কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন

কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন
  • Share this:

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ বৃহস্পতিবারের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

anandabazar11

দু’চোখে জল, প্রত্যয়ী চিবুক, বেলাশেষেও লড়াই জারি ওবামার

আশঙ্কা আর চোখের জল বনাম ফুৎকার আর ডাঁট। শেষ বনাম শুরু। বারাক ওবামা বনাম ডোনাল্ড ট্রাম্প। যে শিকাগো থেকে তাঁর রাজনৈতিক জীবনের শুরু, যেখানে ২০০৮ সালে প্রথম বার জিতে বিজয়-ভাষণ দিয়েছিলেন, সেই শহরেই মার্কিন সময় অনুযায়ী মঙ্গলবার রাতে বারাক ওবামার বিদায়ী বক্তৃতা। যেন শেষ বারের মতো প্রমাণ করতে চাওয়া, ‘‘ইয়েস উই ক্যান! ইয়েস উই ডিড!’’ যেন ডোনাল্ড ট্রাম্পকে দেখিয়ে দিতে চাওয়া, এখনও পারি!

প্রতিবাদী বলেই বিমান দুর্ঘটনা ঘটিয়ে আমাকে খুনের চক্রান্ত হয়: মমতা

নোট বাতিলের ঘটনায় কেন্দ্রীয় সরকার তথা শাসক দলের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জের সুর ছিলই। বলেছিলেন, তাঁকে গ্রেফতার করে জেলে ভরলেও কিছু আসে যায় না। এমনকী, তাঁকে গুলি করে মারলেও তিনি ভয় পান না। এ বার প্রকাশ্য সমাবেশের মঞ্চ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, নোট বাতিলের বিরুদ্ধে সরব হওয়ায় তাঁকে খুন করার চেষ্টা হচ্ছে।

তৃণমূল অফিসেই গুলি করে খুন করা হয় খড়্গপুরের রেলমাফিয়া শ্রীনুকে

মাস আষ্টেক আগে বিধানসভা ভোটের দিন। খড়্গপুরের মাটিতে দুধসাদা অডি এ-ফোর গাড়িতে বসে আনন্দবাজারকে সে বলেছিল, ‘‘এক দিন অ্যায়সা আয়েগা, জব শ্রীনুকে ইশারে পে খড়্গপুর মে হর পেড় কা পত্তা হিলেগা।’’ সেই দিন আর দেখা হল না এ শ্রীনিবাস নায়ডুর। বুধবার বিকেলে খড়্গপুরের নিউ সেট্লমেন্ট এলাকায় তৃণমূলের ১৮ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির কার্যালয়ে হানা দিয়ে তার কপালে গরম বুলেট ফুঁড়ে দিল কয়েক জন অজ্ঞাতপরিচয় আততায়ী। রাতে কলকাতার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে খড়্গপুরের কুখ্যাত এই রেল মাফিয়াকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা। হামলায় মৃত্যু হয়েছে ধর্মা রাও (২৫) নামে শ্রীনুর এক শাগরেদেরও। জখম তিন জন।

‘বাংলা সিনেমায় অফার পেয়েছিলাম’

নির্লিপ্ত গলার পাল্টা প্রশ্ন ছিল, ‘‘আমার সঙ্গে দেখা করতে চান, কেন?’’ বলেছিলাম, ‘‘দেখা হলে বলব।’’ গত এপ্রিলের বিধানসভা ভোটে খড়্গপুর তখনও নিশ্চুপ, শান্ত। শুধু বাতাসটাই যা গরম ছিল। চোখ-মুখ ঝলসে যাচ্ছিল সেই হাওয়ায়। সেই গরম হাওয়ায় কান পাতলে শুধু শোনা যাচ্ছিল তাঁরই নাম। শোনা যাচ্ছিল, এক সময়ে রেল শহর শাসন করা বাসব রামবাবু নাকি এখন অনেকটাই ব্যাকফুটে। সেই ব্যাটন এখন শ্রীনুর হাতে। অনেক কষ্টে সেই শ্রীনু নায়ডু-র ফোন নম্বরটা জোগাড় করা গিয়েছিল।

bartaman_big11

সুদীপের ইউরোপ সফরের টাকা জুগিয়েছিলেন রোজভ্যালি কর্তা

তৃণমূলের সংসদ সদস্য সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর সিবিআইয়ের ফাঁস আরও শক্ত করে চেপে বসছে। তাঁর ইউরোপ সফরের পুরো টাকাটাই যে চিটফান্ড কর্ণধার গৌতম কুণ্ডুর, সেই বিষয়ে পুরোপুরি নিশ্চিত কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। কারণ ইউরোপ সফরের খরচ হিসাবে সুদীপবাবুর জমা দেওয়া পেমেন্টের রসিদে বিস্তর গোলমাল ধরা পড়েছে। ফলে তার বৈধতা নিয়ে সিবিআই আধিকারিকদের মধ্যে বড়সড় সংশয় তৈরি হয়েছে। এমনকী জমা দেওয়া ব্যাংক ড্রাফটের কোনও অস্তিত্ব এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি বলে সিবিআই আধিকারিকদের দাবি। এমপি’র প্রভাব খাটিয়ে এবং পরিচিত ট্রাভেল এজেন্সিকে দিয়েই তিনি এই নথি তৈরি করিয়ে নিয়েছিলেন বলে মনে করছে সিবিআই। ওই ট্রাভেল এজেন্সি আবার শাসক দলের এক নেতার পরিচিতের বলে জানা যাচ্ছে। তিনিই এই যোগসূত্র তৈরি করেছিলেন। অত্যন্ত গোপনে এই কাজটি সারা হয়েছিল। অন্যদিকে, আজ বৃহস্পতিবার সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভুবনেশ্বরের আদালতে হাজির করা হবে। সিবিআই ফের তাঁর জেল হেপাজতের জন্য আবেদন জানাবে। সেইমতো ব্যবস্থা করে রাখা হয়েছে বলে জেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

খড়্গপুরে তৃণমূল অফিসে গুলি, হত ডন শ্রীনুসহ ২

বুধবার খড়্গপুর শহরে নিউ সেটেলমেন্ট এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের অফিসে ঢুকে দুষ্কৃতীরা এলোপাথাড়ি গুলি চালানোয় স্থানীয় তৃণমূল কাউন্সিলারের স্বামী শ্রীনু নাইডু সহ দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। আর তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এই ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে। আতঙ্কিত এলাকার বাসিন্দারা ঘটনা সম্পর্কে মুখে কুলুপ এঁটেছেন। তেমনি পুলিশও কোনও মন্তব্য করতে চায়নি। কিন্তু কী কারণে আচমকা শাসকদলের অফিসে ঢুকে শ্রীনুকে লক্ষ্য করে এলাপাথাড়ি গুলি চালানো হল তা নিয়ে পুলিশ বা তৃণমূল নেতৃত্ব নিশ্চুপ। রাতে পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ শুধু বলেন, শ্রীনু নাইডুর মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। এই ঘটনা নিয়ে কিছু বলেননি তাঁর বাড়ির লোকেরাও। ঘটনার পর স্থানীয় বাসিন্দারা এলাকায় ভিড় জমালেও কেউ কোনও মন্তব্য করতেও চাননি।

দাম বাড়লে দায় আমার নয় মোদির, তোপ মমতার

আপনারা সংগঠিত হোন। ভয় পাবেন না। নোট বাতিলের বিরুদ্ধে কলকাতায় রিজার্ভ ব্যাংকের সামনে তিনদিন ব্যাপী ধরনার অন্তিম দিনে আমজনতাকে এমনই অভয়বাণী দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি সতর্ক করলেন, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জিনিসপত্রের দাম বাড়তে পারে। তার দায় তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উপরেই চাপিয়ে রাখলেন। তবে বেআইনি আর্থিক সংস্থার কেলেঙ্কারি নিয়ে দলের একের পর এক নেতার গ্রেপ্তারে ক্ষুব্ধ মমতা বুধবার বিজেপির সঙ্গে বামেদেরকেও আক্রমণ করলেন। একদিকে নোট বাতিল, অন্যদিকে রোজভ্যালিকাণ্ডে দলের দুই সংসদ সদস্য জেলে। নোট বাতিলের সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র করে সবার আগে পথে নেমেছেন মমতা। শুধু রাজ্যেই নয়, মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে গোটা দেশে এই আন্দোলনে সর্বধিক অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছেন তিনি। কিন্তু এখনও পর্যন্ত যাদের দুর্ভোগের কথা বলে মোদি হটাও, দেশ বাঁচাও স্লোগান মমতা দিয়েছেন, ঘটনাচক্রে সেই আমআদমির মধ্যে তেমন কোনও সাড়া মেলেনি। তৃণমূল নেত্রীর প্রত্যাশামতো জনমানসে তেমন কোনও হেলদোল দেখা যায়নি।

অশোকনগরে ছিনতাইবাজদের সঙ্গে লড়াই করে দু’হাতে কোপ খেলেন ইঞ্জিনিয়ার তরুণী

অন্ধকার রাস্তায় সশস্ত্র ছিনতাইবাজদের খপ্পরে পড়েও ভয়ভীতি উপেক্ষা করে রুখে দাঁড়ালেন ২৩ বছরের এক তরুণী। তাতে জখমও হয়েছেন তিনি। ছিনতাইয়ে বাধা দেওয়ার পাশাপাশি পেশায় ইঞ্জিনিয়ার ওই তরুণী দুষ্কৃতীদের পাকড়াও করারও চেষ্টা করেছিলেন। প্রাণে বাঁচতে দুষ্কৃতীরা ধারাল অস্ত্র দিয়ে ওই তরুণীর দু’হাতে কোপ মেরে পালিয়ে যায়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অশোকনগরের গোলবাজার-শহিদ কলোনি রাস্তার উপর এই ঘটনায় এলাকায় শোরগোল ছড়িয়েছে পড়েছে। জখম তরুণীর নাম পূজা বিশ্বাস। অশোকনগর হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা করানো হয়েছে। দুই হাতেই ব্যান্ডেজ করতে হয়েছে। দুষ্কৃতীরা তাঁর মোবাইল ও মানিব্যাগ নিয়ে পালাতে সক্ষম হলেও তিনি রুখে দাঁড়ানোয় সকলে তাঁর বীরত্বকে অভিবাদন জানিয়েছেন।

ei samay

বাম-বিজেপিকে একসুরে আক্রমণ করলেন মমতা

নরেন্দ্র মোদী থেকে প্রয়াত জ্যোতি বসু- বিজেপি ও বামেদের একসূত্রে গেঁথে তীব্র আক্রমণ শানিয়ে বুধবার রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সামনে তৃণমূলের তিন দিনের বিক্ষোভে ইতি টানলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ ‘নোটবন্দি কেলেঙ্কারি’ থেকে ‘চিট ফাণ্ড কেলেঙ্কারি’ এই দুই ইস্যুতে  একযোগে এ দিন বিজেপি ও বামেদের কাঠগড়ায় তুলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ৷

টিফিনের পয়সা বাঁচিয়ে বন্ধুর পাশে

অসম্ভব একটা যুদ্ধ ৷ তবু জমি ছাড়তে নারাজ কতগুলো কচিমুখ ৷ তারাই জড়ো করেছিল ছোট ছোট হাত ৷ যাচেনে এনেছে আরও কিছু শক্তপোক্ত হাতকে ৷ তারই জোরে লড়াইয়ের রসদ পাচ্ছেন এক দম্পতি ৷

চিনের ক্ষমতাবৃদ্ধি রুখতে ভারতকে পাশে চাইছেন ট্রাম্প

দক্ষিণ-পশ্চিম সাগরে ক্রমশ ক্ষমতা বিস্তার করছে চিন ৷ উদ্বিগ্ন জাপানের পাশে দাঁড়িয়েছে আমেরিকা ৷ চিনা আগ্রাসনের আশঙ্কা রুখতে এবার ভারতকেও পাশে পেতে চায় তারা ৷

কুঁড়েঘরে ডাক্তারির স্বপ্ন অসুস্থ প্রেমের

মুকুন্দপুরের জেলের ভেড়িতে খালের ধারে দরমা ও টালির বাড়ির সামনে ছুটে ছুটে খেলা করছে ছোট্ট ছেলেটা ৷ বয়স মোটে দশ ৷ রোগা ডিগডিগে চেহারা ৷ নুখে হাসি ধরে না ৷ জিজ্ঞেস করলে গড়গড় করে বলে যায় নামতা, ইংরেজি বাংলা ছাড়া ৷

First published: 09:27:51 AM Jan 12, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर