গুরুদ্বারে রাত কাটানো ছেলেটাই আজ ধোনির উত্তরসূরি, গর্বিত কোচ

ধোনি নয়, নিজের নামেই আরও বড় হবে পন্থ, বলছেন কোচ

উত্তরাখান্ড থেকে দিল্লিতে তারক সিনহার কোচিং সেন্টারে যখন আসত ছেলেটা , ম্যাচ খেলে ফিরে যেতে পারত না। দিল্লির মত শহরে থাকার জায়গা নেই। কত রাত কেটেছে গুরুদ্বারে

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: একদম ছোট থেকে ঋষভ পন্থকে চোখের সামনে ক্রিকেটার হিসেবে বেড়ে উঠতে দেখেছেন। অনেক স্মৃতি ভিড় করে আসে বাঙালি কোচের মনে। উত্তরাখান্ড থেকে দিল্লিতে তারক সিনহার কোচিং সেন্টারে যখন আসত ছেলেটা, ম্যাচ খেলে ফিরে যেতে পারত না। দিল্লির মত শহরে থাকার জায়গা নেই। কত রাত কেটেছে গুরুদ্বারে। একটা সময়ে আত্মবিশ্বাস হারিয়ে কোচকে ফোন করে কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন। অল্প বয়সে বাবাকে হারিয়েছেন। লড়াইটা সহজ ছিল না ঋষভের।

    মহেন্দ্র সিংহ ধোনি তাঁর কাছে দাদার মতো। সময় পেলেই রাঁচি ছুটে যান ঋষভ পন্থ। তবে বাইশ গজের যুদ্ধে ২৩ বছরের তরুণ ভারতের প্রাক্তন অধিনায়কের ছায়া থেকে বেরিয়ে এসেছেন। এমনটাই জানালেন পন্থের ছোটবেলার প্রশিক্ষক তারক সিনহা। কিন্তু কীভাবে এই কঠিন কাজ জলের মতো সহজ করলেন এই উইকেট রক্ষক-ব্যাটসম্যান? তারকা সিনহা উদাহরণ দিয়ে বলেন, “রোহন গাভাসকার মোটেও খারাপ ক্রিকেটার ছিল না। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক ব্যাপার হল রোহন কোনওদিন ওর প্রবাদপ্রতিম বাবা সুনীল গাভাসকারের ছত্রছায়া থেকে বেরোতে পারেনি। আন্তর্জাতিক সফরের শুরুতে পন্থকেও এই সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। সবাই ওকে ধোনির উত্তরসূরি বলে ভাবতে শুরু করে। সবাই চাইত ও যেন ধোনির মতো বিশ্ব ক্রিকেটকে শাসন করুক। কিন্তু বাস্তব জীবনে সেটা সম্ভব নয়। পন্থ অবশ্যই ধোনির উত্তরসূরি। এই বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু পন্থের নিজস্ব একটা সত্ত্বা আছে। প্রবল চাপের মুখে সেটা বুঝে নিয়েছে। তাই গত কয়েকটা সিরিজে ও সাফল্য পেল।”

    ২০১৯-২০ সাল পর্যন্ত পন্থ মাঠে নামলেই গ্যালারি থেকে চিৎকার উঠত, ‘ধোনিকে ফেরাও’। স্বভাবতই চাপের মুখে ব্যাটিং ও কিপিং করতে গিয়ে একের পর এক ভুল করে ফেলতেন দিল্লির এই ক্রিকেটার। টেস্ট তো অনেক দূরের কথা, একটা সময় সীমিত ওভারের সিরিজেও কে এল রাহুল, সঞ্জু স্যামসনকে দেখে নিচ্ছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ২০২০ সালের আইপিএল-এর সময় তাঁর ওজন বেড়ে যায়। ফলে প্রবল সমালোচিত হন পন্থ।

    এরপর গত অস্ট্রেলিয়া সফর ও ঘরের মাঠে ইংল্যান্ড সিরিজে যেন সব হিসেব বদলে দিয়েছেন। তাই তো ব্যাটিং ও কিপিংয়ে উন্নতি ঘটিয়ে এই মুহূর্তে সব ধরনের ক্রিকেটে কোহলির প্রথম পছন্দ হলেন পন্থ। ছাত্রের প্রশংসা করতে গিয়ে তারক সিং শেষে যোগ করেন, “গত কয়েকটা সিরিজে পন্থের ব্যাটিং ও কিপিং দেখলেই বোঝা যাচ্ছে যে ও খাটাখাটনি করছে। ওর বয়স কম। এটাই ওর ইতিবাচক দিক। একই সঙ্গে সিনিয়রদের পরামর্শ মাথা পেতে নিচ্ছে। ফলে ওর উন্নতি হওয়া স্বাভাবিক।”

    কোচ মনে করেন আইপিএলে দিল্লির অধিনায়কত্ব করে পন্থ নিজের আত্মবিশ্বাস অনেক বাড়িয়ে নিয়েছেন। খারাপ সময় তাঁর ছাত্রকে তাড়াতাড়ি বড় হতে শিখিয়েছে তাতে সন্দেহ নেই তারক সিনহার। খেলা থাকলে এবং পন্থ ব্যাটিং করলে মিস করেন না কোচ। স্বপ্নের উড়ানের এই তো সবে শুরু বলছেন তারক সিনহা।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: