Home /News /west-midnapore /
Paschim Medinipur: ই-সাইকেল জগতে তাক লাগাতে চলেছে আইআইটি খড়গপুরের গবেষক দল!

Paschim Medinipur: ই-সাইকেল জগতে তাক লাগাতে চলেছে আইআইটি খড়গপুরের গবেষক দল!

পদার্থবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক অম্বরীশ চন্দ্রের নেতৃত্বে আইআইটি (IIT) খড়গপুরের গবেষকদের একটি দল পরবর্তী প্রজন্মের কথা ভেবে উদ্ভাবন করল ব্যাটারি চালিত ই-সাইকেল (E- Cycle)।

  • Share this:

    #পশ্চিম মেদিনীপুর : পদার্থবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক অম্বরীশ চন্দ্রের নেতৃত্বে আইআইটি (IIT) খড়গপুরের গবেষকদের একটি দল পরবর্তী প্রজন্মের কথা ভেবে উদ্ভাবন করল ব্যাটারি চালিত ই-সাইকেল (E- Cycle)। না-আয়ন ভিত্তিক শক্তি সঞ্চয় প্রযুক্তির জন্য না-আয়ন-ভিত্তিক ব্যাটারি এবং সুপার ক্যাপাসিটর তৈরি করতে এবং ই-বাহন গুলিতে ব্যবহারের জন্য ন্যানো-পদার্থ ব্যবহার করা হয়েছে। কম খরচে না-আয়ন-ভিত্তিক প্রযুক্তির ব্যাটারি দ্রুত চার্জ করা যেতে পারে এবং ই-সাইকেলের খরচ উল্লেখযোগ্য ভাবে কমিয়ে দেবে বলে আশা করা হচ্ছে গবেষক দলের পক্ষে। 'ম্যাটেরিয়ালস ফর এনার্জি স্টোরেজ প্রোগ্রাম'-এর অধীনে এবং ভারত সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের টেকনোলজি মিশন ডিভিশন (টিএমডি) এর সহায়তায় এই গবেষনা করা হয়েছে আইআইটি (IIT) খড়্গপুরে। দলটি সোডিয়াম আয়রন ফসফেট এবং সোডিয়াম ম্যাঙ্গানিজ ফসফেট ব্যবহার করেছে, যা তারা না-আয়ন (NA-ION) পাওয়ার জন্য সংশ্লেষিত করেছে। না-আয়ন (NA-ION) ভিত্তিক ব্যাটারি এবং সুপার ক্যাপাসিটার প্রযুক্তির গবেষক তথা আইআইটি (IIT) খড়গপুরের পদার্থবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক অম্বরীশ চন্দ্র জানান, শক্তি সঞ্চয় প্রযুক্তির বিকাশের জন্য কঠোর ভাবে গবেষণা করা চলছে। যা না-আয়নের (NA-ION) উপর ভিত্তি করে তৈরি।

    তার দলও প্রচুর সংখ্যক ন্যানো ম্যাটেরিয়াল তৈরি করেছে যা দ্রুত চার্জ করা যায় এবং তারপর ই-সাইকেলে সংযুক্ত করা সম্ভব। অধ্যাপক অম্বরীশ চন্দ্র মন্তব্য করেছেন, “সোডিয়াম আয়ন ব্যাটারি এবং সুপার ক্যাপাসিটর গুলি এখন তাদের বিখ্যাত প্রতিরূপ যেমন লি-আয়ন ভিত্তিক শক্তি স্টোরেজ ডিভাইস গুলির সাথে প্রতিযোগিতা করতে পারে৷ NA-ION ভিত্তিক অক্সাইড এবং কার্বনের অভিনব ন্যানো স্ট্রাকচারের সংমিশ্রণ উচ্চ শক্তি এবং শক্তি ঘনত্বের ডিভাইসের দিকে নিয়ে যায়।

    আরও পড়ুনঃ কিশোর কুমারের গান বাজিয়ে আভাস কুমারের জন্মদিবস পালন

    এই শক্তি সঞ্চয়কারী ডিভাইস গুলি সহজেই বৈদ্যুতিক যানবাহন এবং অন্যান্য অনেক অ্যাপ্লিকেশন গুলিতে ব্যবহার করা যেতে পারে এবং আমদানি করা লিথিয়ামের উপর আমাদের নির্ভরতা দূর করবে, যা শুধুমাত্র বিশ্বের কয়েকটি নির্বাচিত দেশে পাওয়া যায়।\" সোডিয়াম উপকরণ লি-ভিত্তিক উপকরণের চেয়ে সস্তা, উচ্চ কার্যসম্পাদন করে এবং শিল্প-স্তরের উৎপাদন পর্যন্ত স্কেল করা যেতে পারে। ক্যাপাসিটরের মতো না-আয়ন সেলকেও সম্পূর্ণরূপে শূন্য ভোল্টে ডিসচার্জ করা যেতে পারে, যা অন্যান্য অনেক স্টোরেজ প্রযুক্তির তুলনায় এটিকে একটি নিরাপদ বিকল্প করে তোলে।

    আরও পড়ুনঃ সেতুর বদলে কালভার্ট! জল যন্ত্রণায় দুই ব্লকের মানুষ

    আইআইটি খড়গপুরের ডাইরেক্টর অধ্যাপক কে. তেওয়ারি বলেছেন, “না-আয়ন ব্যাটারি গুলি দ্রুত চার্জ করা যায় এই সত্যের সুবিধা নিয়ে, ডঃ অম্বরীশ চন্দ্র এটিকে ই-সাইকেলে একীভূত করেছেন যা জনসাধারণের জন্য একটি সহজ, সাশ্রয়ী বিকল্প৷ আরও উন্নয়নের সাথে, এই প্রযুক্তি চালিত যানবাহনের দাম আরও কম হতে পারে৷ ১০/১৫ হাজার টাকায় এগুলিকে লি-আয়ন স্টোরেজ প্রযুক্তি ভিত্তিক ই-সাইকেলের তুলনায় প্রায় 25% সাশ্রয়ী করে তোলে। না-আয়ন-ভিত্তিক ব্যাটারির নিষ্পত্তি কৌশল সহজতর হবে, এটি জলবায়ু দূষণ সমস্যা মোকাবিলায় সাহায্য করতে পারে বলে মনে করেন অধ্যাপক অম্বরীশ চন্দ্র।

    Partha Mukherjee
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: IIT KHARAGPUR, Paschim medinipur

    পরবর্তী খবর