ভারতীয় ক্রিকেটের ‘মনমোহন সিং’, রবি শাস্ত্রীকে এখন এই নামেই ডাকছে ট্যুইটার প্রজন্ম !

ভারতীয় ক্রিকেটের ‘মনমোহন সিং’, রবি শাস্ত্রীকে এখন এই নামেই ডাকছে ট্যুইটার প্রজন্ম !

মনমোহন সিং। কোহলিদের সংসারে শাস্ত্রীকে বিদ্রুপ করে এমন নামেই ডাকছে ট্যুইটার প্রজন্ম।

  • Share this:

#মুম্বই:  মনমোহন সিং। কোহলিদের সংসারে শাস্ত্রীকে বিদ্রুপ করে এমন নামেই ডাকছে ট্যুইটার প্রজন্ম। কারণ অধিকাংশেরই ধারণা, তিনি ক্যাপ্টেনের কথার উপর কথা বলার পাত্র নন ৷ বরং কোহলির স্নেহধন্যই বটে ৷ আর টিম ইন্ডিয়ার সংসারে শান্তি ফেরাতে দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং-এর মতোই একজন হেড কোচ চাইছেন কোহলি ব্রিগেড ৷ কারণ হেড স্যার নয়, বরং ক্যাপ্টেনের ‘হ্যাঁ’-তে হ্যাঁ আর ‘না’-তে না বলার লোক একমাত্র শাস্ত্রীই হতে পারেন  বলে ধারণা ক্রিকেটপ্রেমীদের ৷

তবে কোচ নাটকের লাস্ট আপডেটে শাস্ত্রী একেবারেই ঘুমন্ত নন। সূত্রের খবর, লন্ডনে ছুটি কাঁটানোর ফাঁকেই নিজের প্রেজেন্টেশন রেডি করছেন রবি। এদিকে পরিবার নিয়ে সচিনও আপাতত বিলেতে। চলতি সপ্তাহেই ইংলিশ কান্ট্রিসাইডে মুখোমুখি বসেছিলেন দুই মুর্তি। মুম্বই ক্রিকেটমহলের খবর অনুযায়ী, সেখানেই শাস্ত্রীকে আবেদন করার জন্য রাজি করিয়ে ফেলেন সচিন। মুখে কোনওদিন কিছু বলেন না। তবে ভারতীয় ক্রিকেটে কোনও ক্রিকেটীয় সিদ্ধান্তই তেণ্ডুলকরের অনিচ্ছায় হয় না। এবার শাস্ত্রীর দিকে হেলে বকলমে কোহলির হাতটাই আরও শক্ত করে দিয়েছেন সচিন। যাতে প্রভাবিতদের মধ্যে আছেন বিনোদ রাইয়ের মত দুঁদে প্রশাসকও।

এপিসোডটা যে সৌরভ-লক্ষ্মণকে খুশি করেনি, সেটাও বিলক্ষণ জানেন বান্দ্রার মারাঠি। তাই মন ভেজাতে সৌরভকেও বুঝিয়েছেন টেলিফোনে। যাতে কোনওভাবে এড়ানো যায় শাস্ত্রী বনাম সেহওয়াগ। যদি কোনওভাবে আগেই নাম তুলে নেন বীরু। গতবার শাস্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সের আগেই সৌরভ মিটিং ছেড়ে বেরিয়ে যান। যা নিয়েই তিক্ততার শুরু। এবার আবার মুম্বইতেই কোচ বাছাইয়ের মিটিং ফেলার মনস্থির করে ফেলেছেন রাজীব শুক্লারা। নাটকীয় পরিস্থিতির মাঝেই বোর্ডকে আবেদন পাঠিয়েছেন ক্রেগ ম্যাকডারমট। গ্রেগ চ্যাপেল পর্বের অভিজ্ঞতার পর সৌরভ এমনিতে অস্ট্রেলিয়ান কোচের পক্ষপাতী নন। কিন্তু লক্ষ্মণ-মুডি সখ্যতা অঙ্ক বদলে দিতেই পারে। দিনকয়েকের মধ্যেই বোর্ডকে আবেদনপত্র পাঠাবেন শাস্ত্রী। এবার নিজের প্রেজেন্টেশনে জোরাল সওয়াল করবেন পুরনো সাপোর্ট স্টাফদের ফেরানো নিয়েও।

কিন্তু গোটা নাটকে টিম ইন্ডিয়ার বাকি সিনিয়রদের ভূমিকা কী ? বাইরে ধোনি-যুবরাজ কিছু বলেননি এখনও। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে উপদেষ্টা কমিটি আলাদা আঁচ পেয়েছে। দুই সিনিয়রই ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত নিজের উইকেট বাঁচাতে ব্যস্ত। চ্যাপেল থেকে কার্স্টেন, ফ্লেচার। রাজপুত থেকে শাস্ত্রী, কুম্বলে। দল চালাতে কারও সঙ্গেই প্রকাশ্যে খটাখটি হয়নি মাহির। তবে সে ছিল অন্য সময়। যখন তাঁর মাথায় প্রবলভাবে থাকত শ্রীনি নামক ছাতা। টাইম পাল্টেছে। ধোনি-যুবি জানেন দ্রাবিড় তাঁদের ভবিষ্যত নিয়ে খুব একটা আশাবাদী নন। সেহওয়াগ কোচ হলে আবার নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে ধোনির বিশ্বকাপ স্বপ্নের। তাই তাঁদের মৌনতাও কোহলির শাস্ত্রী-প্রীতির সমর্থনে। MS থেকে VK, এই ভারতীয় দলে সচিন সবার কাছেই বড়দার মত। তাই শাস্ত্রী বনাম সেহওয়াগ লাস্ট ল্যাপ হলে, একটা নয়। একইসঙ্গে জখম হতে পারে অনেকগুলো পুরনো বন্ধুত্ব।

First published: 08:39:02 AM Jun 29, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर