• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • SC East Bengal vs Hyderabad FC: এগিয়ে গিয়েও জয় পেল না ইস্টবেঙ্গল, হায়দারাবাদের বিরুদ্ধে ড্র করে সবার নীচেই লাল হলুদ

SC East Bengal vs Hyderabad FC: এগিয়ে গিয়েও জয় পেল না ইস্টবেঙ্গল, হায়দারাবাদের বিরুদ্ধে ড্র করে সবার নীচেই লাল হলুদ

দুই দলের দুই গোলদাতা ওগবেচে এবং দেরভিসেভিচ

দুই দলের দুই গোলদাতা ওগবেচে এবং দেরভিসেভিচ

SC East Bengal draw against Hyderabad FC in ISL. নিজামের শহরের বিরুদ্ধে এগিয়ে গিয়েও ড্র ইস্টবেঙ্গলের, হায়দারাবাদের বিরুদ্ধে সুযোগ হারিয়ে সবার শেষে ইস্টবেঙ্গল

  • Share this:

    ইস্টবেঙ্গল -১ হায়দারাবাদ -১

    #গোয়া: বৃহস্পতিবার গোয়ার বামবোলিমের জেনারেল অ্যাথলেটিক স্টেডিয়ামে ইস্টবেঙ্গল (SC East Bengal vs Hyderabad FC) নিজেদের প্রথম জয় তুলে নিতে পারে কিনা দেখার ছিল সেটাই। এই ম্যাচের আগে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছিল ম্যানেজার মানলো ডিয়াজ নাকি দায়িত্ব ছেড়ে দিতে পারেন আজকের পর। তাই ফুটবলাররা কতটা মরিয়া হয় সেটাই দেখার ছিল। মিনিট কুড়ি খেলার বয়স যখন একটা ফ্রিকিক পেল ইস্টবেঙ্গল।

    আরও পড়ুন - Sporting Souls That Departed in 2021: খেলার দুনিয়ায় শূন্যতা, ২০২১-এ ছেড়ে চলে গেলেন যাঁরা

    বক্সের বাইরে থেকে স্লোভেনিয়ার আমির দেরভিসিভিচ জোরালো শট নেন। হায়দারাবাদ গোলরক্ষক কটিমানি সঠিক সময় হাত বাড়াতে পারেননি। বল জড়িয়ে গেল জালে। লিড নিল ইস্টবেঙ্গল। মনে হয়েছিল আজ কোচকে বাঁচানোর জন্য মরিয়া হবে লাল হলুদ। কিন্তু গোল হজম করে ফেলল মিনিট পনেরো পরেই। অনিকেত যাদব বাঁদিক থেকে ক্রস ভাসিয়ে দিলেন বক্সে। নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার ওগবেচে হেডে গোল করলেন।

    ইস্টবেঙ্গলের দুই ডিফেন্ডার রাজু এবং হীরা মণ্ডল বলের ফ্লাইট বুঝতে পারেননি। তবে প্রথমার্ধেই আবার এগিয়ে যেতে পারত ইস্টবেঙ্গল। রফিকের শট পোস্টে লেগে না ফিরলে এবং ড্যানিয়েল চিমা সামনে শুধু গোলরক্ষককে পেয়ে চোখে দেখা যায়না, এমন মিস না করলে ব্যবধান বাড়াতে পারত লাল হলুদ। আগের ম্যাচে লাল কার্ড দেখায় এদিন ইস্টবেঙ্গল দলে ছিল না তাদের সেরা ফুটবলার অ্যান্টোনিও পেরোসেভিচ।

    আরও পড়ুন - Hardik Pandya: হার্দিক পান্ডিয়া একা নন, এই ক্রিকেটাররাও বিয়ের আগেই বাবা হয়েছেন

    কিন্তু ক্রোয়েশিয়ান তারকা না থাকলেও আজ কিন্তু চেষ্টা করল লাল হলুদ। বিপক্ষ দলে এডু গার্সিয়া, ভিক্টর, ওগবেচে, কিয়ানেসের মত বিদেশিরা থাকলেও লড়াই করার চেষ্টা করল কলকাতার ক্লাব। ৬৫ মিনিটে চিমা এবং অমরজিৎকে তুলে নিয়ে বলবন্ত এবং হাওকিপকে নিয়ে আসলেন স্প্যানিশ ম্যানেজার। আরো কিছু পরে দেরভিসেভিচকে তুলে নিয়ে নামানো হল আঙ্গুকে।

    হায়দারাবাদ দলে এদিন ছিল না তাদের নিয়মিত রাইট ব্যাক আশিষ রাই। ওই জায়গায় খেলানো হচ্ছিল নিখিল পূজারীকে। হায়দারাবাদ লেফট ব্যাক আকাশ মিশ্রর তীব্র গতির দৌড়ে বারবার সমস্যায় পড়েছিলেন ইস্টবেঙ্গল ডিফেন্ডাররা। ইস্টবেঙ্গল এদিন মাঝমাঠে লোক বাড়িয়ে ফেলছিল দ্রুত। তাই অন্যদিনের তুলনায় হায়দারাবাদ নিজের স্বাভাবিক আক্রমনাত্মক ছন্দ খুঁজে পায়নি।

    শেষ ১০ মিনিট অবশ্য টানা আক্রমণ চালিয়েছে হায়দারাবাদ। কিন্তু ইস্টবেঙ্গল ডিফেন্স গোল হজম করেনি, মরিয়া লড়াই চালিয়েছে। সাত মিনিট অতিরিক্ত সময় দেওয়া হলেও আর গোল করতে পারেনি কোন দল। সারা মাঠ জুড়ে পরিশ্রম করলেন মহম্মদ রফিক। আক্রমণ, মিডফিল্ড এবং ডিফেন্স সব জায়গায় ছিলেন লাল হলুদ ফুটবলারটি।

    ম্যাচ শেষ হয়ে গেল ১-১ গোলে। ম্যাচের সেরা নির্বাচিত হলেন ইস্টবেঙ্গলের হানামতে। এই ড্রয়ের ফলে কিছুই পরিবর্তন হল না। আট ম্যাচে চার পয়েন্ট নিয়ে ইস্টবেঙ্গল থেকে গেল সবার শেষে। হায়দারাবাদ রইল দ্বিতীয় স্থানে।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: