WTC Final: বিরাটকে আবেগ নিয়ন্ত্রণ করার পরামর্শ কপিলের

বিলেতে ভারতের সাফল্যের জন্য বিরাটকে বিশেষ টিপস কপিলের

বিরাট কোহলি অত্যন্ত আবেগ প্রবণ। এই আবেগ যেমন তাঁকে বহু কঠিন চ্যালেঞ্জ জিততে সাহায্য করেছে, তেমনই এই আবেগের দাম তাঁকে মাঠে দিতে হতে পারে। এমনটাই মত কিংবদন্তি কপিল দেবের

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: বিরাট কোহলি অত্যন্ত আবেগ প্রবণ। এই আবেগ যেমন তাঁকে বহু কঠিন চ্যালেঞ্জ জিততে সাহায্য করেছে, তেমনই এই আবেগের দাম তাঁকে মাঠে দিতে হতে পারে। এমনটাই মত কিংবদন্তি কপিল দেবের। ভারতের সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডার মনে করেন ক্রিকেটে একজন অধিনায়কের বডি ল্যাঙ্গুয়েজ দলের ওপর প্রভাব ফেলে। সেই জায়গা থেকে বিরাটের আক্রমনাত্মক শরীরী ভাষা দলের বাকিদের উদ্বুদ্ধ করবে। কিন্তু মাথায় রাখতে হবে এই শরীরী ভাষা সব সময় অতি আগ্রাসী হওয়া ঠিক নয়।

    বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে বিরাট কোহলি যেন অতিরিক্ত আগ্রাসী হয়ে না ওঠেন। সতর্ক করলেন কপিল দেব। কিংবদন্তি অলরাউন্ডারের মতে, ‘আশা করছি, ফাইনালে কোহলি সাফল্য পাবে। এমন ম্যাচে ওর মতো ক্রিকেটারকে আটকে রাখা কঠিন। তবে আমি ওকে বলব, বেশি আক্রমণাত্মক না হতে। সেশন ধরে ধরে যেন ব্যাট করে বিরাট। অপেক্ষা করে সেট হয়ে ওঠা পর্যন্ত। একটু ধৈর্য দেখাতে পারলেই ও বড় রান পাবে।’

    ইংল্যান্ডের পেস সহায়ক উইকেট ও কন্ডিশনে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত বল দেখা জরুরি বলেও জানিয়েছেন কপিল। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সাউদাম্পটনে খেলতে নামার আগে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের প্রতি তাঁর পরামর্শ, ‘সিম ও সুইং ভালো খেললে, ধৈর্য দেখালে, সাফল্য আসবে ইংল্যান্ডে।’ ঋষভ পন্থকেও ক্রিজে সময় কাটাতে বলছেন কপিল। তাঁর মতে, ‘আগের থেকে এখন অনেক পরিণত দেখাচ্ছে পন্থকে। ওর হাতে রকমারি শট রয়েছে। তবে ইংল্যান্ডে খেলা রীতিমতো চ্যালেঞ্জের। ক্রিজে অনেকটা সময় কাটাতে হবে। প্রতি বল খেলার চেষ্টা করলে চলবে না। রোহিত শর্মার ক্ষেত্রেও আমি একই কথা বলব। ওর হাতেও প্রচুর শট রয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ শট খেলার প্রবণতা মন থেকে ঝেড়ে ফেলতে পারলে রোহিতও লম্বা ইনিংস খেলতে সক্ষম।’

    ভারতের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক মনে করেন আধুনিক ক্রিকেটে সব দল একে অপরের শক্তি দুর্বলতা জানে। অতীতে ভারতীয় দলের ব্যাটিং শক্তিশালী হলেও, ভাল মানের ফাস্ট বোলার না থাকায় মার খেতে হত। এই জায়গাটায় শেষ কয়েক বছরে উন্নতি করেছে ভারতীয় দল। শামি, ইশান্ত থেকে শুরু করে এখনকার সিরাজ, শার্দুল, উমেশরা যেকোনও ব্যাটিং লাইনআপকে পরীক্ষার মুখে ফেলতে পারে।

    এটা বিরাট সুবিধা মেনে নিচ্ছেন কপিল। তাই যাঁরা বলছেন বোল্ট, সাউদি, জেমিসনদের জন্য কিছুটা এগিয়ে নিউজিল্যান্ড, তাঁদের সঙ্গে একমত নন কপিল। ইংল্যান্ডের উইকেটে ভারতীয় ফাস্ট বোলারদের সামলানো সহজ হবে না মনে করেন উইজডেনের বিচারে ভারতের সেরা ক্রিকেটার।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: