আলিপুর জেল থেকে উধাও ৩ বাংলাদেশি বন্দি, ঘটনায় সাসপেন্ড ৫ কারারক্ষী

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jan 14, 2018 04:31 PM IST
আলিপুর জেল থেকে উধাও ৩ বাংলাদেশি বন্দি, ঘটনায় সাসপেন্ড ৫ কারারক্ষী
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jan 14, 2018 04:31 PM IST

#কলকাতা: শীতের রাতে ওয়াচ টাওয়ারে নেই রক্ষী। সেই সুযোগে ফিল্মি কায়দায় আলিপুর জেল থেকে চম্পট দিল তিন বাংলাদেশি বিচারাধীন বন্দি। বিছানার চাদর পেঁচিয়ে বানানো হয় দড়ি। লোহার আঙটা দিয়ে দেওয়ালে দড়ি আটকে উধাও হয় তারা। এত কাণ্ড অবশ্য নজরে আসেনি কারও। ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই মুখে কুলুপ জেল কর্তৃপক্ষের।

চুলোয় জেলের নিরাপত্তা। কর্তব্যরত অবস্থায় দু’দণ্ড শান্তির ঘুম! এ ছবি আলিপুর কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারের মতো গুরুত্বপূর্ণ জেলের। কিন্তু, বছর ঘুরলেও সেই ছবি বিন্দুমাত্র বদলায়নি। শনিবার, ফের তার প্রমাণ মিলল। ওইদিন ভোররাতে সিনেমার কায়দায় জেল থেকে পালিয়ে যায় তিন বাংলাদেশি বন্দি। উঁচু পাঁচিল আর ওয়াচ টাওয়ারে ঘেরা জেল থেকে কীভাবে পালাল বন্দিরা?

পাঁচিল ডিঙোতে জেলের ভিতরে থাকা পেয়ারা গাছকেই বেছে নিয়েছিল তিন বন্দি। বিছানার চাদর ও কম্বল পেঁচিয়ে দড়ি বানিয়েছছিল। দড়ির মুখে লাগিয়েছিল একটি লোহার আঙটা।

তারপর গাছে উঠে, বাঁশ দিয়ে ওই দড়ি তারা আটকে দেয় জেলের পাঁচিলে। সেই দড়ি ও বাঁশ ব্যবহার করেই তারা পাঁচিলের ওপারে চলে যায়।

রিকন্স গ্রাফিক্স আউট ৷ পাঁচিল ডিঙিয়ে আদিগঙ্গার দিকে চলে যায় তিন জন। সম্ভবত, আদিগঙ্গা পেরিয়ে তারা উঠে পড়ে হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিটে। কাদায় তাদের পায়ের ছাপ স্পষ্ট। জেলের পাঁচিলেও দড়ি ও বাঁশের ঘষার দাগ জ্বলজ্বল করছে। পাঁচিলের পাশেই মিলেছে গিঁট বাঁধা চাদরগুলি।

রবিবার সকালে গুনতির সময় প্রকাশ্যে আসে বাংলাদেশি ইমন চৌধুরী, মহম্মদ ফারুক হাওলাদার ও ফিরদৌস শেখ রানার পালানোর ঘটনা। তল্লাশিতে নামে ডগ স্কোয়াডও। দীর্ঘক্ষণ জেল পাঁচিলের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরলেও বিশেষ কোনও তথ্য মেলেনি। পায়ের ছাপ ও স্নিফার ডগের ব্যর্থতায় তদন্তকারীরা নিশ্চিত আদিগঙ্গা পার হয়েই পালায় কয়েদিরা। ঘটনায় পাঁচ কারারক্ষীকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। কিন্তু, এই প্রথম নয়। চার ও পাঁচ নম্বর ওয়াচ টাওয়ারের মাঝের ওই অংশ দিয়ে বারবারই জেল পালানোর ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু, কর্তৃপক্ষের যে হুঁশ ফেরেনি, ফের তার প্রমাণ মিলল।

First published: 04:30:34 PM Jan 14, 2018
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर