রোহিত দলে ফিরলেও গিলকে খেলানো উচিত: গম্ভীর

রোহিত দলে ফিরলেও গিলকে খেলানো উচিত: গম্ভীর

photo source/afp

অতীতে ধোনির অধীনে বিরাট, রোহিত প্রচুর সুযোগ পেয়ে দাঁড়িয়েছে। সেটা শুভমনের ক্ষেত্রেও যেন পালন করা হয়।

  • Share this:

    #মেলবোর্ন: কলকাতা নাইট রাইডার্সে যদি কোনও ব্যাটসম্যান সবচেয়ে ধারাবাহিক ব্যাটিং করে থাকেন, তাঁর নাম শুভমন গিল। সুনীল গাভাসকর থেকে সচিন তেন্ডুলকর, এই ছেলেটির প্রশংসা শোনা গিয়েছিল কিংবদন্তি ব্যাটসম্যানদের গলায়। সেই গিল এবার ভারতের হয় ওপেন করবেন অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। টেস্ট অভিষেকের দোরগোড়ায় তিনি৷

    পঞ্জাব ব্যাটসম্যানের প্রশংসা শোনা গেল গৌতম গম্ভীরের গলায়। দেশের প্রাক্তন বিশ্বকাপজয়ী ওপেনার বলছেন, "গিলকে যখন দলে নেওয়ার কথা ভেবেছে টিম ম্যানেজমেন্ট, তখন যেন ওকে একটা টেস্ট খেলিয়ে বাদ দিয়ে দেওয়া না হয়। গিল টেকনিক্যালি খুব ভাল ব্যাটসম্যান। ওপেনার হিসেবে কতটা সফল হবে সেটা সময় বলবে! কিন্তু ওকে যেন একটা টেস্টের কথা ভেবে না খেলানো হয়।'

    ভারতের প্রথম টেস্টে লজ্জার আত্মসমর্পণ মাথা নীচু করে দিয়েছে ক্রিকেটপ্রেমীদের। গম্ভীর মনে করেন দলের ঘুরে দাঁড়ানো অসম্ভব নয়। অতীতে বহুবার কামব্যাক করেছে টিম ইন্ডিয়া । গম্ভীরের যুক্তি, "মেলবোর্নে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ভারত উড়ে যাবে, এটা আমি বিশ্বাস করি না। গিল যদি ২০-৩০ রান করে, তারপর রোহিত শর্মা ফিরে এলে ওকে যদি বাদ পড়তে হয়, তাহলে সেটা সঠিক বিচার হবে না। অতীতে ধোনির অধীনে বিরাট, রোহিত প্রচুর সুযোগ পেয়ে দাঁড়িয়েছে। সেটা গিলের ক্ষেত্রেও যেন মেনে চলা হয়। গিল একবার দাঁড়িয়ে গেলে ভারতের ব্যাটিংয়ের মুশকিল আসান হয়ে ওঠার ক্ষমতা  রয়েছে ছেলেটার৷"

    উল্লেখ্য গিল তিনদিনের গোলাপি বলের প্র্যাকটিস ম্যাচে যথেষ্ট ভালো ব্যাট করেছিলেন। ৪৩ এবং ৬৫ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। মাথা ঠান্ডা, লম্বা ইনিংস খেলতে পারেন। তাছাড়া ঘরোয়া ক্রিকেটে বিনোদ কাম্বলির পর তিনি হতে চলেছেন প্রথম ব্যাটসম্যান যাঁর ব্যাটিং গড় প্রায় ৭০। দেশের হয়ে টেস্ট অভিষেকের আগে এই পর্যায়ের ব্যাটিং গড় আর কারও নেই।

    বছরখানেক আগে জাতীয় দলের হয়ে অবশ্য নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে একদিনের ম্যাচ খেলেছেন তিনি। গম্ভীর ভুল বলেননি। অ্যাডিলেড টেস্ট প্রমাণ করে দিয়েছে বিদেশে গতি আর বাউন্সের সামনে ভারতীয় ব্যাটিং আজও অসহায়। গিল দলে আসায় ভারতীয় ব্যাটিংয়ের শ্রী ফেরে কিনা সেটাই দেখার!

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    লেটেস্ট খবর