corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা মুক্ত সৌরভের দাদা স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায়! করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এল তাঁর !

করোনা মুক্ত সৌরভের দাদা স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায়!  করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এল তাঁর !

স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায় করোনা মুক্ত হওয়ায় হোম কোয়ারেন্টাইন শেষ হল সৌরভের।

  • Share this:

#কলকাতা: স্বস্তির খবর বেহালার বীরেন রায় রোডের গঙ্গোপাধ্যায় পরিবারে। করোনা মুক্ত স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার স্নেহাশীষ গঙ্গোপাধ্যায়ের দ্বিতীয় কোভিড পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে এই খবর জানা গেছে। শুক্রবারই হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হতে পারে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দাদাকে। গত ১৫ জুলাই করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে সিএবি সচিবের। শরীরে মৃদু উপসর্গ থাকায় ডাক্তারের পরামর্শ হাসপাতালে ভর্তি হন স্নেহাশিস। ১৬ দিনের মাথায় করোনাকে জয় করলেন প্রাক্তন এই ক্রিকেটার। ডাক্তারের পরামর্শ শুক্রবার বাড়ি ফিরে কয়েকদিন বিশ্রামে থাকতে হবে সৌরভের দাদাকে। স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায় করোনা মুক্ত হওয়ায় হোম কোয়ারেন্টাইন শেষ হয়ে গেলো সৌরভের।

ইতিমধ্যেই সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, ডোনা ও সানা সহ পরিবারের সবারই করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। প্রত্যেক সদস্যের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। সপ্তাহ দুয়েক আগে জ্বর হওয়ার করোনা পরীক্ষা করিয়েছিলেন স্নেহাশিস। দাদার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ হওয়ার খবর বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় তরফ থেকে জানানো হয় নিউজ18 বাংলাকে। সৌরভের সঙ্গে বেহালার বাড়িতেই থাকেন স্নেহাশিস। সেই কারণে গোটা গঙ্গোপাধ্যায় পরিবার হোম কোয়ারেন্টাইন চলে যায়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সৌরভের বাড়ি দুদিন ধরে স্যানিটাইজ করা হয়। বাড়ি লাগোয়া সৌরভ নিজের অফিসও দিন দশেক জন্য বন্ধ করেন। অবশেষে স্নেহাশিসের করোনা মুক্তির খবর খুশির হাওয়া গঙ্গোপাধ্যায় পরিবারে। মাসখানেক আগে স্নেহাশিসের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছিল। তবে সেই সময় নিজেই বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছিলেন খবরটি মিথ্যে। তবে ১৫ জুলাই করোনা রিপোর্ট পজিটিভ হওয়ার পর স্নেহাশিস সংবাদমাধ্যমকে খবরটি জানান। চিকিৎসা চলাকালীন হাসপাতাল থেকে ভিডিও কলের মাধ্যমে সিএবির মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করেছিলেন বর্তমান সচিব স্নেহাশিস। সৌরভের পাশাপাশি সিএবি প্রেসিডেন্ট অভিষেক ডালমিয়ার হোম কোয়ারেন্টাইন শেষ হচ্ছে।

ERON ROY BURMAN 

Published by: Piya Banerjee
First published: July 31, 2020, 1:00 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर