Home /News /sports /
East Bengal Club : স্পর্ধার নাম ইস্টবেঙ্গল! একশো বছরের ইতিহাস নিয়ে ছবির মুক্তি সম্ভবত আগস্ট মাসে

East Bengal Club : স্পর্ধার নাম ইস্টবেঙ্গল! একশো বছরের ইতিহাস নিয়ে ছবির মুক্তি সম্ভবত আগস্ট মাসে

এবার সিনেমার পর্দায় ইস্টবেঙ্গল

এবার সিনেমার পর্দায় ইস্টবেঙ্গল

Movie on East Bengal Football Club by director Gautam Ghosh may be released in August. স্পর্ধার নাম ইস্টবেঙ্গল! একশো বছরের ইতিহাস নিয়ে ছবির মুক্তি সম্ভবত আগস্ট মাসে

  • Share this:

    #কলকাতা: আবহমান ইস্টবেঙ্গল। শতবর্ষ প্রাচীন এই ক্লাবের ইতিহাস এবং বর্তমান দুটোই গর্বের। শেষ কয়েক বছর নানান জটিলতা এবং সমস্যা লাল-হলুদ সমর্থকদের ভালো সময় উপহার দিতে পারেনি এ কথা সত্যি। কিন্তু দীর্ঘ যাত্রাপথে ওঠা নামা তো চরম সত্যি। ইস্টবেঙ্গলের শতবর্ষ উপলক্ষে জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত পরিচালক গৌতম ঘোষ আগেই জানিয়েছিলেন ঐতিহ্যশালী এই ক্লাবের গত শতাব্দীর ইতিহাস নিয়ে একটি তথ্য চিত্র তিনি তৈরি করবেন।

    অবশেষে সেই তথ্য চিত্র আসতে চলেছে আপনার নিকটবর্তী পেক্ষাগৃহে। জানা গিয়েছে অগস্ট মাসেই আসছে লাল-হলুদের উপর তৈরি এই তথ্য চিত্র। শহর এবং বাংলার নামী একাধিক মাল্টিপ্লেক্সের পাশাপাশি এই ছবি দেখানো হবে নন্দনে। রাজ্য সরকারকে লাল-হলুদের তরফ থেকে অনুরোধ করা হবে যাতে এই ছবি করমুক্ত করা হয়।

    লাল-হলুদের উপর হতে চলা এই তথ্য চিত্র সামনে এলে বাংলার তথা ভারতীয় ফুটবলের উন্নতিতে ইস্টবেঙ্গলের অবদান সম্পর্কে অনেক বেশি করে জানবে সাধারণ মানুষ। পাশাপাশি তরুণ প্রজন্ম যাঁরা বই পড়ার থেকে সিনেমা বা ওয়েব সিরিজ দেখাকেই বেশি গুরুত্ব দেয় তাঁদের সামনে রূপোলী পর্দায় লাল-হলুদের ইতিহাস, কৌলিন্য এবং ঐতিহ্য ফুটে উঠলে শতাব্দী প্রাচীন ক্লাবের সম্পর্কে তাঁরাও অনেক ভাল ভাবে অবগত হবে, মনে করেন লাল-হলুদের এক কর্তা।

    ইস্টবেঙ্গলের এই তথ্য চিত্রের জন্য পরিচালক গৌতম ঘোষ সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বিগত ১০০ বছরে ক্লাবের সাফল্যের ইতিহাসে বিভিন্ন সময়ে অঙ্গাঙ্গিক ভাবে জড়িয়ে থাকা মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য, বড় মিয়াঁ হাবিব, সুধীর কর্মকার, তুলসীদাস বলরামের মতো কিংবদন্তিদের।

    এঁদের সঙ্গে কথা বলেই ছবির বুনোট করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, বেশ কিছু অভিনেতাকে নিয়ে এই তথ্যচিত্রে চরিত্রায়ণ করা হয়েছে। এর আগে ১৯১১ সালে মোহনবাগানের ঐতিহাসিক শিল্ড জয়কে নিয়ে চলচ্চিত্র 'এগারো' তৈরি হলেও ভারতীয় ফুটবলে যুগন্তকারী তিন প্রধানকে নিয়ে সামগ্রিক ভাবে কোনও ছবি নির্মান হয়নি।

    ফলে এই দিক থেকেই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রধানকে পিছনে ফেলে ইতিহাস তৈরি করতে চলেছে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। উল্লেখ্য এর আগে ইস্টবেঙ্গলের ছেলে নামক একটি বাংলা সিনেমা হয়েছিল। তাতে অভিনেতা ছাড়াও পিকে বন্দোপাধ্যায়, সুব্রত ভট্টাচার্যদের অভিনয় করতে দেখা গিয়েছিল। লাল হলুদ সর্মথকরা এই সিনেমার জন্য নিশ্চয়ই উৎসাহিত হয়ে থাকবেন সেটা বলা যায়।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    Tags: East Bengal Club

    পরবর্তী খবর