দর্শকদের সামনে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ খেলতে হবে বিরাটদের

ইংল্যান্ডে ভারতের খেলা দেখতে মাঠে থাকবেন দর্শকরা

মাঠে ৪ হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে হবে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল। ভারত বনাম নিউজিল্যান্ডের এই ফাইনালে দর্শকের উপস্থিতির কথা জানালেন হ্যাম্পশায়ার কাউন্টি ক্লাবের প্রধান রড ব্র্যান্সগ্রোভ

  • Share this:

    #সাউদাম্পটন: টেস্ট ক্রিকেটে বিশ্বকাপ হয় না। কিন্তু যদি হত, তাহলে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ সেই বিশ্বকাপের সমতুল্য টুর্নামেন্ট হিসেবেই মান্যতা পেত। ভারতীয় দল শেষ দুটি টেস্ট সিরিজে দুর্দান্ত ক্রিকেট উপহার দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে অধিনায়ক বিরাট কোহলি সহ একাধিক সিনিয়র ক্রিকেটারদের ছাড়াই সিরিজ জিতে ফিরেছিল ভারত। তারপর ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজ জয় আত্মবিশ্বাস দ্বিগুণ করে দিয়েছে টিম ইন্ডিয়ার। পরবর্তী লক্ষ্য বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। প্রত্যেকে নিজেদের উজাড় করে দিতে তৈরি।

    মাঠে ৪ হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে হবে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল। ভারত বনাম নিউজিল্যান্ডের এই ফাইনালে দর্শকের উপস্থিতির কথা জানালেন হ্যাম্পশায়ার কাউন্টি ক্লাবের প্রধান রড ব্র্যান্সগ্রোভ। করোনার সংক্রমণ অনেকটাই কমেছে ইংল্যান্ডে। ব্র্যান্সগ্রোভ বলেন, “৪ হাজার দর্শক মাঠে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হবে। তবে আইসিসি ৫০ শতাংশ টিকিট নেবে তাঁদের অতিথিদের জন্য। বাকি ২ হাজার জায়গার জন্য ইতিমধ্যেই দ্বিগুণ আবেদনপত্র জমা পড়েছে। সকলের উৎসাহ রয়েছে এই ম্যাচ ঘিরে।”

    কাউন্টি ক্রিকেটেও মাঠে দর্শক থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সাদাম্পটনের মাঠে লেস্টারশায়ার এবং হ্যাম্পশায়ারের ম্যাচেই দেড় হাজার দর্শকের সামনে খেলা হয়েছে। ব্র্যান্সগ্রোভ বলেন, “২০১৯ সালের পর প্রথমবার মাঠে দর্শক থাকবে। বুধবার থেকে শুরু হওয়া ম্যাচে মাঠে দর্শক থাকছে। বৃহস্পতিবার থেকে কাউন্টির অন্য ম্যাচেও দর্শক থাকবে।”

    ভারতীয় দল এই মুহূর্তে মুম্বইয়ে নিভৃতবাসে রয়েছে। ২ জুন তাদের ইংল্যান্ড যাওয়ার কথা। সেখানে পৌঁছে ১০ দিনের জন্য আবার নিভৃতবাসে থাকতে হবে বিরাট কোহলিদের। ব্র্যান্সগ্রোভ বলেন, “ভারতীয় দলের অপেক্ষায় রয়েছি। ভারতে নিভৃতবাস পর্ব শেষ করে এখানে চলে আসবে ওঁরা। আমরা অতিথি আপ্যায়নের জন্য তৈরি।” নিউজিল্যান্ড টেস্ট ক্রিকেটে যথেষ্ট ভারসাম্য যুক্ত দল। ইংল্যান্ডের মাটিতে ভারতের আগেই পৌঁছে গিয়েছে তাঁরা। তাই ভারতের পক্ষে লড়াইটা যে সহজ হবে না সেটা নিশ্চিত করেই বলা যায়।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: