• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • SUNIL GAVASKAR POINTS OUT THE DIFFERENCE BETWEEN CAREFREE AND CARELESSNESS IN RISHABH PANT RRC

WTC Final: পন্থকে ভবিষ্যতের জন্য সাবধান করে দিলেন গাভাসকার

উদাসীনতা ছাড়তে হবে পন্থকে বলছেন সানি

কেউ ভয়ডরহীন হতেই পারে। কিন্তু ভয়ডরহীন আর উদাসীনতাকে গুলিয়ে ফেললে হবে না। এ দুইয়ের মধ্যে যে সূক্ষ্ম লাইন, সেটা অতিক্রম করা যাবে না বলেন সানি

  • Share this:

    #সাউদাম্পটন: টেস্ট ক্রিকেট খেলার জন্য বিশেষ মানসিকতা প্রয়োজন। টি টোয়েন্টি ক্রিকেটের যুগে ক্রিকেটারদের দ্রুত রান তোলার মানসিকতা যদি টেস্ট ক্রিকেটে বদলানো না যায়, তার ফল কী হতে পারে আদর্শ উদাহরণ বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। ঋষভ পন্থ আগ্রাসী ব্যাটসম্যান। সুনামটা তাঁর আছে। এ বছরের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ব্রিসবেন টেস্টে তাঁর ভয়ডরহীন ব্যাটিংই ভারতকে এনে দিয়েছিল ঐতিহাসিক এক জয়। কিন্তু তাঁর ‘অতি আগ্রাসন’ অনেক সময় দলকে বিপদে ফেলে দেয়।

    সাউদাম্পটনে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে পন্থ আগ্রাসী হয়ে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ছক্কা মারতে গিয়ে ব্যক্তিগত ৪১ রানে আউট হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। অবশ্য ভাগ্যের ছোঁয়া পেয়েছিলেন। সাউদি শুরুতেই স্লিপে তাঁর ক্যাচ ফেলে দিয়েছিলেন। কিন্তু সেই সুযোগ তিনি কাজে লাগাতে পারলেন কোথায় ? তাঁর গোটা ইনিংসই ছিল এগিয়ে গিয়ে শট মারতে চাওয়া, মিস হিটে পূর্ণ। প্রতিভাবান ঋষবের এমন ব্যাটিংয়ে বেশ খানিকটা উদ্বেগই প্রকাশ করেছেন সুনীল গাভাসকার।

    তিনি পন্থকে ‘ভয়ডরহীন আর উদাসীনতা’র মধ্যে যে সূক্ষ্ম পার্থক্য আছে, সেটিতে মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন, ‘কেউ ভয়ডরহীন হতেই পারে। কিন্তু ভয়ডরহীন আর উদাসীনতাকে গুলিয়ে ফেললে হবে না। এ দুইয়ের মধ্যে যে সূক্ষ্ম লাইন, সেটা অতিক্রম করা যাবে না। ভারতীয় উইকেট রক্ষকের ব্যাটিং দেখে মনে হয়েছে, সে এ লাইনটা দেখতে পায়নি। অতীতেও সে ৯০ রানে দাঁড়িয়ে বাজে শট খেলে শতক হাতছাড়া করেছে। শট নির্বাচন একটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। অথচ, দারুণ একজন ক্রিকেটার হয়ে ওঠার অনুষঙ্গগুলো কিন্তু ওঁর মধ্যে আছে।’

    সাউদাম্পটনের হার বদলে দিয়েছে গোটা চিত্র, ভারতীয় দলের অন্দরের চিত্রটা আর কি! এত দিন ধরে টেস্ট ক্রিকেটে দুর্দান্ত পারফরম করা ভারতীয় দলের ব্যাটিংয়ে যেন আত্মবিশ্বাসের অভাবটাই টের পাওয়া গেছে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে। অধিনায়ক কোহলি তো ইঙ্গিতই দিয়ে দিয়েছেন দলে পরিবর্তনের। তিনি জানিয়েছেন, তিনি ভবিষ্যতে এমন ব্যাটসম্যানদের প্রাধান্য দেবেন, যাঁর টেস্ট খেলার ‘সঠিক মানসিকতা’ আছে।

    সানির পরামর্শ পন্থ ঠিকমতো শুনছেন তো! কোহলির কথায় তো মনে হচ্ছে ‘উদাসীন’ ক্রিকেটারদের কপালে ভবিষ্যতে দুঃখই আছে। কিন্তু পাশাপাশি এটাও ঠিক বিরাটের নিজের ব্যাটে রান নেই। একজন অধিনায়ক নিজের পারফরম্যান্স দিয়ে দলকে লিড করবেন। যেমনটা করেছেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক উইলিয়ামসন। তাই ভারত অধিনায়কের নিজের ব্যাটিং নিয়েও প্রশ্ন তোলা যায়।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: