corona virus btn
corona virus btn
Loading

সর্বত্র অশ্লীল কনটেন্ট থেকে শিশুদের দূরে রাখলেও, ভারতে TikTok-এর নেই কোনও লাগাম !

সর্বত্র অশ্লীল কনটেন্ট থেকে শিশুদের দূরে রাখলেও, ভারতে TikTok-এর নেই কোনও লাগাম !
Representational Image

কোনও সিনেমার সংলাপ থেকে শুরু করে, গান, নাচ, অভিনয়, কত কিছুই না অনায়াসে করে ফেলা সম্ভব হচ্ছে টিকটকের মাধ্যমে ৷ তবে চিন্তার বিষয় হল, এই অ্যাপে ‘সেমি-পর্ন’ কনটেন্টেরও কোনও অভাব নেই ৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: দেশজুড়ে চিনা অ্যাপ বর্জনের ডাক উঠেছে ৷ সেই তালিকায় রয়েছে বিভিন্ন চিনা অ্যাপ এবং চিনা স্মার্টফোনও ৷ এখনই স্মার্টফোন বদল না করলেও অনেকেই এখন চিনা অ্যাপগুলি আনইনস্টল করার পক্ষপাতী ৷ ভারতে অন্যতম জনপ্রিয় চিনা ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ হল TikTok ৷ প্রায় প্রতি মুহূর্তেই কেউ না কেউ টিকটক ভিডিও বানিয়ে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করছেন ৷ নেটিজেনদের কাছে এই অ্যাপ অনেকটা নেশার মতোই ৷

কোনও সিনেমার সংলাপ থেকে শুরু করে, গান, নাচ, অভিনয়, কত কিছুই না অনায়াসে করে ফেলা সম্ভব হচ্ছে টিকটকের মাধ্যমে ৷ তবে চিন্তার বিষয় হল, এই অ্যাপে ‘সেমি-পর্ন’ কনটেন্টেরও কোনও অভাব নেই ৷ ভারতে ৩০০ মিলিয়নের বেশি টিকটক ব্যবহারকারীদের কাছে যে ভিডিওগুলি প্রায়শই নজরে পড়ে ৷ আর এই ধরনের ভিডিওগুলি সরানোর ব্যাপারে কোনও হেলদোলও নেই টিকটকের ৷ টিনএজারদের জন্য যা অবশ্যই আকর্ষণ ৷ কিশোর-কিশোরী থেকে যুবক-যুবতী, প্রত্যেকেই এই সেমি পর্ন ভিডিওগুলি দেখছে প্রতিদিন ৷ ভিডিওগুলির ভিউও তাই  বাড়ছে হু হু করে ৷

কম বয়সী ছেলেমেয়েরা যেহেতু এই অ্যাপ বেশি ব্যবহার করে ৷ তাই তাদের কাছে কোন ভিডিও কন্টেন্ট পৌঁছনো উচিত এবং কোনগুলি নয়, সে ব্যাপারে আরও কড়া হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে এই ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ সংস্থার ৷ এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা ৷ এ ব্যাপারে আমেরিকা বা ইউরোপের বিভিন্ন দেশে অনেক বেশি কড়া অবস্থা নিলেও ভারতে অ্যাপের ভিডিও মনিটারিং করার প্রক্রিয়ায় এখনও সে ভাবে কড়া নয় টিকটক ৷ ফলে এ দেশে ওই ধরণের পর্ন ভিডিওগুলি দেখা যাচ্ছে অনায়াসেই ৷ যদিও টিকটকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এ ব্যাপারে আরও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে যাতে শিশুদের কাছে অ্যাডাল্ট কন্টেন্টগুলি না পৌঁছয় ৷ শুধু ভারতই নয়, আমেরিকা, ব্রিটেন এবং স্পেনের মতো দেশগুলিতে শিশুরা অনেক বেশি পরিমাণে এখন টিকটক ব্যবহার করে বলে ডিজিটাল সেফটি অ্যাপ মেকার Qustodio-র সমীক্ষার রিপোর্টে জানা গিয়েছে ৷ ইউটিউবের মতোই অনেক বেশি মাত্রায় টিকটক করার প্রবণতা শিশুদের মধ্যে দিন দিন বাড়ছে বলে জানা গিয়েছে ৷ প্রতিদিন ৮০ থেকে ৮৫ মিনিট তারা এই অ্যাপ ঘাঁটছে বলে সমীক্ষার রিপোর্টে বলা হয়েছে ৷

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: June 20, 2020, 4:08 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर