বুঝুন কান্ড ! জিমির বাচ্চার মা হতে চান পাক অভিনেত্রী !

জিমি নিশামকে অদ্ভুত প্রস্তাব পাক অভিনেত্রীর

সোশ্যাল মিডিয়ায় ফ্লার্ট করার জন্যই তিনি নিশামকে তাঁর ভবিষ্যৎ বাচ্চার বাবা হওয়ার প্রস্তাব দেন। এই অনুরাগী নিতান্ত সাধারণ কেউ নন। বরং পাকিস্তানের টেলিভিশন অভিনেত্রী সেহার শিনওয়ারি

  • Share this:

    #অকল্যান্ড: ক্রিকেটারদের সঙ্গে অভিনেত্রীদের প্রেম নতুন কিছু নয়। টাইগার পাতাউদি - শর্মিলা ঠাকুর, নিনা গুপ্তার সঙ্গে ভিভিয়ান রিচার্ডস, সবার্স - অঞ্জু মহেন্দ্র, ইমরান খান - জিনাত আমান, বিরাট - অনুষ্কা। বেশ দীর্ঘ এই তালিকা। আধুনিক যুগে সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ব্যবধান আরও কমে গিয়েছে। তাই ক্রিকেটারদের সঙ্গে অনুরাগীদের সম্পর্ক আরও কাছাকাছি এসেছে। সেরকমই একটি মজার ঘটনা ঘটেছে। মাঠের লড়াইয়ে ধারাবাহিক হোন বা না-হোন, সোশ্যাল মিডিয়ায় অত্যন্ত সক্রিয় নিউজিল্যান্ডের তারকা অল-রাউন্ডার জিমি নিশাম। চাঁচাছোলা ভাষায় নিজের মতামত প্রকাশ করাই হোক অথবা সতীর্থ বা ক্রিকেটমহলের বন্ধুদের ট্রোল করাই হোক, নিশাম কখনই পিছিয়ে থাকেন না। এমনকি অনুরাগীদের টুইটের রিপ্লাই দিতেও কখনও পিছ পা হন না নিশাম।

    তবে কোনও অনুরাগীর কাছ থেকে এমন প্রস্তাব পাবেন তিনি, তা বোধহয় স্বপ্নেও ভাবেননি কিউয়ি তারকা। সোশ্যাল মিডিয়ায় এক মহিলা অনুরাগী অদ্ভূত আবদার করে বসেন নিশামের কাছে। আসলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ফ্লার্ট করার জন্যই তিনি নিশামকে তাঁর ভবিষ্যৎ বাচ্চার বাবা হওয়ার প্রস্তাব দেন। এই অনুরাগী নিতান্ত সাধারণ কেউ নন। বরং পাকিস্তানের টেলিভিশন অভিনেত্রী সেহার শিনওয়ারি। এমন আবদার করার আগে অবশ্য নিশামকে সোশ্যাল মিডিয়াতেই ‘Jimmy I love you’ লিখতেও কুণ্ঠা বোধ করেননি তিনি।

    নিশাম অবশ্য এমন আবদারে বিন্দুমাত্র বিচলিত হননি। বরং জবাবে পালটা বাউন্সার দেন তিনি। নিশামের জবাব শুনে নেটিজেনরা বিস্ময় লুকিয়ে রাখতে পারেননি। পাক অভিনেত্রী টুইটারে লেখেন যে, ‘জিমি, আপনি কি আমার ভবিষ্যৎ সন্তানের পিতা হতে চাইবেন?’ এমন টুইটের শেষে দু'টি মজার ইমোজি পোস্ট করেন সেহার। নিশাম স্পষ্ট লেখেন যে, ইমোজিগুলি অপ্রয়োজনীয় ছিল। নিশামের এমন উত্তর শুনে নেটিজেনরা জানতে চান, তাহলে কি সন্তানের পিতা হওয়ার প্রস্তাবটা যথাযথ ছিল?

    তাহলে কি নিশাম সত্যিই চান পাক অভিনেত্রীর সন্তানের পিতা হতে ? জিমির এটা সত্যিকারের ইচ্ছে না রসবোধ সেটা অবশ্য জানা যায়নি। কিন্তু ব্যাপারটা নিয়ে নেট দুনিয়ায় যে বেশ ঝড় উঠেছে তাতে সন্দেহ নেই। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটার অবশ্য বেশ আনন্দেই রয়েছেন দেশে। ভারত থেকে ফিরে গিয়েও প্রার্থনা করছেন ভারতের পরিস্থিতি উন্নত হওয়ার জন্য।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: