Twitter-এর নতুন লেবেল মার্কিং টুল থেকে বাদ পড়ল ভারত, বাড়ছে জল্পনা

সম্প্রতি একগুচ্ছ নতুন লেবেল নিয়ে আসছে Twitter যার সাহায্যে সরকারি আধিকারিকদের আলাদা করে চিহ্নিত করা যাবে

সম্প্রতি একগুচ্ছ নতুন লেবেল নিয়ে আসছে Twitter যার সাহায্যে সরকারি আধিকারিকদের আলাদা করে চিহ্নিত করা যাবে

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: সম্প্রতি একগুচ্ছ নতুন লেবেল নিয়ে আসছে Twitter যার সাহায্যে সরকারি আধিকারিকদের আলাদা করে চিহ্নিত করা যাবে। এই চিহ্নিতকরণের তালিকায় থাকবে বিশ্ব নেতাদের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট, সরকার অধীনস্থ কোনও সংবাদসংস্থা, প্রতিষ্ঠান-সহ একাধিক ক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত স্পর্শকাতর অ্যাকাউন্টগুলি। তবে Twitter-এর এই নতুন লেবেল প্রযোজ্য হবে চিন, রাশিয়া ও G7 দেশগুলি অর্থাৎ কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, জাপান, ইতালি, আমেরিকা ও ব্রিটেনের উপরে। সঙ্গে রয়েছে আরও কয়েকটি দেশ। কিন্তু রহস্যজনক ভাবে বাদ পড়েছে ভারত। আর এ নিয়েই শুরু হয়েছে জল্পনা!

এই নতুন লেবেল আনার পিছনে বা এই চিহ্নিতকরণ প্রক্রিয়ার পিছনে ঠিক কী কারণ রয়েছে, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে একটি ব্লগ পোস্টে Twitter কর্তৃপক্ষের তরফে জানানো হয়েছে, যে সমস্ত দেশে এই নতুন লেবেল প্রযোজ্য হবে, তাদের ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম-নীতি থাকবে। এই নতুন পদক্ষেপের লক্ষ্য হল স্টেট লিঙ্ক অপারেশন সিস্টেম। অর্থাৎ কোনও প্রদেশ, রাজ্য বা দেশের সরকারের উচ্চ আধিকারিক, প্রধান ও প্রতিষ্ঠানগুলির উপরে গুরুত্ব দেওয়া। কারণ এরাই দেশের তথ্য প্রবাহের অন্যতম স্তম্ভ। এক্ষেত্রে সাধারণ মানুষজনও অ্যাকাউন্টগুলি সম্পর্কে সচেতন হবে। তাঁরা বুঝতে পারবেন কোথায় কাকে নিয়ে কী কথা বলা হচ্ছে!

তবে, মজার বিষয়টি হল ভারতের ক্ষেত্রে এই টুল প্রযোজ্য নয়। বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, Twitter কর্তৃপক্ষকে একাধিক অ্যাকাউন্ট ব্যান করার সরকারি চাপ ও বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির জেরেই বাদ পড়তে হয়েছে ভারতকে। কারণ কোথাও একটা ঠাণ্ডা যুদ্ধ জারি রয়েছে। প্রসঙ্গত, কৃষক আন্দোলন ও সমকালীন রাজনৈতিক নানা ঘটনা নিয়ে সরগরম দেশের ট্যুইট মহল। ভারত সরকারের আবেদনে একাধিক কড়া পদক্ষেপও করা হয়েছে Twitter-এর তরফে। ৫০০-এর বেশি অ্যাকাউন্টকে পুরোপুরি ভাবে সাসপেন্ড করে দেওয়া হয়েছে। তবে কিছু অ্যাকাউন্ট আবার ব্লক করতে রাজ হয়নি Twitter কর্তৃপক্ষ। এর জেরে একটা মতভেদও স্পষ্ট হয়েছে। এ নিয়ে আমেরিকার ডিপার্টমেন্ট অফ স্টেটের মুখপাত্র নেড প্রাইসের (Ned Price) স্পষ্ট বার্তা, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে গুরুত্ব দিতে হবে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিয়ে সর্বদা যত্নশীল থাকতে হবে। আমার মনে হয় যখন Twitter-এর নিয়ম-নীতি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে, তখন তা পুরোপুরিভাবে Twitter-এর উপরেই ছেড়ে দেওয়া ভালো।

দিন কয়েক আগে Twitter-এর তরফে জানানো হয়েছিল, ভারত সরকারের তরফে একাধিক নির্দেশ জারি করে আলাদা আলাদা ভাবে ট্যুইটের একাধিক হ্যাশট্যাগ, অ্যাকাউন্ট ও পোস্ট ব্লক করার কথা বলা হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তি আইনের 69A ধারার অধীনে দেশের তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফেই এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এর পর থেকে এই বিষয়টি নিয়ে জোরকদমে সমালোচনা শুরু হয়েছে। অনেকে Koo অ্যাপ ব্যবহার করার কথা বলেছেন। হয়তো সেই সূত্র ধরেই নতুন লেবেল মার্কিং টুল থেকে আলাদা রাখা হল ভারতকে।

Twitter-এর এই লেবেল নিয়ে সংস্থার তরফে আরও জানানো হয়েছে, উপরে উল্লিখিত দেশগুলি ছাড়া কিউবা, ইকুয়েডর, ইজিপ্ট, হন্ডুরাস, ইন্দোনেশিয়া , ইরান, সৌদি আরব, সার্বিয়া, স্পেন, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, আরব আমিরশাহির সরকারি আধিকারিকদের ক্ষেত্রেও একই বিষয় লাগু হবে!

Published by:Rukmini Mazumder
First published: