• Home
  • »
  • News
  • »
  • technology
  • »
  • OTHER TECH 4 MUST DOS TO ENSURE HACKERS CANNOT STEAL YOUR IDENTITY ONLINE AC

Hacking Safety Tips: মাত্র ৪টি সহজ নিয়ম মানলেই হ্যাকিং রোধ করা সম্ভব

Safety tips from hackers: মহারাষ্ট্র সাইবার ক্রাইম দফতরের ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে এই বিষয়ে একটি পোস্ট করা হয়েছে।

Safety tips from hackers: মহারাষ্ট্র সাইবার ক্রাইম দফতরের ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে এই বিষয়ে একটি পোস্ট করা হয়েছে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বর্তমান সময়ে অনেকেই অনলাইন প্রতারণার সমস্যায় পড়ছেন। ইদানিং সময়ে ব্যাঙ্ক থেকে টাকা গায়েব বা ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার একাধিক অভিযোগ জমা পড়ে। অনেকে এবিষয়ে সচেতন হলেও সকলকে আরও সচেতন হতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে ব্যক্তিগত তথ্য বা ব্যাঙ্কের যাবতীয় তথ্য যেন অন্য কারোর কাছে না পৌঁছয়।

শুধু টাকা নয় অনেকের ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও হাতিয়ে নেয় হ্যাকাররা। যা নিয়ে পরবর্তী সময়ে বিকৃত করে ব্ল্যাকমেল করা হয়। এমনকী ইমেল আইডি হ্যাক করেও বিভিন্ন অপকর্ম করতে পারে অসামাজিক কাজের সঙ্গে জড়িতরা। তাহলে কীভাবে সুরক্ষিত থাকতে হবে? চারটি খুব সাধারণ টিপস মাথায় রাখলেই এই সমস্যা থেকে সমাধান পাওয়া যাবে। মহারাষ্ট্র সাইবার ক্রাইম দফতরের ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে এই বিষয়ে একটি পোস্ট করা হয়েছে। সেখানেই চারটি সাধারণ নিয়মের কথা বলা হয়েছে-

১) ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিংয়ের জন্য সর্বদা ব্যক্তিগত মোবাইল বা ল্যাপটপ বা ডেক্সটপ ব্যবহার করতে হবে। কাজ শেষে সর্বদা তা লগআউট করতে হবে।

২) অনলাইনে যখন কোনও ওয়েবসাইটে ব্যক্তিগত তথ্য দেওয়া হচ্ছে সেবিষয়ে সচেতন হতে হবে। কোনওভাবেই যেন ওযেবসাইটটি ভুয়ো না হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে।

৩) সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের জন্য ব্যক্তিগত ডিভাইস ব্যবহার করতে হবে। সাইবার ক্যাফের কম্পিউটার ব্যবহার করা যাবে না।

৪) ইমেইল বা ফোনের ইনবক্সে অনেকসময় সন্দেহজনক বা ভুয়ো ওয়েবসাইট থেকে বিভিন্ন লিঙ্ক পাঠানো হয়। সেই লিঙ্কগুলি কখনই ক্লিক করা উচিত নয়। এতে কম্পিউটার হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

এর পাশাপাশি আরও কয়েকটি নিয়ম মেনে চলতে হবে। যদি সম্ভব হয় অ্যাকাউন্টে টু ফ্যাক্টর অথন্টিকেশন করে রাখতে হবে। পাসওয়ার্ড যেন সাধারণ কোনও কিছু না থাকে। কোনও ওয়েবসাইট খোলার আগে দেখে নিতে হবে তার আগে https কথাটি আছে কিনা।

যদি মনে হয় কোনও ডিভাইস বা কোনও নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে তাহলে যত দ্রুত সম্ভব স্থানীয় থানার সাইবারক্রাইম বিভাগে জানাতে হবে।

Published by:Ananya Chakraborty
First published: