প্রযুক্তি

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ঘরে বসেই ভারত ভ্রমণ, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কাজে লাগিয়ে ইতিহাস, সংস্কৃতির ভার্চুয়াল মিউজিয়াম বানাচ্ছে Google

ঘরে বসেই ভারত ভ্রমণ, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কাজে লাগিয়ে ইতিহাস, সংস্কৃতির ভার্চুয়াল মিউজিয়াম বানাচ্ছে Google

স্মার্টফোনে অ্যাকসেস করা যাবে এই ভার্চুয়াল মিউজিয়াম। হেঁটে-চলে বেড়ানো যাবে যে কোনও বিখ্যাত দর্শনীয় স্থানে। ইচ্ছে মতো জুম ইন, জুম আউটের ব্যবস্থাও রয়েছে

  • Share this:

আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কাজে লাগিয়ে ভারতের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি সংরক্ষণে ভার্চুয়াল মিউজিয়াম চালু করছে Google। সেই উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হবে নানা আধুনিক প্রযুক্তি। অগমেন্টেড রিয়ালিটি, হাই ডেফিনেশন রোবোটিক ক্যামেরা ব্যবহার করে তুলে ধরা হবে নানা বিখ্যাত আঁকার মিনিয়েচার। সেই সব আঁকার মধ্যে তুলে ধরা হবে দেশের সংস্কৃতি। এই প্রথম অগমেন্টেড রিয়ালিটি প্রযুক্তি ব্যবহার করে এমন অভিনব উদ্যোগ নেওয়া হল।

মঙ্গলবার Google আর্ট অ্যান্ড কালচার জানিয়েছে, দেশজ সংস্কৃতি ধরে রাখতে দিল্লির ন্যাশনাল মিউজিয়ামের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছে তারা। এই ভার্চুয়াল মিউজিয়ামের নকশায় থাকছে দেশের নামী স্থাপত্য। মুঠোফোন থাকলেই আপনি মানসভ্রমণ করে ঘুরে আসতে পারবেন ভারতের নানা স্থানে। টাইম ট্র্যাভেলও সম্ভব।

স্মার্টফোনে অ্যাকসেস করা যাবে এই ভার্চুয়াল মিউজিয়াম। হেঁটে-চলে বেড়ানো যাবে যে কোনও বিখ্যাত দর্শনীয় স্থানে। ইচ্ছে মতো জুম ইন, জুম আউটের ব্যবস্থাও রয়েছে, জানিয়েছেন Google আর্ট অ্যান্ড কালচারের প্রোগ্রাম ম্যানেজার সাইমন রেইন।

আঁকার ক্ষুদ্র সংস্করণেও যথেষ্ট বিশদে তুলে ধরা হয়েছে দেশের সংস্কৃতির নানা খুঁটিনাটি। তা তুলে ধরতে সাহায্য করেছে আর্ট ক্যামেরা, আলট্রা হাই রেজোলিউশন রোবোটিক ক্যামেরা। আধুনিক প্রযুক্তির মান এতই উন্নত, বাজির ধোঁয়া দেখলে মনে হবে যেন সত্যিই ধোঁয়া। আবার রাজারাজড়াদের মিছিল জুম করলে দেখা যাবে রাজকীয় সব বাহারি পোশাক।

তবে এই প্রথম যে এমন উদ্যোগ নিচ্ছে Google, তা নয়। মহাত্মা গান্ধীর ১৫১তম জন্মজয়ন্তীতে তাঁকে শ্রদ্ধা জানিয়ে পোস্ট কার্ড ছাপিয়েছিল Google আর্ট অ্যান্ড কালচার। সেই উদ্যোগের নাম ছিল 'বি দ্য ভয়েজ অব চেঞ্জ ভায়া পোস্টকার্ডস'। শুক্রবার থেকে অনলাইনে শুরু হয়েছে এই প্রদর্শনী। এই উদ্যোগে কোচির এক সংস্থা লেটারফার্মকে পাশে পেয়েছে Google আর্ট অ্যান্ড কালচার।

প্রযুক্তি মানুষকে কেবলই শিকড় থেকে বিচ্ছিন্ন করছে, এমন এক অভিযোগ রয়েছে বহু দিন ধরেই। এ বার বোধয় সেই অভিযোগের অবসান হতে চলেছে। প্রযুক্তির হাত ধরেই এই আধুনিক সময়ে নিজের দেশের শিল্প, সংস্কৃতি, ভাষা, আচারের সঙ্গে স্পর্শে থাকা যাবে ।

Published by: Elina Datta
First published: October 27, 2020, 6:25 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर