খেলা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনে মায়ের সঙ্গে টানা ক্রিকেট প্র্যাকটিস, ইডেনে প্রথম হ্যাটট্রিক করে মায়ের কাছে কৃতজ্ঞ তুফানগঞ্জের অনন্ত

লকডাউনে মায়ের সঙ্গে টানা ক্রিকেট প্র্যাকটিস, ইডেনে প্রথম হ্যাটট্রিক করে মায়ের কাছে কৃতজ্ঞ তুফানগঞ্জের অনন্ত

মাত্র ৩.৩ ওভার বল করে ১৭ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন অনন্ত। ম্যাচে মোহনবাগানের বিরুদ্ধে ২৩ রানে জয় পায় টাউন ক্লাব।

  • Share this:

#কলকাতা: দুরন্ত অনন্ত। মরশুমের প্রথম হ্যাটট্রিক। তুফানগঞ্জের অনন্তর হাতেই বেসামাল বাগান। বেঙ্গল টি-টোয়েন্টি চ্যালেঞ্জ টুর্নামেন্টে মঙ্গলবার প্রথম হ্যাটট্রিক করার নজির গড়লেন টাউনের ডানহাতি এই জোরে বোলার। মোহনবাগানের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক-সহ ৫ উইকেট নিলেন অনন্ত। হ্যাটট্রিকের তিনটি উইকেট তালিকায় রয়েছে মোহনবাগানের দেবব্রত দাস, আকাশদীপ এবং প্রিন্স যাদব। মাত্র ৩.৩ ওভার বল করে ১৭ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন অনন্ত। ম্যাচে মোহনবাগানের বিরুদ্ধে ২৩ রানে জয় পায় টাউন ক্লাব।

জেলা স্তরে আগে হ্যাটট্রিক করলেও এত বড় মঞ্চে প্রথম হ্যাটট্রিক করে উচ্ছ্বসিত রেলওয়েজের এই ক্রিকেটার। গত মরশুমে চাকরির জন্য বাংলা ছেড়ে চলে যেতে হয় অনন্তকে। প্রচন্ড অভাবের সংসার থেকে উঠে আসা অনন্তর বিকল্প কোনও উপায় ছিল না। মন খারাপ থাকলেও শুধু মাকে ভালো রাখার জন্য আর নিজের ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যাওয়ার জন্য রেলের চাকরিতে যোগদান করেন অনন্ত। প্রাক্তন রঞ্জি ক্রিকেটার শিব শংকর পালের হাত ধরেই অনন্তর উত্থান। নিজের ক্রিকেট কেরিয়ারে প্রথম হ্যাটট্রিক করে উচ্ছ্বসিত রেলওয়েজের এই ক্রিকেটার। গত মরশুমে চাকরির জন্য বাংলা ছেড়ে চলে যেতে হয় অনন্তকে।

প্রচন্ড অভাবের সংসার থেকে উঠে আসা অনন্তর বিকল্প কোনও উপায় ছিল না। মন খারাপ থাকলেও শুধু মাকে ভালো রাখার জন্য রেলের চাকরি তে যোগদান করেন অনন্ত। অনূর্ধ্ব-২৩ ভারতীয় দলের জার্সি গায়ে চাপানো হয়ে গেছে অনন্ত সাহার। ভারতীয় জার্সিতে সিনিয়র জলে নামার স্বপ্ন দেখেন এই তরুণ ক্রিকেটার। লকডাউনে দীর্ঘদিন ক্রিকেট বন্ধ থাকার পরেও এরকম পারফরম্যান্সের রহস্য কী জানতে চাইলে অনন্তর ছোট্ট উত্তর, "লকডাউনে হাজার কষ্ট হলেও ট্রেনিং বন্ধ করিনি। প্রয়োজনে মায়ের সঙ্গে ক্রিকেট খেলেছি। তাই আজ এই সাফল্য মাকে উৎসর্গ করলাম।"

প্রায় নয় মাস আগে করোনার ধাক্কায় যখন সব বন্ধ হয়ে যায় খেলাধুলো। তখন নিজেকে ফিট রাখতে ২৬ হাজার টাকা গাড়ি ভাড়া করে তুফানগঞ্জে ফিরে গিয়েছিলেন অনন্ত। কলকাতায় থাকলে প্র্যাকটিস করা অসম্ভব ছিল অনন্তর জন্য। তাই গ্রামের বাড়িতে ফিরে গিয়ে খোলা মাঠে অনুশীলন চালিয়ে গেছেন ব্রেট লির ভক্ত।

২০১৮-১৯ মরশুমে সিকে নাইডু ট্রফিতে ১০ ম্যাচে ৫২ উইকেট নিয়ে সবার নজরে উঠে আসেন অনন্ত। সিএবিতে অনূর্ধ্ব-২৩ বিভাগে বর্ষসেরা বোলার হন। এরপর গত বছর অগাস্টে ভারতীয় অনূর্ধ্ব-২৩ ক্রিকেট দলে সুযোগ পান কোচবিহারের এই ক্রিকেটার। অত্যন্ত দারিদ্র্যের সঙ্গে লড়াই করে ক্রিকেটার হয়েছেন অনন্ত। একসময় জুতো কেনার পয়সা ছিল না। কলকাতায় মাথাগোঁজার জায়গা ছিল না। তবে দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই করেই আজ এই সাফল্য অনন্তর। গত মে মাসে অনন্তের মায়ের সঙ্গে ক্রিকেট খেলার ভিডিওই সোশ্যাল মিডিয়ায় এখনও ভাইরাল। ভিডিও দেখা যায় অনন্ত বল করছেন। ব্যাট হাতে অনন্ত'র বোলিংয়ের সামনে সাবলীল ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে রয়েছেন মা জ্যোৎস্নাদেবী। একবার মাকে ক্যাচ আউট করলেও অনন্ত কোনও উচ্ছ্বাস দেখাননি। তবে এদিন উচ্ছাস করলেন অনন্ত। ম্যাচের বলটি  উপহার হিসেবে নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি জানিয়ে গেলেন সুযোগ পেলে বাংলায় ফিরতে তৈরি তিনি।

ঈরণ রায় বর্মন

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 2, 2020, 2:32 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर