিরে দুই রাজ্যের সীমান্তবর্তী এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা তৈরী হয়েছে। এর জেরে যাতে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে তার জন্যে এলাকায় বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়ন করা হয়েছে দুই রাজ্যের তরফে।পশ্চিমবঙ্গ এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন এই এলাকার দুই তরফের বাসিন্দাদের মধ্যে আত্মীয়তার সম্পর্ক গড়ে উঠেছে বহু দিন ধরে। এছাড়া ওড়িশা অন্তর্গত গত পাশাপাশি এলাকায় কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি উন্নতমানের হাসপাতাল আছে। তাই চিকিৎস্যার জন্যে এপারের বহু রোগী সেখানে চিকিৎস্যার জন্যে যাতায়াত করেন। এদেরকেও যাতায়াত করতে দিচ্ছেনা উড়িষ্যার পুলিশ।

লেটেস্ট ভিডিও