Football World Cup 2018

চেতনায় বদল, বদল জীবনের, নতুন দিশার খোঁজে এক দল অন্য দুর্গার গল্প

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Sep 19, 2017 06:40 PM IST
চেতনায় বদল, বদল জীবনের, নতুন দিশার খোঁজে এক দল অন্য দুর্গার গল্প
Tribute-to-the-girls-and-the-women-who-kept-going-against-all-odds
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Sep 19, 2017 06:40 PM IST

#ঝাড়খন্ড: শাস্ত্রমতে দুর্গার ১০৮টা নাম ৷ কখনও উমা, কখনও কমলা, কখনও মহামায়া ৷ কাত্যয়নী, কপালমালিকা, অন্নপূর্ণা, মাতঙ্গী, অপরাজিতা, ছিন্নমস্তা ৷ রূপভেদে, আরাধনায় মায়ের নানা রূপ ৷ মা দুর্গা কখনও মৃণ্ময়ী, কখনও তিনি দুষ্ট দমনে মহিষমর্দ্দিনী ৷ চেতনা বদলে তিনিই চিণ্ময়ী ৷ বাস্তবেও রয়েছে দুর্গারা ৷ তাঁদেরও রয়েছে নাম ৷ কখনও শোভা, কখনও অনিতা, সরস্বতী ৷ আবার কখনও সালিহা বিবি, মমতা ও পূজা কুমারি ৷ আপাতত দৃষ্টিতে এরা খুবই সাধারণ ৷ সাধারণ সাজ-সজ্জা ৷ কিন্তু অন্তরে তীব্র আগুন, তীব্র প্রতিবাদ ৷ সমাজ বদলের এক নতুন অঙ্গীকারে বদ্ধ সদ্য আঠারো, কুড়ি পেরিয়ে যাওয়া ‘অন্য দুর্গা’র দল ৷

হ্যাঁ, এরাই তো দুর্গা ৷ যারা চেতনায় ঢুকে বদলে দিতে পারে জীবন ৷ অন্ধকার থেকে বের করে বদলে দিতে পারে জীবনকে দেখাতে পারে নতুন দিক ৷ তবে অন্যের হয়ে লড়াই করলেও, এদের নিজেদের লড়াই সহজ ছিল না ৷ সহজ ছিল না পরিবর্তনের পক্ষে কন্ঠ তোলা ৷ কেউ কেউ প্রথমেই আঘাত হেনেছিল তাঁদের স্বপ্নে, কেউ কেউ জোর চালিয়ে ছিল প্রতিবাদের ভাষাকে দুর্বল করতে ৷ তবে শোভা, অনিতা, সরস্বতী, সালিহা, মমতা, পূজারা দমেনি ৷ নিজের জীবন থেকে অভিজ্ঞতা নিয়ে, নতুন করে তৈরি করেছেন তাঁদের সহজ পাঠ ৷

Shobha Shobha

ঝাড়খন্ডের ছোট্ট গ্রাম পোখারদিহার মেয়ে শোভা ৷ সদ্য পা রেখেছে উনিশে ৷ আঠারোতেই মা-বাবা বিয়ে দিয়েছিলেন শোভার ৷ এ তাঁর জীবনের অন্য গল্প ৷ তবে সেখানেই আটকে নেই শোভা ৷ বরং শোভা প্রতিবাদ শুরু করেছিল প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার আগে থেকেই ৷ বিহার-ঝাড়খন্ডে এখনও অল্প বয়সে মেয়েদের বিয়ে দিয়েও দেওয়ার রীতি রয়েছে ৷ এখনও স্কুলে যাওয়ার পরিবর্তে মেয়েদের চলে যেতে হয় স্বামীর ঘরে৷ কিন্তু শোভা, প্রতিবাদ করেছিল ৷ তার মা-বাবাকে জানিয়ে ছিল আঠারো না হলে সে বিয়ে করবে না ৷ শোভার কথায়,

‘সেটাই প্রথম জেতা ৷ নিজের মা-বাবাকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছিলাম ৷ আঠারোতে পা দিয়েই বিয়েতে রাজি হয়েছিলাম ৷ নিজের বাড়ি থেকেই শুরু করেছিলাম লড়াইয়ের প্রথম ধাপ !’

Anita Anita

শোভা রাষ্ট্রীয় ঝাড়খন্ড সেবা সংস্থানের সঙ্গে যুক্ত ৷ যা কিনা CRY পরিচালিত এক কার্যক্রম ৷ এই সংস্থানের কাজই হল, বয়ঃসন্ধিতে থাকা মেয়েদের সজাগ করে তোলা ৷ বাল্য বিবাহকে আটকানো ৷ এমনকী, স্বামী ও তাঁর পরিবারকে রাজি করা, যেন বিয়ের পরেও তার পড়াশুনোয় কোনও বাধা না পড়ে ৷

শোভার কথায়,

‘আমি ডাক্তার হতে চাই ৷ আমার গ্রামে ডাক্তারের খুবই প্রয়োজন ৷ আর এ ব্যাপারে আমার পরিবারের সম্পুর্ণ সাহায্য পেয়েছি !’

saraswati saraswati

শোভার মতো অনিতাও এগিয়ে এসেছে ৷ নিজের বাড়ির লোকদের স্পষ্টই জানিয়ে দিয়েছে, অল্প বয়সে বিয়ে নয় ! বরং সে পড়তে চায় ৷ নিজের স্বপ্নকে পূরণ করতে চায় ৷ অনিতা এখন ক্লাস টুয়েলভে পড়ে৷ শোভার সঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে নতুন দিশার স্বপ্ন দেখায় ৷ অনিতার কথায়,

‘শোভাদি আর আমি শপথ নিয়েছি ৷ আমাদের কোনও বান্ধবী-ই যেন তাঁর স্বপ্নকে হত্যা করে, নিজের জীবনকে অন্ধকারে ঠেলে না দেয় ৷ ’

Mamta and Puja Mamta and Puja

সরস্বতীর বয়স ২২ ৷ প্রায় ১৫ জন বয়ঃসন্ধিতে থাকা মেয়েদের নিয়ে সে তৈরি করেছে শান্তি কিশোরী মণ্ডলী ৷ অল্প বয়সে মেয়েদের বিয়ের কুফল নিয়ে সজাগ করে তোলাই সরস্বতীর লক্ষ্য ৷ সঙ্গে নারী শিক্ষাকে গোটা গ্রাম ও রাজ্যে ছড়িয়ে দিতে চায় সরস্বতী ৷ এমনকী, সরস্বতীর পরিবার তাঁদের পৈতৃক জমিও দান করেছেন মেয়েদের জন্য স্কুল তৈরির কাজে ৷ সরস্বতীর কথায়,

‘বিয়ের ব্যাপারে কোনও চিন্তা ভাবনাই আমার নেই ৷ চাইও না ভাবতে ৷ আমার পড়াশুনো শেষ করতে চাই ৷ নিজের পায়ে দাঁড়াতে চাই৷ সঙ্গে আমার গ্রামের প্রত্যেকটি মেয়েকে শিক্ষার আলো দিতে চাই ৷ যাতে তাঁরাও নিজেদের স্বপ্ন পূরণ করতে পারে ৷ ’

Sunita Devi Sunita Devi

এই একই পথে নতুন করে নিজেদের স্বপ্ন পূরণের পথে সালিহা বিবি, মমতা ও পূজা কুমারি ৷ নিজেদের স্বপ্ন পূরণে, নিজেদের পা দাঁড়াতে, সবচেয়ে বড় ‘মেয়ে’দের নিয়ে সমাজের চিন্তা-ভাবনাকে বদলে দিতে এগিয়ে এসেছেন ৷ যেমন এগিয়ে এসেছেন সালিহার মা তেহমিনা বিবি ও পিঙ্কির মা সুনিতা দেবী ৷ তাঁরা নিজেদের মেয়ের পাশে দাঁড়িয়েছে ৷ আর তাঁদেরও আশা, এই ভাবেই একদিন দেশের প্রতিটি গ্রামে, প্রতিটি রাজ্যে মেয়েরা এগিয়ে আসবে সমাজকে বদলে দিতে ৷ নিজেদের অস্তিত্বকে শুধুমাত্র অন্দরমহলে আটকে না রেখে, গোটা বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে ৷ আর এইভাবেই একদিন গোটা বিশ্বকে জানিয়ে দেবে লিঙ্গ বৈষম্যকে বলে কিছু হয় না ৷ এইভাবেই একদিন প্রতিটি ঘরের মেয়ে সমাজের নোংরা, পিছিয়ে পড়া চিন্তাকে দমন করে হয়ে উঠবে অন্য দুর্গা ৷ যেমন ঝাড়খন্ডের শোভা, অনিতা, সরস্বতী সালিহা বিবি, মমতা ও পূজা কুমারি ৷

পিছিয়ে পড়া শিশুদের অধিকাররক্ষার উদ্দেশ্যে গত ৩৮ বছর ধরে দেশের ২৩টি রাজ্যে কাজ করে চলেছে অসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘ক্রাই – চাইল্ড রাইট্‌স অ্যান্ড ইউ’। ক্রাই-এর সম্পর্কে আরও বিশদ জানতে ও শিশুদের অধিকাররক্ষার অভিযানে সামিল হতে লগ অন করুনwww.cry.org

First published: 03:50:01 PM Sep 19, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर