corona virus btn
corona virus btn
Loading

১৭ মে পর্যন্ত বিনামূল্যে ইন্টারনেট ডেটা দিচ্ছে মোবাইল সংস্থাগুলি, খবরটি ভুয়ো না সত্যি ?

১৭ মে পর্যন্ত বিনামূল্যে ইন্টারনেট ডেটা দিচ্ছে মোবাইল সংস্থাগুলি, খবরটি ভুয়ো না সত্যি ?

হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুক ও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষের কাছে পৌঁছে গিয়েছে

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। আতঙ্কের পাশাপাশি ছড়িয়ে পড়ছে একাধিক গুজব আর ভ্রান্ত ধারণা যা বিভ্রান্ত করছে লক্ষ লক্ষ সাধারণ মানুষকে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে হোয়াটসঅ্যাপ-সহ সোশাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে ভুয়ো খবর। এরই মাঝে আরও একটি খবর হোয়াটসঅ্যাপে ভাইরাল হয়েছে, ১৭ মে পর্যন্ত বিনামূল্যে ইন্টারনেট ডেটা দিচ্ছে টেলিকম দফতর।

হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুক ও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ায় হাজার হাজার মানুষের কাছে পৌঁছে গিয়েছে এই ভুয়ো খবর। এই মেসেজের সঙ্গে একটি লিঙ্ক থাকছে, দাবি করা হচ্ছে যে এই লিঙ্কে ক্লিক করলেই গ্রাহকরা পেয়ে যাবে ফ্রি ইন্টার ডেটা ১৭ মে পর্যন্ত। আর এই রিচার্জটিকে বলা হচ্ছে - COVID-19 রিচার্জ অফার। এই মেসেজ অনুযায়ী, দেশের সমস্ত মোবাইল সংস্থাগুলি গ্রাহকদের সুবিধার্থে বিনামূ্ল্যে ইন্টারনেট পরিষেবার কথা ঘোষণা করেছে।

এই মেসেজটি সত্যতা যাচাই করছে প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো (PIB) ফ্যাক্ট চেক। তাঁরা সব তথ্য যাচাই করে জানিয়েছে যে এই মেসেজটি ফেক। মেসেজটির সঙ্গে থাকা লিঙ্ক কোনও আসল ওয়েবসাইটের নয়। টেলিকমিউনিকেশন দফতরের তরফে এমন কোনও নির্দেশিকা জারি হয়নি। ট্যুইট করে এই তথ্য জানিয়েছে পিআইবিফ্যাক্ট চেক।

হিন্দিতে ট্যুইট PIB ফ্যাক্ট চেক জানিয়েছে, 'দাবি: ১৭ মে পর্যন্ত বিনামূল্যে ইন্টারনেট ডেটা দিচ্ছে টেলিকম দফতর। এই জন্য একটি লিঙ্কে ক্লিক করতে হবে। সত্য: এই দাবি সম্পূর্ণ ভুল। প্রতারকদের ভুয়ো লিঙ্কে ক্লিক করবেন না। টেলিকমিউনিকেশন দফতরের তরফে এমন কোনও নির্দেশিকা জারি হয়নি।'

করোনাভাইরাসের কারণে দেশব্যাপী লকডাউন চলছে। ১৭ মে পর্যন্ত দেশবাসীকে ঘরের মধ্যে থাকার অনুরোধ করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। প্রয়োজনীয় কাজ ছাড়া বাইরে যাওয়া নিষিদ্ধ হয়েছে। প্রয়োজনীয় কাজে বাইরে যাওয়ার সময় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। ইতিমধ্যেই দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা ৬০ হাজার ছুঁইছুঁই। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৯৮১।

Published by: Bangla Editor
First published: May 9, 2020, 9:03 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर