পন্থকে নিয়ে রাতের ঘুম উড়েছে নিউজিল্যান্ড শিবিরের

ঋষভকে বড় সার্টিফিকেট কিউই বোলিং কোচের

পন্থ ক্রিজে জমে গেলে বিপক্ষের কাছে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবে। ও একার হাতে ম্যাচের রঙ বদলে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। সেটা অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে ক্রিকেট বিশ্ব দেখে নিয়েছে

  • Share this:

    #লন্ডন: একটা সময় যে ছেলেটা সমালোচনার ভয়ে তটস্থ হয়ে থাকত, সে এখন আর সমালোচনার ভয় পায় না। আগে যে ছেলেটা ব্যর্থ হলে কোচ তারক সিনহার কাছে ফোন করে কাঁদত, সেই ছেলেটা এখন আর ব্যর্থতার ভয় পায় না। যে ছেলেটা ভুল করে অধিনায়কের বকুনি খেত, আইপিএলে সেই ছেলেটাই এখন একটা দলের অধিনায়ক। হ্যাঁ, ঋষভ পন্থ গত এক বছরে নিজেকে অন্য উচ্চতায় তুলে নিয়ে গিয়েছেন। মারকুটে ব্যাটসম্যান এবং অত্যন্ত খারাপ উইকেটরক্ষক হিসেবে পরিচিত ছেলেটা আজ যেমন কিপিং উন্নত করেছে, তেমনই ব্যাট হাতে ম্যাচের ফয়সালা করে দিতে শিখেছে।

    কয়েক আলোকবর্ষ যেন এগিয়ে গিয়েছে উত্তরাখণ্ডের এই তরুণ। ১৮ জুন বিশ্ব টেস্ট ফাইনালে নামার আগে থেকে ঋষভ পন্থকে নিয়ে চিন্তায় রয়েছে কেন উইলিয়ামসনের নিউজিল্যান্ড। গত অস্ট্রেলিয়া সফরের পর ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করে বিপক্ষের কাছে ত্রাস হয়ে উঠেছেন ২৩ বছরের এই তরুণ। আর তাই মাঠে বল পড়ার অনেক আগে পন্থকে আটকানো নিয়ে চিন্তিত কিউইদের বোলিং প্রশিক্ষক শেন জুরগেনসেন। সেটা অকপটে স্বীকার করে নিলেন তিনি।

    জুরগেনসেন বলেন, “পন্থ ক্রিজে জমে গেলে বিপক্ষের কাছে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবে। ও একার হাতে ম্যাচের রঙ বদলে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। সেটা অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে ক্রিকেট বিশ্ব দেখে নিয়েছে। ও ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে মাঠে নামে বলেই ব্যাট হাতে সাফল্য পাচ্ছে। তাই টেস্ট ফাইনাল আরম্ভ হওয়ার আগে ওকে নিয়ে আমরা যেমন চিন্তিত, ঠিক তেমনই পন্থকে দ্রুত আউট করার পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছি। তবে সাদাম্পটনের ‘দ্য রোজ বোল’-এ বাইশ গজের যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে ভারতের বোলিং আক্রমণ নিয়েও চিন্তায় রয়েছে নিউজিল্যান্ড। জোরে বোলিংয়ে যশপ্রীত বুমরা, মহম্মদ শামি, ইশান্ত শর্মার সঙ্গে রয়েছেন উমেশ যাদব, শার্দূল ঠাকুর ও মহম্মদ সিরাজ। তেমনই স্পিনের দায়িত্বে রবিচন্দ্রন অশ্বিন, রবীন্দ্র জাডেজা ও অক্ষর পটেল বিপক্ষের মহড়া নেওয়ার জন্য একেবারে তৈরি।

    তাই কিউই বোলিং প্রশিক্ষক শেষে যোগ করলেন, “শুধু নিউজিল্যান্ড নয়, ভারতের এই বোলিং বিশ্বের যে কোনও ব্যাটিংকে সমস্যায় ফেলবে। এদের মধ্যে কয়েক জন আবার ব্যাট করতে পারে। ফলে আমাদের কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে।” তবে নিউজিল্যান্ডের হাতেও সাউদি, বোল্ট, ওয়াগনারদের মত বোলার আছে। ইংল্যান্ডের সিমিং উইকেটে এঁরা যথেষ্ট বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। এই নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরেই শেষবার বিশ্বকাপে যাত্রা শেষ হয়েছিল ভারতের। তাই মুখে না বললেও ভারতের কাছে এটা যে কিছুটা প্রতিশোধ নেওয়ার মতো ব্যাপার তাতে সন্দেহ নেই।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: