Corona ভেঙেছে শরীর, পরিবার থেকে দূরে ভারতে বন্দি! কান্নায় ভেঙে পড়লেন ক্রিকেটার

ভারতে বেশ কয়েকদিন বন্দি দশায় কাটাতে হয়।

ভারতে বেশ কয়েকদিন বন্দি দশায় কাটাতে হয়।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি:

    এতদিন পর করোনা সংক্রমণের হার দেশে কিছুটা কমেছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ঘুম উড়েছে মানুষের। রোজই পাল্লা দিয়ে বাড়ছিল সংক্রমণের হার। সেইসঙ্গে বাড়ছিল মৃত্যুর সংখ্যাও। তবে কয়েক সপ্তাহ বাদে দেশে সংক্রমণের হার কিছুটা কমেছে। তবে গত কয়েকটা সপ্তাহ বিভীষিকার মতো কেটেছে কিছু বিদেশি ক্রিকেটারের। একে তো করোনার জন্য আইপিএল মাঝ পথে বন্ধ হয়েছে। তার উপর বিদেশি ক্রিকেটাররা বুঝতে পারছিলেন না, কী করে বাড়ি ফিরবেন! এরই মধ্যে বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার করোনায় আক্রান্ত হন। ফলে তাঁদের ভারতেই আইসোলেশনে থাকতে হয়েছিল। আইপিএলের মাঝেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন টিম শেফার্ট (Tim Seifert)। নিউ জিল্যান্ডের এই ক্রিকেটারকে এর পর ভারতে বেশ কয়েকদিন বন্দি দশায় কাটাতে হয়। তিনি একটা সময় বুঝতেই পারছিলেন না, কী করে বাড়ি ফিরবেন!

    বেশিরভাগ বিদেশি ক্রিকেটারের বাড়ি ফেরার ব্যবস্থা করেছিল বিসিসিআই। অনেকে নিজস্ব উদ্যোগেও দেশে ফিরেছেন। কিন্তু শেফার্ট করোনা আক্রান্ত হওয়ায় ভারতে আটকে পড়েন। আইসোলেশনে থেকে তাঁর চিকিত্সা চলে। যদিও তাঁর শরীরে করোনার তেমন উপসর্গ ছিল না। তবুও টেস্টে করোনা পজিটিভ হন তিনি। গত সপ্তাহেই দেশে ফিরেছেন শেফার্ট। আর তার পরই ভারতে থাকার সেইসব দিনগুলো মনে করে আঁতকে উঠেছিলেন। এদিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হওয়ার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। এখনও তিনি ১৪ দিন বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। তবে এখন দেশেই রয়েছেন। তাই কিছুটা হলেও আশ্বস্ত তিনি। ভারতে থাকাকালীন স্টিফেন ফ্লেমিং ও ব্রেন্ডন ম্য়াকুলাম তাঁকে মানসিকভাবে শক্তি জোগাচ্ছিলেন। এদিন সেই কথা জানিয়েছেন শেফার্ট। তিনি আরও বলেন, কেকেআর ম্যানেজমেন্ট সবরকমভাবে আমার পাশে থেকেছে। কিন্তু ওই সময় চারপাশ থেকে শুধুই খারাপ খবর আসছিল। আমি আশঙ্কা করছিলাম, যে কোনও দিন যে কোওরকম খারাপ খবর হয়তো আমাকেও শুনতে হবে। মানসিকভাবে ভেঙে পড়ছিলাম আমি।

    নাইট শিবির করোনা আক্রান্ত তৃতীয় ক্রিকেটার শেফার্ট। তার আগে বরুণ চক্রবর্তী ও সন্দীপ ওয়ারিয়রও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। ৪ মে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ঋদ্ধিমান সাহা ও দিল্লি ক্যাপিটালসের অমিত মিশ্রর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসার পরই আইপিএল স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয় বিসিসিআই। এবার ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে বাকি ৩১টি ম্য়াচ করানোর পরিকল্পনা করছে। তবে এবার আর ভারতে নয়, দুবাইতে হতে পারে আইপিএলের বাকি সব ম্য়াচ।

    Published by:Suman Majumder
    First published: