হোম » ছবি » দক্ষিণবঙ্গ » জ্বালানির জোগাড়ে গিয়ে বাঘের পেটে যাওয়াই নিয়তি, নাজেহাল মৎস্যজীবীদের হাতে এবার রান্নার গ্যাস

জ্বালানির জোগাড়ে গিয়ে বাঘের পেটে যাওয়াই নিয়তি, নাজেহাল মৎস্যজীবীদের হাতে এবার রান্নার গ্যাস

  • Bangla Editor

  • 15

    জ্বালানির জোগাড়ে গিয়ে বাঘের পেটে যাওয়াই নিয়তি, নাজেহাল মৎস্যজীবীদের হাতে এবার রান্নার গ্যাস

    *তাঁদের জীবনে জলে কুমীর, ডাঙায় বাঘ। রান্নার জন্য চাল, ডাল জোগাড় করলেই হয় না। সেই চাল ফোটাতে প্রতি দিন জঙ্গলে গিয়ে খুঁজে আনতে হয় কাঠ। জঙ্গল থেকে কাঠ আনতে আবার মুখোমুখি হতে হয় বাঘের। বেঘোরে বাঘের হাতে মরতে হয় বহু মানুষকে। এ বার ওই সব মানুষকে রক্ষা করতে ময়দানে নামল রাজ্য বন দফতর।

    MORE
    GALLERIES

  • 25

    জ্বালানির জোগাড়ে গিয়ে বাঘের পেটে যাওয়াই নিয়তি, নাজেহাল মৎস্যজীবীদের হাতে এবার রান্নার গ্যাস

    *বেসরকারি সংস্থা 'শের' (এসএইচইআর)-এর সহায়তায় সুন্দরবন অভয়ারণ্যে বসবাসকারী মৎস্যজীবীদের রান্নার গ্যাসের সংযোগ দেওয়া হল। নৌকায় বা ট্রলিতে মৎস্যজীবীরা যাতে রান্না করতে পারেন, কাঠ আনতে যাতে জঙ্গলে যেতে না হয়, সে জন্য পোর্টেবল গ্যাস সিলিন্ডার এবং ওভেন দিয়েছে 'শের'।

    MORE
    GALLERIES

  • 35

    জ্বালানির জোগাড়ে গিয়ে বাঘের পেটে যাওয়াই নিয়তি, নাজেহাল মৎস্যজীবীদের হাতে এবার রান্নার গ্যাস

    *প্রাথমিক ধাপে ১০০ জন মৎস্যজীবীকে ওই গ্যাসের সিলিন্ডার দেওয়া হয়েছে। ধাপে ধাপে সমস্ত মৎস্যজীবীকেই ওই সিলিন্ডার দেওয়া হবে। অবশ্য যাঁদের বন দফতরের পারমিট নেই বা আইন মেনে মাছ ধরতে যান না, তাঁরা এই গ্যাসের সিলিন্ডার বা সংযোগ পাবেন না।

    MORE
    GALLERIES

  • 45

    জ্বালানির জোগাড়ে গিয়ে বাঘের পেটে যাওয়াই নিয়তি, নাজেহাল মৎস্যজীবীদের হাতে এবার রান্নার গ্যাস

    *২৯ জুলাই মৎস্যজীবীদের হাতে ওই সিলিন্ডার তুলে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু লকডাউন থাকার কারণে তা বাতিল করে গত ৭ অগাস্ট ওই সিলিন্ডারগুলি মৎস্যজীবীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন 'শের'-এর উচ্চপদস্থ কর্তারা-সহ রাজ্য বন দফতরের ওয়াইল্ড লাইফ ওয়ার্ডেন রবিকান্ত সিনহা, সুন্দরবন ব্যঘ্র অভয়ারণ্যের ডিরেক্টর তাপস দাস-সহ অন্যান্য আধিকারিকেরা।

    MORE
    GALLERIES

  • 55

    জ্বালানির জোগাড়ে গিয়ে বাঘের পেটে যাওয়াই নিয়তি, নাজেহাল মৎস্যজীবীদের হাতে এবার রান্নার গ্যাস

    *'শের'-এর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এই গ্যাস সিলিন্ডার থাকার ফলে মানুষ এবং বাঘের মধ্যেকার সংঘাত অনেকটাই কমবে। রাজ্য বন দফতরের এক কর্তার কথায়, "এ ধরনের প্রকল্প যত বেশি হবে, তত সুন্দরবন এলাকায় বাঘের হাতে মৃত্যুর সম্ভাবনাও অনেকটাই কমবে।"

    MORE
    GALLERIES