প্রযুক্তি

corona virus btn
corona virus btn
Loading

iPhone কিনতে সত্যি সত্যিই কিডনি বিক্রি করেছিলেন তরুণ ! তারপর...

iPhone কিনতে সত্যি সত্যিই কিডনি বিক্রি করেছিলেন তরুণ ! তারপর...

বন্ধুদের দেখাতে গিয়েই এই কাজ করে বসেন তিনি

  • Share this:

#বেজিং: বাজারে iPhone আসার পর, তার আকাশছোঁওয়া দাম নিয়ে প্রায়শই বন্ধুদের মধ্যে ইয়ার্কি-ঠাট্টা চলে। মোড়ের দোকানের আড্ডা থেকে সোশ্যাল মিডিয়াতেও ছড়িয়ে পড়ে নানা জোকস। প্রায়ই অনেকে মজা করে বলে থাকেন, iPhone কিনতে গেলে কিডনি বেচতে হবে। এই ইয়ার্কিকেই বাস্তবে পরিণত করে দিয়েছিলেন চিনের এক তরুণ। খবর বলছে, বন্ধুদের নিজের স্টেটাস দেখাতে গিয়ে একদিন iPhone কেনার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। কিন্তু iPhone-এর দাম যে অনেক! সাত-পাঁচ না ভেবে নিজের কিডনিটাই বিক্রি করে দেন তিনি অতঃপর!

জানা গিয়েছে যে এ বছর নয়েক আগের ঘটনা। ২০১১ সাল। চিনের বাসিন্দা ওয়াং সাংগকুনের বয়স তখন ১৭। সেই সময়ে একটি iPhone 4 ও একটি iPad2 কেনার জন্য রীতিমতো মুখিয়ে ছিলেন ওয়াং। এর মাঝেই অনলাইনে এক অরগ্যান হার্ভেস্টারের পাল্লায় পড়েন এই তরুণ। সেই অরগ্যান হারভেস্টার তাঁকে একটি কিডনির বদলে ২০,০০০ ইউয়ান (ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ২,২৭,৩১৪.৭২ টাকা) দেওয়ার কথা বলেন। আর এই ফাঁদে সহজেই পা ফেলেন ওয়াং। অনলাইন চ্যাটে সমস্ত পরিকল্পনা হয়ে যায়। তরুণের মা-বাবাকে না জানিয়েই গোপনে একটি সার্জারি হয় এবং একটি কিডনি বেচে দেন ওয়াং। এই কিডনি বের করার কাজটি করেছিলেন স্থানীয় হাসপাতালের দুই চিকিৎসক। পরে পুরো ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যায়। তদন্তে নামে পুলিশ। পরের দিকে কিডনি কেনা-বেচার এই ঘটনায় দুই চিকিৎসকসহ মোট ন'জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত বছরও এ নিয়ে খবর করে Fox News। সেই প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, ন'বছর আগে ওয়াং বলেছিলেন যে তাঁর বাঁচার জন্য একটি কিডনিই যথেষ্ট। দ্বিতীয় কিডনির আর কোনও দরকার নেই। সেই সময় ৩,০০,০০০ ডলারের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছিল তরুণের পরিবারকে। স্থানীয়দের একাংশের তরফে জানা গিয়েছিল, তরুণের পরিবারের iPhone কিনে দেওয়ার সাধ্য ছিল না। বন্ধুদের দেখাতে গিয়েই এই কাজ করে বসেন তিনি।

কিন্তু ঘটনার কয়েক মাস পরই ওয়াংয়ের অবশিষ্ট কিডনিতে সংক্রমণ শুরু হয়। এর জেরে অরগ্যান ফেলিওর হয়। যত সময় এগোতে থাকে, ততই বিগড়োতে থাকে শরীর। একটা সময়ে বিছানা থেকে উঠতে পারতেন না তিনি। এখনও সেই অপরিমাণদর্শী কাজের ফল পিছু ছাড়েনি তাঁর। রেনাল ডেফিসিয়েন্সিসহ একাধিক সমস্যার জেরে চিকিৎসা চলছে ওয়াংয়ের। রক্তে টক্সিন দূর করতে এখন রোজই ডায়ালিসিস চলে তাঁর।

Published by: Ananya Chakraborty
First published: November 17, 2020, 5:55 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर