Home /News /west-bardhaman /
Paschim Bardhaman: নেই বর্ষার চেনা ছবি! শহরবাসীর হ্যাংআউট ডেস্টিনেশন ব্যারেজ

Paschim Bardhaman: নেই বর্ষার চেনা ছবি! শহরবাসীর হ্যাংআউট ডেস্টিনেশন ব্যারেজ

তীব্র গরমের দাপট কমেছে রাজ্য থেকে। মাঝেমধ্যেই হচ্ছে বৃষ্টিপাত। কিন্তু আবহাওয়া দফতরের হিসাব বলছে, বর্ষা এসে গেলেও বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কম হয়েছে।

  • Share this:

    #পশ্চিম বর্ধমান : তীব্র গরমের দাপট কমেছে রাজ্য থেকে। মাঝেমধ্যেই হচ্ছে বৃষ্টিপাত। কিন্তু আবহাওয়া দফতরের হিসাব বলছে, বর্ষা এসে গেলেও বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কম হয়েছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় ঘাটতি রয়েছে বৃষ্টির। এই পরিস্থিতিতে ক্যালেন্ডারের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ছবি দেখা যাচ্ছে না দুর্গাপুর ব্যারেজে। কারণ বৃষ্টিপাতের পর্যাপ্ত অভাবের ফলে দামোদরের জলস্তর কম রয়েছে। যে কারণে দামোদরের আপার ড্যামে জল মজুত থাকলেও, লোয়ার ড্যাম কার্যত খাঁ খাঁ করছে। সেখানে শুধুই বালিরাশি। যদিও তা শিল্পাঞ্চল দুর্গাপুর সহ আশপাশের মানুষজনের কিছুটা সুবিধাও করে দিচ্ছে। দামোদরের লোয়ার ড্যাম আপাতত আট থেকে আশির 'হ্যাংআউট' এর ডেস্টিনেশন। উল্লেখ্য, আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, চলতি বছরে রাজ্যে বর্ষা কিছুটা দেরিতে এসেছে। তার ওপর হয়নি পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত। ফলে বৃষ্টির ঘাটতি রয়েছে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায়। স্বাভাবিকভাবেই জলস্তর কম রয়েছে বর্ষার জলে পুষ্ট নদী গুলিতে। যে তালিকায় একেবারে প্রথমে রয়েছে দামোদর। বৃষ্টি কম হওয়ার জন্য দামোদরের জলাধার গুলিতে জলস্তর অনেকটাই কম রয়েছে। তাছাড়া বৃষ্টি কম হওয়ার জন্য ২২ তারিখ থেকে পাঁচটি জেলাকে সেচের জল দেওয়া শুরু হয়েছে। যে জল দেওয়া হচ্ছে আপার ড্যামে মজুত করে রাখা জল থেকে।

    সেজন্যই লোয়ার ড্যামে জল ছাড়া হচ্ছে না। মাঝেমধ্যে একটি দুটি গেট খুলে অল্প পরিমাণ জল ছাড়া হচ্ছে। যা আরও বেশি আকর্ষিত করছে পর্যটকদের। বিকেলের দিকে বহু মানুষ তাই কিছুটা সময় কাটানোর জন্য ভিড় করছেন দুর্গাপুর ব্যারেজে। এমনিতেই দুর্গাপুর ব্যারেজে সৌন্দর্যায়নের কাজ শুরু হয়েছে। রাজ্য সরকারের উদ্যোগে বিগত প্রায় দু'বছর ধরে চলছে এই সৌন্দর্যায়নের কাজ।

    আরও পড়ুনঃ পুলিশ বাগানের পাশেই ফের নির্বিচারে বৃক্ষ নিধন!

    তবে সৌন্দর্যায়নের কাজ এখনও সম্পন্ন না হলেও, ব্যারেজের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে বহু মানুষ হাজির হচ্ছেন ব্যারেজের বালুচরে। উপভোগ করছেন সূর্যাস্ত। তাছাড়াও একটি - দুটি গেট খোলা থাকলে, নৌকা বিহারের মজা নিতেও হাজির হচ্ছেন সেখানে। তাই দামোদরের জলস্তর কমে থাকায়, সেখানে পর্যটকদের ভিড় বেশ ভালই লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

    আরও পড়ুনঃ সালানপুরে নির্মীয়মান কারখানাকে কেন্দ্র করে দুশ্চিন্তায় কৃষকরা

    অন্যদিকে, কম জল স্তর থাকায় তা চিন্তা বাড়াচ্ছে জেলা প্রশাসন তথা ডিভিসি কর্তৃপক্ষ এবং সেচ দফতরের আধিকারিকদের। তারা বলছেন, যদি চলতি বছরে বৃষ্টিপাতের ঘাটতি না মেটে, তাহলে পরে জল সংকট দেখা দিতে পারে। যদিও পর্যটকরা সেসব নিয়ে ভাবতে নারাজ। তারা আপাতত ব্যারেজের সৌন্দর্য উপভোগ করছেন। আপাতত শিল্পাঞ্চলবাসী সহ আশপাশের মানুষের কাছে হ্যাংআউট ডেস্টিনেশন দুর্গাপুর ব্যারেজ।

    Nayan Ghosh
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Durgapur, Paschim bardhaman

    পরবর্তী খবর