শোয়েবের বলে পাঁজর ভেঙে গিয়েছে ,বুঝতে পারেননি সচিন

শোয়েবের বলে পাঁজরের আঘাত ভুলতে পারেননি সচিন

পাকিস্তানি স্পিডস্টার শোয়েব আখতারের বলে পাঁজর ভেঙে গেলেও টেরই পাননি লিটল মাস্টার! এতদিন পর জানা গেল সেই ইতিহাস। ২০০৭ সালে ভারত সফরে গিয়েছিল পাকিস্তান। গুয়াহাটিতে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে শোয়েবের বলে পাঁজরে চোট পান সচিন

  • Share this:

    #মুম্বই: দুজনের লড়াইটা শুরু হয়েছিল কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে। রাহুল দ্রাবিড়কে বোল্ড করে নিজের আবির্ভাবের বার্তা দিয়েছিলেন শোয়েব আখতার। কানায় কানায় ভর্তি ইডেন আনন্দে লাফাচ্ছে সচিন ব্যাট করতে নামছেন বলে। বল হাতে তৈরি শোয়েব। প্রথম বলেই উড়িয়ে দিলেন সচিনের মিডল স্টাম্প। ইডেনে একটা পিন পড়লেও শব্দ শোনা যাবে। তারপর থেকে সচিন বনাম শোয়েব লড়াই আলাদা মাত্রা পেয়েছে। ব্যাটিং কিংবদন্তি সচিন টেন্ডুলকার তাঁর ২৪ বছরের দীর্ঘ আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে একাধিক বার চোটের কবলে পড়েছেন। ১৯৯৯ সালের আগে পর্যন্ত সবকিছু ঠিকঠাক চললেও তারপর তিনি বারবার ইনজুরিতে পড়ছিলেন।

    গোঁড়ালির চোট ছাড়াও টেনিস এলবোর চোটে বারবার জর্জরিত হয়েছেন। তবে অদম্য মানসিক জোর দিয়ে তিনি সব বাধা অতিক্রম করে গিয়েছেন। কিন্তু একবার পাকিস্তানি স্পিডস্টার শোয়েব আখতারের বলে পাঁজর ভেঙে গেলেও টেরই পাননি লিটল মাস্টার! এতদিন পর জানা গেল সেই ইতিহাস। ২০০৭ সালে ভারত সফরে গিয়েছিল পাকিস্তান। গুয়াহাটিতে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে শোয়েবের বলে পাঁজরে চোট পান সচিন।

    সম্প্রতি সেই ঘটনা নিয়ে মাস্টার ব্লাস্টার বলেন, '২০০৭ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচের প্রথম ওভারে শোয়েবের একটা বল আমার পাঁজরে লাগে। সেই জন্য প্রায় এক-দুই মাস যন্ত্রণায় ঘুমাতে পারতাম না। তবে খেলা চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নিজেই 'রিব গার্ড' তৈরি করেছিলাম। এর মধ্যে আবার পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ শেষ করে অস্ট্রেলিয়া সফরে গিয়ে টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ খেলেছি। তবে অস্ট্রেলিয়া সফরের শেষদিকে কুঁচকির চোটে আক্রান্ত হই। তাই দেশে ফিরে সারা শরীর স্ক্যান করার সিদ্ধান্ত নিই। তখন আমার ডাক্তার আমার পাঁজর ভাঙার বিষয়ে জানায়।'

    রাওয়ালপিণ্ডি এক্সপ্রেস' খ্যাত শোয়েবের বলে পাওয়া সেই চোটের জন্য ২০০৮ সালের আইপিএলের ৭টি ম্যাচ খেলতে পারেননি সচিন। তিনি আরও বলেন, 'আমার পাঁজরের অবস্থা যে এত খারাপ হয়ে গেছে, সেটা জানতাম না। আমি তো কুঁচকির ইনজুরি নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলাম। কিন্তু ডাক্তার আমার শরীর স্ক্যান করার পর জানতে পারি যে, পাঁজরের হাড় ভেঙে গেছে। সে কারণে আইপিএলের ৭টি ম্যাচ খেলতে পারিনি।' তবে মাঠের বাইরে সচিনের অত্যন্ত কাছের বন্ধু পাকিস্তানের এই প্রাক্তন জোরে বোলার।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: