'সোশাল সাইটের অপব্যবহার বিপজ্জনক, নির্দেশিকা তৈরি করতে হবে কেন্দ্রকে’: সুপ্রিম কোর্ট

'সোশাল সাইটের অপব্যবহার বিপজ্জনক, নির্দেশিকা তৈরি করতে হবে কেন্দ্রকে’: সুপ্রিম কোর্ট
সোশাল মিডিয়ায় নজরদারিতে সায় সুপ্রিম কোর্টের

সোশাল মিডিয়ার অপব্যবহার রুখতে কড়া নির্দেশিকা প্রয়োজন। তিন সপ্তাহের মধ্যে এনিয়ে হলফনামা দিতে হবে কেন্দ্রকে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: প্রযুক্তির অপব্যবহার কোন জায়গায় যেতে পারে? এর পরিণতি কী? সুপ্রিম কোর্ট জানাল, প্রযুক্তির অপব্যবহার হলে আদালতও অসহায়। তাই সোশাল মিডিয়া ব্যবহারে কড়া নির্দেশিকা চাইছে শীর্ষ আদালত।

সোশাল মিডিয়া মানেই যা খুশি তাই। আড়ালে থেকে ছড়িয়ে দেওয়া বার্তা, ছবি ও ভিডিও। যা ইচ্ছে, তাই করির দিন বোধহয় শেষ হতে চলল। সোশাল মিডিয়ার অপব্যবহার নিয়ে উদ্বিগ্ন সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ।

সোশাল মিডিয়ার অপব্যবহার রুখতে কড়া নির্দেশিকা প্রয়োজন। তিন সপ্তাহের মধ্যে এনিয়ে হলফনামা দিতে হবে কেন্দ্রকে।

তা হলে কী সোশাল মিডিয়ায় নজরদারির পক্ষেই মত দিচ্ছে শীর্ষ আদালত? তা স্পষ্ট হতে আরও অপেক্ষা। মঙ্গলবার সোশাল মিডিয়ায় অপব্যবহার নিয়ে কয়েকটি দৃষ্টান্ত আদালতে তুলে ধরেন আইনজীবীরা। যার পরেই বিচারপতি দীপক গুপ্ত ও বিচারপতি অনিরুদ্ধ বোসের ডিভিশন বেঞ্চের মন্তব্য

একটা স্মার্টফোন থেকে আমার ব্যক্তিগত তথ্য যে কেউ জেনে নিতে পারে। এটা আশঙ্কাজনক। ভাবছি স্মার্টফোন ব্যবহার করাই ছেড়ে দেব?

বিচারপতিরা আরও বলেন, সোশাল মিডিয়ায় কী হচ্ছে? সবটা শুনে ভয় লাগছে। আমরা এতটাই অসহায়!

সোশাল মিডিয়ায় নজরদারির পক্ষেই সওয়াল করছে কেন্দ্র। এখানেই আপত্তি নেটিজেনদের। তাদের বক্তব্য, নেটে নজরদারির অর্থ, নাগরিক অধিকারে হস্তক্ষেপ। মামলায় একটি পক্ষের এই সওয়াল শুনে বিচারপতিরা বলেন।

ইন্টারনেট নিয়ে নয়, আদালত দেশের সুরক্ষা নিয়ে চিন্তিত। দেশের মানুষকে নিয়ে চিন্তিত।

সোশাল মিডিয়ায় আধার যুক্ত করাকে চ্যালেঞ্জ করে মাদ্রাজ হাইকোর্টে মামলা করে ফেসবুক। বিভিন্ন হাইকোর্টে আরও মামলা হয়। এইসব মামলাগুলি একত্রিত করে সুপ্রিম কোর্টে শুনানি আবেদন জমা পড়েছে শীর্ষ আদালতে। তারই শুনানিতে সুপ্রিম কোর্টের এই অবস্থান।

First published: 09:40:50 AM Sep 25, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर