Home /News /uncategorized /
নির্বাচন নিয়ে রাজ্যে সংশোধনীর প্রস্তাব

নির্বাচন নিয়ে রাজ্যে সংশোধনীর প্রস্তাব

পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে রাজ্যে সংশোধনী আইন আনতে পারে রাজ্য সরকার ৷

  • Share this:

    #কলকাতা: বড়সড় পরিবর্তন আসতে চলেছে নির্বাচনে ৷ পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে রাজ্যে সংশোধনী আইন আনতে পারে রাজ্য সরকার ৷ পঞ্চায়েত সদস্যরা যাতে নির্বাচনে লড়তে পারেন তার জন্য আইনে সংশোধন করা হতে পারে ৷ এ বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে প্রস্তাব দিয়েছেন পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় ৷

    এতদিন পদত্যাগ করে ভোটে লড়তেন পঞ্চায়েত সদস্যরা ৷ পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় এই নিয়মে সংশোধন আনতে প্রস্তাব দিয়েছেন ৷ পঞ্চায়েত মন্ত্রীর বক্তব্য, ‘বহু অভিজ্ঞ পঞ্চায়েত সদস্য রয়েছেন ৷ তাই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে ৷’ পুরসভার ক্ষেত্রে এমন নিয়ম জারি নেই ৷

    মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্মতি পেলে এই বিষয়ে সংশোধনী আনতে এগোবে রাজ্য ৷ ২০১৮-তে পঞ্চায়েত নির্বাচন। সব ঠিক থাকলে তার আগেই আনা হবে সংশোধনী ৷ শুক্রবারই পঞ্চায়েতে দুর্নীতি ঠেকাতে ভাতা বৃদ্ধির ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ পাশাপাশি সব পঞ্চায়েত সদস্য ও চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের আওতায় থাকার কথা শুক্রবার ঘোষণা করলেন তিনি।

    নেতাজী ইন্ডোরে দু’দিনব্যাপী রাজ্য পঞ্চায়েতী রাজ সম্মেলনের উদ্বোধনে এসে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘১০-১১ সালে পঞ্চায়েতে পরিকল্পনা খাতে বরাদ্দ ২ হাজার কোটি ৷ গত বছর এই বরাদ্দ বেড়েছে ১০ হাজার কোটিতে ৷ ৫ গুণ বেশি বরাদ্দ করেছি আমরা ৷ গ্রামবাংলার মানুষ পঞ্চায়তকে নির্ভর করেই বেঁচে থাকে ৷ তাদের জন্য পঞ্চায়েতে বরাদ্দ বৃদ্ধি অত্যন্ত জরুরি ৷ পঞ্চায়েতের কাজ করতে গিয়ে অনেক ভুলও হয় ৷ সেজন্য উপযুক্ত প্রশিক্ষণ প্রয়োজন ৷ যারা পঞ্চায়েত ব্যবস্থা পরিচালনা করেন, তাদেরকেই এই দায়িত্ব নিতে হবে ৷ ১০০ দিনের কাজে কোচবিহার, হুগলি, নদিয়া ভাল করেছে , আমি খুবই খুশি ৷ হুগলি সিঙ্গুরে সমস্ত কৃষকরা জমি ফিরিয়ে দিয়েছে ৷ নদিয়া নির্মল ভারত মিশনে প্রথম তিনটি জেলার মধ্যে রয়েছে ৷ তাই বাংলাকে কাজ শেখাতে হয় না ৷ শুধু বাংলার প্রাপ্য টাকাটা বাংলাকে দিতে হবে , শুধু সমালোচনা করলেই হবে না, কাজের কাজটা করতে হবে ৷ তাহলেই বাংলা দেখিয়ে দেবে কাজ কিভাবে করতে হয় ৷ বাংলাকে জ্ঞান দেওয়ার দরকার নেই ৷ বাংলাকে টাকা দিন, তারপর কাজ দেখে নিন ৷ ’’

    দুর্নীতি আটকাতে ভাতা

    - পঞ্চায়েত সমিতি ও গ্রামসভা সদস্যদের মাসিক ভাতা ১৫০০ টাকা - জেলা পরিষদের সভাধিপতিদের মাসিক ভাতা বাড়িয়ে ৫০০০ টাকা - সহকারি সভাধিপতিদের মাসিক ভাতা বেড়ে ৪০০০ টাকা - জেলা পরিষেদের কর্মাধ্যক্ষদের মাসিক ভাতা ৪০০০ টাকা - জেলা পরিষদের অধ্যক্ষের মাসিক ভাতা ৪০০০ টাকা - জেলা পরিষদের উপাধ্যক্ষের মাসিক ভাতা ২০০০ টাকা - জেলা পরিষদ সদস্যদের মাসিক ভাতা ১৫০০ টাকা - পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতিদের মাসিক ভাতা ৩৫০০ টাকা - পঞ্চায়েত প্রধানের মাসিক ভাতা ৩০০০ টাকা - পঞ্চায়েত উপপ্রধানের মাসিক ভাতা ২০০০ টাকা

    মুখ্যমন্ত্রী এদিন আরও বলেন, ‘‘ পঞ্চায়েতে যারা কাজ করেন তাঁরা গর্বের কাজ করেন ৷ যে যেখানে কাজ করবেন সেটাকে মন্দির মনে করে কাজ করুন ৷ মাটি ও কাজকে নিয়ে গর্ববোধ করুন ৷ কাজে সর্ববোধ না থাকলে ভাল কাজ হবে না ৷ লোভ সম্বরন করুন ৷ নির্লোভ হয়ে কাজ করলে সারাজীবন পাবেন ৷ সম্মান বিকিয়ে গেলে সম্মান ফিরে পাবেন না ৷ সম্মান নিয়ে কাজ করলে ভাল কাজের মূল্য মেলে ৷ বিশ্বাসযোগ্যতাই ভাল কাজের মাপকাঠি ৷ ’’

    First published:

    Tags: Panchayet, Panchayet Election, Subrata Mukherjee

    পরবর্তী খবর