Home /News /west-bardhaman /
Renu Khatun Update|| মায়ের মতো পাশে দাঁড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী, হাসপাতালের বেডে শুয়ে রেনুর শুরু লেখালিখি

Renu Khatun Update|| মায়ের মতো পাশে দাঁড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী, হাসপাতালের বেডে শুয়ে রেনুর শুরু লেখালিখি

Renu Khatun Update: একজন মা যেমন তার সন্তানের পাশে সব সময় থাকেন, মুখ্যমন্ত্রী তেমনভাবেই বাংলার পাশে আছেন। বাংলার প্রতিটি মানুষের পাশে আছেন উনি।

  • Share this:

    #দুর্গাপুর: রেনু খাতুনের ওপর বর্বরোচিত অত্যাচারের ঘটনায় নিন্দায় মুখর হয়েছেন মানুষজন। স্ত্রীর প্রতি স্বামীর এমন নৃশংস অপরাধ দেখে গা শিউরে উঠছে সাধারণ মানুষের। রেনুর স্বামীকে জেরা করতে গিয়ে যে সমস্ত তথ্য গোয়েন্দারা পাচ্ছেন, তাতে তাজ্জব বনে যাচ্ছে তারা। অন্যদিকে রেনু খাতুন চালিয়ে যাচ্ছেন আগামী দিনের লড়াইয়ের প্রস্তুতি।

    হাসপাতালের বেডে শুয়ে শুরু করে দিয়েছেন লেখালিখি। যন্ত্রণায় কাতরাতে কাতরাতে জানিয়েছেন, তিনি সরকারি কাজ করে যেতে চান। তার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন তিনি। রেনুর ডাকে সাড়া দিয়েছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানিয়েছেন, রেনুর পাশে থাকবে রাজ্য সরকার। রেনু সুস্থ হয়ে উঠলে তার কর্ম ক্ষমতা অনুযায়ী কাজ দেওয়া হবে। রেনুর মনোবলকে কুর্নিশ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

    মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার পর আপ্লুত রেনু খাতুন। মুখ্যমন্ত্রীর তার প্রতি যে সহানুভূতি দেখিয়েছেন, তা দেখে আপ্লুত রেনু জানিয়েছেন, বিষয়টা খুব ভালো লাগছে। মুখ্যমন্ত্রীকে অনেক ধন্যবাদ।

    বিধানসভায় দাঁড়িয়ে রেনু সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্রী যে বিবৃতি দিয়েছেন, তা জানতে পেরে রেনুর প্রথম প্রতিক্রিয়া, আমি ভীষণ খুশি। উনি যেভাবে আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন, তার জন্য আমার খুব ভালো লাগছে। উনি বলেছেন, আমি যে কাজ পারবো, সেই কাজ আমাকে দেওয়া হবে। তার জন্য আমি ভীষণভাবে খুশি। এছাড়াও রেনু খাতুন বলেছেন, বারবার সংবাদমাধ্যমে দেখেছি মুখ্যমন্ত্রী কীভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সবাইকে যতটা সম্ভব সাহায্য করেছেন। সবার বিপদের দিনে ছুটে গিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী আজ আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন। এটা দেখে ভীষণ ভালো লাগছে। ওনাকে ধন্যবাদ জানানোর জন্য আমার কাছে কোনও ভাষা নেই বা ধন্যবাদ দেওয়ার মত আমার যোগ্যতাও নেই।

    এছাড়াও রেনু খাতুন বলেছেন, শুধু এটুকুই বলতে পারি, একজন মা যেমন তার সন্তানের পাশে সব সময় থাকেন, মুখ্যমন্ত্রী তেমনভাবেই বাংলার পাশে আছেন। বাংলার প্রতিটি মানুষের পাশে আছেন উনি। মুখ্যমন্ত্রী আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন। এটা জানতে পেরে খুব ভালো লাগছে। আমি ভীষন খুশী হয়েছি। উনি আমার কথা ভেবেছেন, এটা দেখে খুব ভালো লাগছে। উনি যে আমার ইচ্ছাকে সম্মান দিয়েছেন, আমিযে কাজ করতে চেয়েছি, সেই কাজের সুযোগ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন, তা দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি। উনি বাংলাকে যেমন মায়ের মতো আগলে রাখেন তেমনভাবেই মায়ের মতোই আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন।

    প্রসঙ্গত, বিধানসভায় দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, রেনু খাতুনের পাশে থাকবে রাজ্য সরকার। রেনু সুস্থ হয়ে উঠলে, উনি যে কাজ করতে পারবেন, সেই কাজের সুযোগ দেওয়া হবে। পাশাপাশি রেনুর জন্য আর্টিফিশিয়াল হাতের ব্যবস্থা করা হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন। তাছাড়াও মুখ্যমন্ত্রী রেনুর চিকিৎসা খরচ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, তার চিকিৎসার জন্য ৬৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে শুনেছি। কেন স্বাস্থ্য সাথী কার্ডে এটা হয়নি, তা জানতে চেয়েছি। তবে রেনুর পাশে রাজ্য সরকার থাকবে। তাকে কাজের সুযোগ দেওয়া হবে।

    উল্লেখ্য, রেনু খাতুন পূর্ব বর্ধমানের কেতুগ্রামের বাসিন্দা। তিনি দুর্গাপুর একটি বেসরকারি হাসপাতালে নার্সের চাকরি করতেন। সম্প্রতি তিনি রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য দফতরের একটি হাসপাতালে নার্স হিসেবে চাকরি পেয়েছিলেন। কিন্তু স্ত্রীর সরকারি চাকরি পাওয়া সহ্য হয়নি তার স্বামীর। রেনুর বক্তব্য, তার স্বামী সরকারি চাকরি করলে স্ত্রী হাতছাড়া হয়ে যাবে। আর সেই আতঙ্ক বোধ থেকেই স্ত্রীর ওপর এমন নৃশংস হামলা চালিয়েছেন তিনি। যদিও ইতিমধ্যে অভিযুক্ত এবং তার বাবা-মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অন্যদিকে হাসপাতালে শুয়ে অভিযুক্তদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন রেনু খাতুন। পাশাপাশি চালিয়ে যাচ্ছেন আগামী দিনের জন্য লড়াই।

    Nayan Ghosh

    Published by:Shubhagata Dey
    First published:

    Tags: West Bardhaman

    পরবর্তী খবর