Home /News /sports /
Shoaib Akhtar, Bungee jumping : নিউজিল্যান্ডে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন শোয়েব! শুনলে গায়ে কাঁটা দেবে

Shoaib Akhtar, Bungee jumping : নিউজিল্যান্ডে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন শোয়েব! শুনলে গায়ে কাঁটা দেবে

নিউজিল্যান্ডে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন শোয়েব!

নিউজিল্যান্ডে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন শোয়েব!

Shoaib Akhtar shares bungee jumping incident in New Zealand. নিউজিল্যান্ডে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন শোয়েব! কেন জানেন?

  • Share this:
    #করাচি: তিনি অবাধ্য এবং ডানপিটে। নিয়মের বেড়াজালে তাকে আটকে রাখা কঠিন। তার গতিময় বলের থেকেও রঙিন ব্যক্তিগত জীবন। বরাবরের বর্ণময় চরিত্র পাকিস্তানি স্পিডস্টার শোয়েব আখতার। রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস ২২ গজ কিংবা তার বাইরে বিভিন্ন সময়ে সাহসী সিদ্ধান্ত নিতে সিদ্ধহস্ত। তাবড় তাবড় ব্যাটারদের নাভিঃশ্বাস উঠিয়ে দেওয়া এই স্পিডস্টার শোয়েব আখতার এবার ফাঁস করলেন তার ক্রিকেট কেরিয়ারের এক অজানা কাহিনি। আরও পড়ুন - Roy Krishna : আসরে নামল ইস্টবেঙ্গল ! রয় কৃষ্ণকে বিরাট আর্থিক প্রস্তাব লাল হলুদের নিজের প্লেয়িং কেরিয়ারের এক না জানা কাহিনি শোনালেন শোয়েব। ঘটনাটি ২০০৪ সালের পাকিস্তানের কিউয়ি সফরের কথা। সেবার চোট পাওয়ার কারণে টিম ম্যানেজমেন্টের তরফে তাকে সম্পূর্ণ বিশ্রাম নিতে বলা হয়েছিল। আর সেই তিনিই নাকি হেলিকপ্টার বুক করে চলে গিয়েছিলেন বাঞ্জি জাম্পিং করতে! ঘটনাটি ২০০৪ সালের। সেবার নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়েছিল পাকিস্তান দল। সেই সফরে কুঁচকির চোটে ভুগছিলেন আখতার। টিম ম্যানেজমেন্ট তাকে সম্পূর্ণ বিশ্রাম নিতে বলেছিল। কারণ যাতে করে পরের ম্যাচে তাকে খেলাতে সমস্যা না হয়। আর বিশ্রাম না নিয়ে নাকি আখতার সোজা হেলিকপ্টার বুক করে চলে গিয়েছিলেন বাঞ্জি জাম্পিং করতে। এমনটাই খোলসা করেছেন আখতার স্বয়ং। স্পোর্টসক্রীড়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আখতার জানান আমার মনে আছে ২০০৪ সালে নিউজিল্যান্ড সফরে ম্যানেজমেন্ট আমাকে বিশ্রাম নিতে বলেছিল। কারণ আমার চোট ছিল। স্পষ্টভাবে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল যাতে এমন কিছু না করি যা আমাকে সফরের পরের ম্যাচেও খেলতে না দেয়। সবাই যখন অফিসিয়াল ডিনারে বেরিয়ে যায় তখন আমি হেলিকপ্টার বুক করি। বাঞ্জি জাম্পিং করতে বেরিয়ে পড়ি। আমি বলের আঘাতে কুঁচকিতে যে চোট পেয়েছি তা একেবারেই অগ্রাহ্য করি। প্রত্যাশা মতোই অনুশীলনের পরে ফের আমি চোট অনুভব করি। কুইন্সল্যান্ডে আমি একবার নিজেই রাফটিংয়ে গিয়েছিলাম। ব্যাপারটা ঝুঁকিপূর্ণ ছিল তবে আমি ভালোভাবেই সম্পন্ন করতে পেরেছিলাম। ম্যানেজমেন্ট যখন আমার কাজকর্ম সম্বন্ধে জানতে পারে তখন আমাকে বড়সড় জরিমানা করা হয়েছিল। তবে এই নিয়ে অনুশোচনা নেই শোয়েবের। তিনি মনে করেন মন যা চেয়েছিল সেটাই করেছেন। এতে কোন ভুল নেই। আগামীদিনের ক্রিকেটারদের অবশ্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এসব করতে বারণ করছেন রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস'।
    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    Tags: Shoaib Akhtar

    পরবর্তী খবর