বিশ্ব জুড়ে সন্ত্রাসের থাবা, সারা বছরজুড়েই চলল আতঙ্কের আক্রমণ

বছরের শুরুটাই হয় সন্ত্রাসবাদী হামলা দিয়ে। চলছিল নতুন বছর উদযাপন। ইস্তানবুলের একটি নাইটক্লাবে গভীর রাতে চলছিল নাচ, গান। সেখানেই ঢুকে পড়ে আততায়ীরা।

Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Dec 27, 2017 03:31 PM IST
বিশ্ব জুড়ে সন্ত্রাসের থাবা, সারা বছরজুড়েই চলল আতঙ্কের আক্রমণ
File Photo
Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Dec 27, 2017 03:31 PM IST

জানুয়ারি ১, ইস্তানবুল, তুরস্ক

বছরের শুরুটাই হয় সন্ত্রাসবাদী হামলা দিয়ে। চলছিল নতুন বছর উদযাপন। ইস্তানবুলের একটি নাইটক্লাবে গভীর রাতে চলছিল নাচ, গান। সেখানেই ঢুকে পড়ে আততায়ীরা। শুরু হয় এলোপাথারি গুলি। নিহত হন ৩৯জন। আহত ৭০ জন। ঘটনার দায় নেয় ইসলামিক স্টেট।

জানুয়ারি ২, বাগদাদ, ইরাক

ধারাবাহিক গাড়ি বোমা বিস্ফোরণ সদর সিটিতে। নিহত ৫৬ , আহত ১২২ জন। হামলায় জড়িত আইএস।

জানুয়ারি ২০, মেলবোর্ন

Loading...

মধ্য মেলবোর্নে পথচারীদের পিষে দিল একটি গাড়ি। ঘটনায় নিহত ৬ জন, আহত ২৭।

ফেব্রুয়ারি ৭, কাবুল, আফগানিস্তান

কাবুলে আফগানিস্তান সুপ্রিম কোর্টে আত্মঘাতী হামলা। নিহত ২২ জন। আহত ৪১ জন। ঘটনার দায় স্বীকার আইএস-এর।

ফেব্রুয়ারি ১৬, শেহওয়ান, পাকিস্তান

শেহওয়ানে সুফি গুরু লাল শাহবাজ কলন্দরের মন্দিরে আত্মঘাতী হামলা। নিহত ৯১। আহত ৩০০র বেশি। দায় স্বাকার করে ইসলামিক স্টেট।

ফেব্রুয়ারি ১৬, বাগদাদ, ইরাক

বাগদাদের বায়াতে গাড়ি বোমা বিস্ফোরণ। নিহত ৫৯, আহত ৬৬ জন। বিস্ফোরণের কিছুক্ষণের মধ্যেই দায় স্বীকার করে ইসলামিক স্টেট।

ফেব্রুয়ারি ১৯, মোগাদিশু, সোমলিয়া

বিস্ফোরক বোঝাই ট্রাক নিয়ে হামলা বাদার এলাকায়। নিহত হন ৩৯ জন। আহত ৫০ জন। হামলার পিছনে আল-শাবাবের হাত ।

ফেব্রুয়ারি ২৪, সোসিয়ান, সিরিয়া

সিরিয়ায় চলা গৃহযুদ্ধে জোড়া হামলা আইএসের। গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৫৩ জন। দ্বিতীয় বিস্ফোরণে নিহত হন ৮জন।

মার্চ, ৮, কাবুল, আফগানিস্তান

আফগানিস্তানে চলা যুদ্ধের জের। সেনা হাসপাতালে ঢুকে এলোপাথারি গুলি আততায়ীদের। এরপর আত্মঘাতী হামলা। নিহত শতাধিক। হামলার পিছনে আইএস।

মার্চ, ২২, লন্ডন, ইংল্যান্ড

লন্ডন ব্রিজ ও পার্লামেন্ট হাউসে সন্ত্রাসবাদী হামলা। এক পুলিশ অফিসার সহ নিহত চারজন। আহত চল্লিশজন।

এপ্রিল ৩, ইংল্যান্ড

সেন্ট পিটার্সবার্গ মেট্রোতে বোমা বিস্ফোরণ। নিহত ১৬জন। আরও একটি বোমা নিষ্ক্রিয় করা হয়। সেদিনই সেখানে যাওয়ার কথা ছিল ভ্লাদিমির পুতিনের। অভিযুক্ত ইমাম শামিল বাতালিয়ায় আল কায়দার সঙ্গে যুক্ত বলে দাবি তদন্তকারীদের।

এপ্রিল ৭, স্টকহোম

একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের মধ্যে ট্রাক নিয়ে হামলা চালাল উজবেক যুবক, রাখমত অখিলভের। সন্ত্রাসবাদী এই হামলায় নিহত হন ৫ জন। জেরায় অভিযুক্ত স্বীকার করে, সে আইএসের মতাদর্শে উদ্বুদ্ধ।

এপ্রিল ৯, মিশর

জোড়া হামলা সন্ত্রাসবাদীদের। টানটায় প্রার্থনা চলাকালীন একটি গিরজায় আত্মঘাতী হামলা। আত্মঘাতী হামলা অ্যালেকজান্ড্রিয়াতেও। সেখানেও হামলা গিরজা লক্ষ করে। জোড়া হামলায় নিহত ৪৭ জন। আহত শতাধিক।

এপ্রিল ১৫, অ্যালেপ্পো, সিরিয়া

আলেপ্পায় বোমা বিস্ফোরণে নিহত ১২৬ জন। আহত হন শতাধিক। হামলায় কেউ দায় স্বীকার করেনি।

এপ্রিল ২০, প্যারিস, ফ্রান্স

প্যারিসের সঁজে লিজে-তে পুলিশের গাড়ি লক্ষ করে সন্ত্রাসবাদী হামলা। হামলায় নিহত এক পুলিশ অফিসার। আহত দু’জন। পুিলশের পালটা হামলায় নিহত আততায়ী। হামলার পিছনে আইএস।

এপ্রিল ২১, আফগানিস্তান

মাজার-এ শরিফে সেনা ছাউনি লক্ষ করে হামলা। নিহত ২৫০-র বেশি আফগান সেনা। আহত ১৬০। হামলা চালানোর দায় স্বীকার করল তালিবানরা।

মে ২০, ওয়াদি অল শাতিলি, লিবিয়া

দক্ষিণ লিবিয়ায় ব্রাক এল শাতিতে বায়ুসেনা ঘাঁটিতে হামলা । নিহত হন ১৪১ জন। তাঁদের মধ্যে বেশ কয়েকজন সেনা অফিসার। এই হামলায় মিসরাটা িমলিটান্টস জড়িত বলে সন্দেহ।

মে ২২, ম্যাঞ্চেস্টার, ইংল্যান্ড

ম্যাঞ্চেস্টার এরিনাতে আরিয়ানা গ্রান্ডের কনসার্ট শেষ হতেই আত্মঘাতী হামলা। নিহত ২২ জন। আহত ৫০০-র বেশি। ঘটনায় ধরা পড়ে সলমন আবেদি। তদন্তকারীদের দাবি, সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে যুক্ত সলমন।

মে ৩১, কাবুল, আফগানিস্তান

কাবুলের Diplomatic Quarter -এ আত্মঘাতী হামলা। নিহত দেড়শোজন। আহত চারশোজন। এই হামলার দায় কেউ নেয়নি।

জুন ৩, লন্ডন, ইংল্যান্ড

লন্ডনের বোরো মার্কেটে সন্ত্রাসবাদী হামলা ৩ জনের। প্রথমে পথচারীদের গাড়িতে পিষে মারার চেষ্টা। এরপর কুপিয়ে খুন কয়েকজনকে। ঘটনায় নিহত ৮ জন। আহত আটচল্লিশজন। ব্রিটিশ পুিলশের গুলিতে নিহত জঙ্গিরা।

জু ৭, তেহরান, ইরান

ইরানে প্রথম হামলা ইসলামিক স্টেটের। তেহরানে জোড়া হামলা। ইরানের সংসদ ভবনকে লক্ষ করে হামলা ৭ জঙ্গির। একই সঙ্গে আয়াতোল্লা খোমেইনির স্মৃতি সৌধেও। জোড়া হামলায় নিহত ১৮ জন। আহত ৫২।

অগাস্ট ১৭, স্পেন

স্পেনে সন্ত্রাসবাদী হামলা। বার্সিলোনায় লাস র‍্যাম্বলসে ভিড়ে ঠাসা রাস্তার মধ্যে ভ্যান চালিয়ে দিলে নিহত ষোলোজন। আহত একশ কুড়ি জন। দুই আততায়ী ধরা পড়ে যায়। এক আততায়ী এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে, তার গাড়ি নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে ধরা পড়ে সে-ও।

অগাস্ট ২৩, বরনো স্টেট, নাইজেরিয়া

উত্তর নাইজেরিয়ার বরনোতে গ্রামবাসীদের উপর হামলা চালায় বোকো হারাম। গ্রামে ঢুকে প্রথমে এলোপাথারি গুলি। তারপর গ্রামবাসীদের গলার নলি কেটে খুন করা হয় ২৭ জনকে।

সেপ্টেম্বর ১৪, নাসিরিয়া, ইরাক

দক্ষিণ ইরাকের ধিকার প্রদেশে জোড়া হামলা ইসলামিক স্টেটের। হামলায় নিহত ৮৪জন। আহত ৯৩।

সেপ্টেম্বর ১৫, লন্ডন, ইংল্যান্ড

ফের সন্ত্রাসবাদী হামলা লন্ডনে। পার্সনস গ্রিন মেট্রো স্টেশনে বোমা বিস্ফোরণ ঘটায় সন্ত্রাসবাদীরা। আহত হন ৩০ জন।

অক্টোবর ১, আমেরিকা

আমেরিকার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় হামলা লাস ভেগাসে। একটি কনসা‍র্ট চলাকালীন এলোপাথারি গুলি স্টিফেন প্যাডক নামে এক ব্যক্তির। ওই হামলায নিহত হন আটান্নজন। আহত হন চারশো উননব্বইজন।

অক্টোবর ১৪, মোগাদিশু, সোমালিয়া

মোগাদিশুতে ভয়াবহ নাশকতা। ট্রাক ভরতি বিস্ফোরক নিয়ে হামলা জনবহুল এলাকায়। ঘটনায় নিহত ৫১২ জন। আহত ৩১। হামলার দায় স্বীকার করে আল-শাবাব।

অক্টোবর ৩১, নিউইয়র্ক

নিউ ইয়র্কে সন্ত্রাসবাদী হামলা। ওয়ার্লড ট্রেড সেন্টারের কাছে সাইকেল লেনে ঢুকে পড়ে আটজনকে পিষে দেয় একটি ট্রাক। ট্রাকের পাশ থেকে মেলে একটি আইএস পতাকা।

নভেম্বর ২৪, মিশর

সিনাই প্রদেশের বির-আল আবেদে একটি সুফি মসজিদে ঢুকে হামলা চালায় বন্দুকবাজরা। শুক্রবারের নমাজের সময় চলে হামলা। নিহত ৩০৯ জন। এরপর বিস্ফোরণ ঘটান হয় মসজিদে। বন্দুকবাজদের বিরুদ্ধে পালটা আক্রমণ চালায় মিশর সরকার।

ডিসেম্বর ১১, নিউইয়র্ক

নিউইয়র্কে ফের হামলার চেষ্টা চালায় সন্ত্রাসবাদীরা। বোমা বিস্ফোরণ ঘটানোর চেষ্টা এক প্রবাসী বাংলাদেশির। ব়ডসড় কোনও ক্ষতি হয়নি। গ্রেফতার করা হয় একজনকে।

First published: 03:28:12 PM Dec 27, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर