corona virus btn
corona virus btn
Loading

গুগল প্লে স্টোর ও iOS অ্যাপ স্টোর থেকে সরিয়ে দেওয়া হল TikTok, Helo

গুগল প্লে স্টোর ও iOS অ্যাপ স্টোর থেকে সরিয়ে দেওয়া হল TikTok, Helo

TikTok-এর তরফে অবশ্য বলা হয়েছে, ডেটা সুরক্ষা এবং গোপনীয়তা সংক্রান্ত সমস্ত বিষয় ভারতীয় আইন অনুযায়ী তারা মেনে চলেছেন ৷ এবং ভারত বা চিন-সহ অন্য কোনও দেশের সরকারের সঙ্গেই অ্যাপ ইউজারদের কোনও তথ্য শেয়ার করা হয়নি ৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: সীমান্তে উত্তেজনার মধ্যেই চিনকে ডিজিটাল প্রত্যাঘাত ভারতের। টিকটক, শেয়ার ইট, ইউসি ব্রাউজারের মতো ৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে মোদি সরকার। দেশের সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বিপজ্জনক হওয়ায় চিনা অ্যাপগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এবার গুগল প্লে স্টোর এবং iOS অ্যাপ স্টোর থেকেও সরিয়ে দেওয়া হল নিষিদ্ধ ঘোষণা করা সব অ্যাপকে ৷ যাদের মধ্যে রয়েছে ভিডিও শেয়ারিং ও সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ TikTok  এবং Helo-ও ৷ আর যাতে এ দেশের কেউ অ্যাপগুলি ডাউনলোড করতে না পারেন, তার জন্যই এই সিদ্ধান্ত ৷

TikTok-এর তরফে অবশ্য বলা হয়েছে, ডেটা সুরক্ষা এবং গোপনীয়তা সংক্রান্ত সমস্ত বিষয় তারা ভারতীয় আইন অনুযায়ী মেনে চলেছেন ৷ এবং ভারত বা চিন-সহ অন্য কোনও দেশের সরকারের সঙ্গেই অ্যাপ ইউজারদের কোনও তথ্য শেয়ার করা হয়নি ৷ তাই এ বিষয়ে সংস্থার পক্ষ থেকে সরকারি আধিকারিকদের সঙ্গে আলোচনা হবে বলে একটি বিবৃতি ট্যুইটারে পোস্ট করেন টিকটক ইন্ডিয়ার প্রধান নিখিল গান্ধি ৷

সেলিব্রিটি থেকে আম জনতা। টিকটকে মজে অনেকেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় টিকটক ভিডিও-র ছড়াছড়ি। টিকটক স্টারের সংখ্যাও নেহাত কম নয়।  সোমবার থেকে অবশ্য ভারতে টিকটক নিষিদ্ধ হয়ে গেল। নিষিদ্ধ হয়ে গেল শেয়ার ইট-ইউসি ব্রাউজার-উই চ্যাট-বিউটি প্লাসের মতো অ্যাপও। লাদাখ সীমান্তের সংঘাতের মাঝেই ৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করল কেন্দ্রীয় সরকার। সোমবার চিনা অ্যাপে নিষেধাজ্ঞার বিজ্ঞপ্তি জারি করে তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক। তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৬৯-এ ধারা ব্যবহার করে অ্যাপগুলি নিষিদ্ধ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশের সার্বভৌমত্ব ও সুরক্ষার প্রশ্নে বিপজ্জনক এই চিনা অ্যাপগুলি।

তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রকের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, নিষিদ্ধ অ্যাপগুলির তালিকায় রয়েছে, টিকটক, ভিগো ভিডিও, বিগো লাইভ, উই চ্যাট এবং লাইক ৷ এখন অনেকেই অনলাইনে কেনাকাটা করেন। কিন্তু, তাতেও লুকিয়ে চিনা-বিপদ। তাই চিনা শপিং অ্যাপও নিষিদ্ধ করেছে কেন্দ্র। তালিকায় রয়েছে, ক্লাবফ্যাক্টরি, রোমউই, শিন-এর মতো অ্যাপ ৷ ছবি তুলে অ্যাপের মাধ্যমে তা একেবারে ঝকঝকে। এরকম বিউটি অ্যাপেও নেমে এসেছে নিষেধাজ্ঞার খাড়া। তালিকায়, বিউটি প্লাস, ফোটো ওয়ান্ডার, ইউক্যাম মেকআপ, সেলফি সিটি, ওয়ান্ডার ক্যামেরা, পারফেক্ট কর্প ৷

ফাইল শেয়ারিং অ্যাপগুলির মধ্যে নিষিদ্ধ করা হয়েছে, শেয়ার ইট, জেন্ডার ৷ এছাড়ায় নিষিদ্ধ অ্যাপের তালিকায় রয়েছে, ভাইরাস ক্লিনার, বাইদু ট্রান্সলেট, বাইদু ম্যাপ, থ্রি সিক্সটি সিকিউরিটি ৷

গালওয়ান সংঘর্ষের পর থেকেই দেশজুড়ে চিনা পণ্য বয়কটের ডাক জোরালো হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় চিনা অ্যাপ আনইনস্টলের দাবিও তুলেছেন অনেকে। তাই কেন্দ্রের এই পদক্ষেপকে স্বাগতই জানাচ্ছেন অ্যাপ ইউজাররা। সীমান্ত-সংঘর্ষের আনেক আগে থেকেই গোয়েন্দারের রাডারে ঘুরপাক খাচ্ছে চিনা অ্যাপগুলি। গোয়েন্দা সূত্রে খবর, ব্যবহারকারীর অজান্তেই মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে তাঁর ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেয় চিনা অ্যাপগুলি। সেই তথ্য সরাসরি পৌঁছে যায় বিদেশি সার্ভারে। প্রযুক্তির ভাষায় যাকে ‘ডেটা মাইনিং’ বলে। তাই সার্বভৌমত্ব ও ব্যক্তিগত গোপনীয়তার স্বার্থে ৫৯টি চিনা অ্যাপকে নিষিদ্ধ করল মোদি সরকার।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: June 30, 2020, 11:15 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर