অযোধ্যার ঐতিহাসিক রায়ে সর্বত্রই উপস্থিত এই বিশেষ অনুঘটক– News18 Bengali

অযোধ্যার ঐতিহাসিক রায়ে সর্বত্রই উপস্থিত এই বিশেষ অনুঘটক

News18 Bangla
Updated:Dec 06, 2018 05:03 PM IST
অযোধ্যার ঐতিহাসিক রায়ে সর্বত্রই উপস্থিত এই বিশেষ অনুঘটক
News18 Bangla
Updated:Dec 06, 2018 05:03 PM IST

আজ ৬ ডিসেম্বর । ২৬ বছর আগে ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল আজকেই। সেই ঘটনার পর থেকেই রাজনৈতিক ইতিহাসে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে গিয়েছে অযোধ্যার নাম। স্বাধীনতা পরবর্তী অযোধ্যার নানা অজানা ঘটনার খোঁজ দিচ্ছে News 18 ।এই পর্বের মূল চরিত্র সেই কালো বাঁদর, যাকে ঘিরে আজও প্রচলিত নানা কিংবদন্তী ও জনশ্রুতি । আজ সেই ঘটনার বিস্তারিত হদিশ দিলেন Anil Rai

১ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৬ সালে সংবাদমাধ্যম অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিল ফইজাবাদ আদালতের রায় শোনার জন্য। তবে আদালতে চত্বরের জনতার নজর ছিল একটি কালো বাঁদরের উপর। চমকপ্রদ বিষয় হল, বিচারপতি কেএম পান্ডে বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় থেকে শুরু করে প্রতিমুহূর্তেই উপস্থিত ছিল এই কালো বাঁদরটি। এমনকি ১ ফেব্রুয়ারি সকলের আগে আদালতে সেই পৌঁছায় ।

তৎকালীন সিজেএম সিডি রাই জানিয়েছেন এই শুনানি শুরু হওয়ার আগে আদালত প্রাঙ্গনে একটি কালো বাঁদরকে দেখা গিয়েছিল -যার হাতে ছিল জাতীয় পতাকা । আদালতে বিচারপতি প্রবেশ করার পর তাঁকে তাড়ানোর প্রচেষ্টাও ব্যর্থ হয় ।

বিকেল ৪.৪০ নাগাদ অযোধ্যার বিতর্কিত জমির তালা খোলার রায় দিয়েছিলেন বিচারপতি কেএম পান্ডে । এই রায় ঘোষণার কিছুক্ষণের মধ্যেই আদালত ছেড়ে চলে যায় বাঁদরটি ।

সিজেএম সিডি রাই জানিয়েছেন বিচারপতি সিএম পান্ডে বাড়িতে পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর বাড়ির বারান্দায় বসে থাকতে দেখা যায় সেই বাঁদরটিকে ।তাঁকে দেখে বিচারপতি থেকে শুরু করে নিরাপত্তারক্ষীরা সকলেই আশ্চর্য হয়ে গিয়েছিলেন । এরপর থেকেই শুরু হয় নানারকম জনশ্রুতি-কেউ মনে করেন স্বয়ং হনুমানের পুনর্জন্ম ছিল ওই বাঁদরটি, আবার কারোওর মতে সে ছিল ভগবান রামের দূত। যদিও এরপর আর কেউ দেখতে পাননি সেই বাঁদরটিকে,কিন্তু আজও লোকমুখে প্রচলিত রয়েছে নানাবিধ কাহিনী । স্থানীয়দের মতে বিচারপতি নিরাপদে বাড়ি পৌঁছানোর পরেই সেই বাঁদরটি ফিরে গিয়েছিল ।

First published: 05:02:49 PM Dec 06, 2018
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर