Home /News /sports /
Wriddhiman Saha: ‘‘বয়স যদি বেঞ্চমার্ক হয় তাহলে সেটা সবার ক্ষেত্রে সমান হওয়া উচিত’’: ঋদ্ধিমান

Wriddhiman Saha: ‘‘বয়স যদি বেঞ্চমার্ক হয় তাহলে সেটা সবার ক্ষেত্রে সমান হওয়া উচিত’’: ঋদ্ধিমান

ঋদ্ধিমান সাহা

ঋদ্ধিমান সাহা

Wriddhiman Saha Exclusive Interview: একরাশ অভিমান বুকে জমিয়ে রাখা ঋদ্ধিমান মুখ খুলে ফেললেন। আর তুলে দিলেন একাধিক প্রশ্ন। যার প্রত্যেকটি মারাত্মক !      

  • Share this:

কলকাতা: বয়সের কারণে তিনি নাকি ভারতীয় দলে মিস ফিট! তাকে নাকি আর ভারতীয় টেস্ট দলে প্রয়োজন নেই। ইতিমধ্যেই নাকি তাঁকে বলে দেওয়া হয়েছে ভবিষ্যতের রুটম্যাপে তিনি নেই। এর জন্যই নাকি ভবিষ্যৎ বুঝতে পেরে রঞ্জি ট্রফি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন তিনি। যাঁর সম্পর্কে এতগুলো লাইন লেখা হল, তিনি আর কেউ নন- ভারতীয় টেস্ট দলের উইকেটকিপার বাংলার ঋদ্ধিমান সাহা (Wriddhiman Saha Exclusive Interview)।

আরও পড়ুন-১৩ বছরের ছেলে একাই রান্না করল ২০ পদের খাবার! দেখে অবাক পরিবার

বিগত ২-৩ দিন ধরেই ঋদ্ধির অবসর জল্পনা তুঙ্গে। সব জল্পনা নিয়ে স্বয়ং ঋদ্ধিমান (Wriddhiman Saha) অবশেষে মুখ খুললেন। নিউজ18 বাংলাকে দেওয়া এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে উঠে এল বেশ কিছু বিস্ফোরক তথ্য।সাক্ষাৎকারের শুরুতে ঋদ্ধিমান জানিয়েছিলেন, ভারতীয় ক্রিকেটের সঙ্গে তিনি এখনও যুক্ত রয়েছেন। শেষ টেস্ট সফরে তিনি দলে ছিলেন। তাই প্রটোকল মেনে দলের অভ্যন্তরীণ কথা বলবেন না। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দলের ভিতরের কথা না বললেও একরাশ অভিমান বুকে জমিয়ে রাখা ঋদ্ধিমান মুখ খুলে ফেললেন। আর তুলে দিলেন একাধিক প্রশ্ন। যার প্রত্যেকটি বিস্ফোরক।

প্রশ্ন: ভারতীয় দলের পক্ষ থেকে আপনাকে কে এবং কবে জানান যে আপনি ভারতীয় দলে ভবিষ্যতে আর থাকবেন না?

ঋদ্ধিমান- আপনাকে কে বলল আমাকে এই বিষয়ে জানানো হয়েছে। আমাকে কিছু জানানো হয়েছে কিংবা হয়নি সেটা তো অনেক পরের বিষয়। ভারতীয় দলের ভিতরের খবর মিডিয়াতে বেরিয়ে যাচ্ছে। এটা তো ঠিক নয়। যারা খবর দেয় আমি তাদের দলে নই। আমি নিজে এখনও ভারতীয় দলের সদস্য। কারণ শেষ টেস্ট সিরিজ দক্ষিণ আফ্রিকায় আমি ছিলাম। প্রটোকল মেনে ভারতীয় সংক্রান্ত কোনও বিষয়ে কথা বলব না। শ্রীলঙ্কা টেস্ট সিরিজের দল না হওয়া পর্যন্ত আমি এই বিষয়ে কিছুই বলতে চাই না। যা বলার তার পরে বলব হয়তো।

প্রশ্ন- আপনি নাকি অবসর নিতে চান? আপনার জন্য নাকি ফেয়ারওয়েল সিরিজের কথা সিএবি বলছে?

ঋদ্ধিমান- খুব স্পষ্ট করে বলে রাখি শুনে নিন, আমি অবসর নিচ্ছি না। আমার অবসর চিন্তা দেখছি আমার থেকে বাকিদের বেশি। ভারতীয় দলে না থাকলেও আমি ক্রিকেট খেলব। যতদিন ক্রিকেট উপভোগ করব ততদিন খেলব। আপনি নিশ্চিত করে লিখে দিতে পারেন। আর আমি জানিও না আমার বিদায় টেস্ট ম্যাচের কথা বলা হয়েছে। তবে আমি বিদায় নিতেই তো চাই না। টিম ম্যানেজমেন্ট যদি মনে করে আমাকে বাদ দিতে চাইছে তাহলে সেটা তাদের ওপর আমার কিছু বলার নেই। আমি ক্রিকেট খেলছি, খেলব।

ঋদ্ধিমান সাহা ঋদ্ধিমান সাহা

প্রশ্ন- ঋদ্ধিমান আপনার বয়স ৩৭। অশ্বিনেরও ৩৭। শিখর ধাওয়ানের ৩৬, রোহিতের ৩৫। আপনার মনে হয় না শুধু বয়স নিয়ে কেন আপনার ক্ষেত্রে কথা উঠছে? 

ঋদ্ধিমান- অবশ্যই মনে হয়। ভারতীয় ক্রিকেটে বয়স যদি বেঞ্চমার্ক হয় তাহলে সেটা সবার ক্ষেত্রে সমান হওয়া উচিত। প্রত্যেকের ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা নিয়ম কেন হবে? আসলে আমার মনে দলে সবার ক্ষেত্রে সব নিয়ম প্রযোজ্য নয়। না হলে তো আমার মত বাকিদের সুযোগ পাওয়া নিয়ে কথা ওঠা উচিত ছিল। এখন মনে হচ্ছে যারা একটু কম কথা বলে, নিজের মত থাকে তাদের ক্ষেত্রে একটা নিয়ম চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন-বিয়ের মণ্ডপেই শ্বশুরের সঙ্গে তুমুল ঝগড়া; নববধূ বললেন ক্ষমা চাইতে!

প্রশ্ন- একটা প্রশ্ন করছি যদি উত্তর দেন তাহলে দেবেন পুরোটাই আপনার ইচ্ছে। আপনার কখনও মনে হয়েছে ভারতীয় দল থেকে আপনাকে ছেঁটে ফেলা হতে পারে?

ঋদ্ধিমান- আজ বলতে কোনও সমস্যা নেই। তিন বছর আগে যখন আমার কাঁধের চোটের অস্ত্রোপচার করে ফিরে আসি তখনই মনে হয়েছিল আমাকে ভারতীয় দল থেকে ছাঁটা হতে পারে। কেউ আমাকে কিছু বলেনি ঠিকই। তবে আমি বুঝতে পারতাম। ইংল্যান্ড সফরে ৩ উইকেটকিপার দলের সঙ্গে গিয়েছিল। তখন থেকেই ইঙ্গিত পাচ্ছিলাম। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে কানপুর টেস্টে রান না করতে পারলেই আমি ছাঁটাই হতাম। ঘাড়ের ব্যাথা নিয়েও আমি ব্যাট করেছি। অন্য কেউ হলে হয়তো ব্যাট না করলে এতটা চাপে থাকত না।

প্রশ্ন- যদি পারফরম্যান্স এবং ফিটনেস ঠিক থাকে তাহলে আপনার কি মনে হয় ৩৭ বছর সত্যিই অবসরের সময়?

ঋদ্ধিমান- আশা করি ভারতীয় দলের ফিটনেসের দিক থেকে প্রথম তিন-চারজনের মধ্যেই আমি থাকব। আমি ফিট কিনা আপনারা সকলেই দেখেছেন বা জানেন। আমার মনে হয় না বয়সটা কখনও অবসরের মাপকাঠি হতে পারে। মহেন্দ্র সিং ধোনি ৩৯ বছরে ক্রিকেট খেলেছিলেন। তখন কিন্তু কেউ প্রশ্ন করেনি।

প্রশ্ন- আপনি ভারতীয় দলে জায়গা পাবেন না বলেই নাকি রঞ্জি ট্রফি খেলছেন না?

ঋদ্ধিমান- আমি রঞ্জি ব্যক্তিগত কারণে খেলছি না। পারিবারিক একটি কারণ আছে। তবে তার সঙ্গে আরও কয়েকটি কারণ আছে সেগুলো এখনই বলা সম্ভব নয়। তবে এটা বলে রাখি বাংলা দল যদি নকআউটে উঠে তাহলে আমি কিন্তু খেলব।

প্রশ্ন- সবাই বলছে আপনি রঞ্জি খেলছেন না ফলে এমনি ভারতীয় দল থেকে বাদ পড়বেন। যদি খেলতেন, বড় রান করতেন তাহলে আপনার বলার একটা জায়গা থাকতো। রঞ্জি না খেলে কি ভুল করলেন? 

ঋদ্ধিমান- আমি একটা জিনিস বুঝতে পারছি না এই যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে কেএল রাহুল খেলল না কিংবা বিরাট কোহলি ব্যক্তিগত কারণে ছুটি নিয়ে অস্ট্রেলিয়া থেকে ফিরছিলেন। বা ইংল্যান্ডের বেন স্টোকস সহ অনেকেই বিভিন্ন সময় ব্যক্তিগত কারণে ক্রিকেট থেকে ছুটি নেন। তাহলে কি প্রত্যেকেই দল থেকে একেবারে বাদ পড়েছেন নাকি অবসর নেওয়ার কথা ভাবেন। আবারও বলছি, যেকোনও জায়গায় নিয়ম সবার জন্য এক হওয়া উচিত। আরেকটা কথা বলছি মাথায় রাখুন, আমি কিন্তু কানপুরে কঠিন ম্যাচে রান করেছিলাম। যখনই সুযোগ পেয়েছি নিজেকে প্রমাণ করে রেখেছি। বাদ পড়ার মতো কিছু করেছি বলে তো মনে পড়ছে না।

প্রশ্ন- আইপিএলে নিলামে এক কোটি টাকা আপনার বেস প্রাইস। মেগা নিলামের আগে ভারতীয় দল থেকে আপনাকে বাদ দেওয়া হবে এই সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হওয়ার পর দল পাওয়া কঠিন হয়ে গেল? 

ঋদ্ধিমান- আমি কি পারি আর না পারি এটা সবাই জানেন। আশা করি ১৩ বছর ধরে আইপিএলে নিজেকে প্রমাণ করেছি। তাই কারোর ইচ্ছে হলে আমাকে অবশ্যই দলে নেবেন। আর যদি না নেয় তাহলে তখন দেখবো। তবে চিন্তা নেই ক্রিকেট খেলব।

প্রশ্ন- আপনি কিন্তু প্রথমে কিছু বলবো না বলেও অনেক কিছুর ইঙ্গিত দিলেন। যেমন, ভারতীয় দলে সবার জন্য সমান নীতি নয়। কিংবা ছাঁটাইয়ের ইঙ্গিত আগেই পেয়েছিলেন। এইগুলো লিখব তো?

ঋদ্ধিমান- অবশ্যই লিখবেন। আমি তো আপনার প্রশ্নের উত্তরে আমার মতামতটা জানালাম। আর আমি দলের আভ্যন্তরীণ কোন খবর আপনাকে বলিনি। আমি প্রটোকল মেনে আগেও চলেছে এখনও চলছি। যদি কিছু বলতে হয় শ্রীলঙ্কা দল নির্বাচনের পর বলব।

প্রশ্ন- একটা শেষ প্রশ্ন করি? আপনার মনে হয় না, আপনি এত চুপচাপ, শান্ত, নিজের খেলা নিয়েই থাকেন। মুখ ফুটে কিছু বলেন না। কিছু চান না। কাউকে ধরাধরি কিংবা অনুরোধ করে কোনও ফোন করেন না। আপনার PR টা খারাপ বলেই এইভাবে ভারতীয় দল থেকে বাদ পড়তে হচ্ছে?

ঋদ্ধিমান- একগাল হেসে... আপনি কি নিশ্চিত আমি বাদ পরব? আমি কিন্তু জানি না। তবে এতদিনে যখন নিজেকে পাল্টাতে পারেনি আর এখন পাল্টানোর চেষ্টাও করব না। সবাই তো আর সমান হয় না। আমি আমার মতই থাকলাম।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Wriddhiman Saha

পরবর্তী খবর