প্রযুক্তি

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ইউটিউব-নেটফ্লিক্সকে পিছনে ফেলে ২০২০-র সর্বাধিক উপার্জনকারী অ্যাপ টিকটক

ইউটিউব-নেটফ্লিক্সকে পিছনে ফেলে ২০২০-র সর্বাধিক উপার্জনকারী অ্যাপ টিকটক
ইউটিউব-নেটফ্লিক্সকে পিছনে ফেলে ২০২০-র সর্বাধিক উপার্জনকারী অ্যাপ টিকটক

ভারতের নিষিদ্ধ, আমেরিকায় চলছে আইনী লড়াই৷ তাসত্ত্বেও কেউ রুখতে পারেনি চিনা অ্যাপ টিকটকের ব্যবসা৷ ইউটিউব-নেটফ্লিক্সকে পিছনে ফেলে গোটা বিশ্বের মধ্যে ২০২০-র সর্বাধিক উপার্জনকারী অ্যাপের তকমা ছিনিয়ে নিল টিকটক৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ভারতের নিষিদ্ধ, আমেরিকায় চলছে আইনী লড়াই৷ তাসত্ত্বেও কেউ রুখতে পারেনি চিনা অ্যাপ টিকটকের ব্যবসা৷ ইউটিউব-নেটফ্লিক্সকে পিছনে ফেলে গোটা বিশ্বের মধ্যে ২০২০-র সর্বাধিক উপার্জনকারী অ্যাপের তকমা ছিনিয়ে নিল টিকটক৷

৫৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের মুনাফা করেছে টিকটক৷ চিনা শর্ট-ভিডিও মেকিং অ্যাপের পরেই আছে ডেটিং অ্যাপ টিন্ডার৷ যারা লাভ করেছে ৫১৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার৷ তিনে ইউটিউব (৪৭৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার), চারে ডিজনি প্লাস (৩১৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) ও টেনসেন্ট ভিডিও (৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)৷ দশে রয়েছে নেটফ্লিক্স (২০৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)

অ্যাপ অ্যানালিটিকস ফার্ম অ্যাপটোপিয়া এমনই রিপোর্ট দিয়েছে৷ কোম্পানির বিবৃতিতে বলা হয়েছে, "এই পরিসংখ্যান আইওএস ও গুগল প্লে মিলিয়ে৷ ব্যতিক্রম চিন, ওখানে শুধুই আইওএস প্ল্যাটফর্ম৷ এই পরিংসখ্যানের মধ্যে অ্যাপের 'লাইট' ভার্সনও রয়েছে৷"

গতবছর ৮৫০ মিলিয়ন টিকটক ডাউনলোড হয়েছে৷ তারপেরই হোয়াটসঅ্যাপ (৬০০ মিলিয়ন), ফেসবুক (৫৪০ মিলিয়ন), ইনস্টাগ্রাম (৫০৩ মিলিয়ন, ফেসবুক পরিবারেরই সদস্য)৷ পাঁচে জুম (৪৭৭ মিলিয়ন), অতিমারীর মধ্যে ভিডিও কলিং হয়ে উঠেছিল অন্যতম যোগাযোগের হাতিয়ার৷ জুমের জনপ্রিয়তা ছিল প্রশ্নাতীত৷ ছ'নম্বরে ফেসবুক মেসেঞ্জার (৪০৪ মিলিয়ন ডাউনলোড)৷

কোম্পানির তরফে বলা হয়েছে এই তালিকায় কোনও চমক নেই৷ ফেসবুকের চারটি অ্যাপ রয়েছে৷ নতুনদের মধ্যে জুম ও গুগল মিট৷ সর্বাধিক উপার্জনকারী ও ডাউনলোডেড অ্যাপ হিসাবে টিকটকের নামই থাকবে বলে প্রত্যাশিত ছিল৷ বছরের দ্বিতীয়ার্ধে ভারতে টিকটক নিষিদ্ধ হওয়ার পর এমএক্স টাকাটাক, জোশ ভিডিওস ও এমওজি-র মতো সোশ্যাল শর্ট-ভিডিও মেকিং অ্যাপ বাজার করে৷

কোম্পানি মনে করছে হোয়াটসঅ্যাপের নতুন নীতি মেনে ফেসবুককে তথ্য শেয়ার করতে হবে৷ নাহলে ৮ ফেব্রুয়ারির পর থেকে হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টের আর অস্তিত্ব থাকবে না৷ সেক্ষেত্রে হোয়াটসঅ্যাপের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসাবে টেলিগ্রামে ঝড় তুলতে পারে৷ ফেসবুকের জন্য মাথা ব্যাথার কারণ হতে পারে টেলিগ্রাম৷

Published by: Subhapam Saha
First published: January 10, 2021, 10:04 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर