India vs England: বিধ্বংসী বাটলার, দাম পেল না বিরাটের লড়াই

India vs England: বিধ্বংসী বাটলার, দাম পেল না বিরাটের লড়াই

বাটলারকে থামানোর অস্ত্র ছিল না ভারতের

জস বাটলার যেদিন খেলবেন সেদিন বিশ্ব ক্রিকেটে তাঁর থেকে ভয়ানক ব্যাটসম্যান অন্য কেউ নেই

  • Share this:

    ভারত - ১৫৬

    ইংল্যান্ড - ১৫৮/২

    ইংল্যান্ড  জয়ী ৮ উইকেটে

    #আমেদাবাদ: জস বাটলার যেদিন খেলবেন সেদিন বিশ্ব ক্রিকেটে তাঁর থেকে ভয়ানক ব্যাটসম্যান অন্য কেউ নেই। অতীতেও দেখা গিয়েছে বাটলার জমে গেলে একাই ম্যাচের রং বদলে দিতে পারেন। মঙ্গলবার আমেদাবাদে ছিল সেরকমই একটি দিন। ইংল্যান্ডের অন্যতম খুনে ব্যাটসম্যান এদিন পার্থক্য গড়ে দিলেন ব্যাট হাতে। ভুবনেশ্বর, শার্দুল, চাহালদের বিরুদ্ধে যেভাবে ব্যাট করলেন তাতে ভারতীয় বোলারদের কিছু করার ছিল না। বিশেষ করে চাহালকে এদিন সাধারণ মানে নামিয়ে আনলেন ইংলিশ ওপেনার।

    সুইপ, রিভার্স সুইপ, কভার ড্রাইভ, মিড অনের ওপর দিয়ে ছক্কা,সবরকম শট খেললেন। তাঁকে থামানোর উপায় জানা ছিল না ভারতীয় বোলারদের। দাম পেল না বিরাট কোহলির দুর্দান্ত ইনিংস। বিধ্বংসী বাটলারে ঢাকা পড়ে গেলেন ভারত অধিনায়ক। সিরিজে লিড নিল ইংল্যান্ড। রয়, মালান সেভাবে রান না পেলেও জিততে অসুবিধা হল না ইংল্যান্ডের। মঙ্গলবার ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের তৃতীয় টি টোয়েন্টি ম্যাচে রোহিত শর্মাকে দলে ফিরিয়েছিল ভারত। সূর্যকুমার যাদবের জায়গায় এসেছিলেন তিনি। রাহুলের সঙ্গে এদিন ওপেন করেন রোহিত। কিন্তু এদিনও চূড়ান্ত ব্যর্থ রাহুল।

    মার্ক উডের গতির কাছে পরাজিত হয়ে বোল্ড হয়ে ফিরলেন। খাতা খুলতে পারলেন না। রোহিত ভাল শুরু করলেও ব্যক্তিগত ১৫ রানের মাথায় ফিরে গেলেন সেই উডের বলে আর্চারের হাতে ক্যাচ দিয়ে। গত ম্যাচে নজরকাড়া ঈশান কিশান চার রান করে জর্ডানের বলে ক্যাচ দিলেন বাটলারের হাতে। অধিনায়ক বিরাট কোহলির সঙ্গে কিছুটা সামলালেন পন্থ। ৪০ রানের পার্টনারশিপ হল। কিন্তু দুজনের ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হয়ে গেলেন পন্থ। ২৫ রান এল তাঁর ব্যাট থেকে। শ্রেয়াস আয়ার করলেন ৯ রান। চেষ্টা করলেন দলের রান বাড়িয়ে নিয়ে যেতে। চারিদিকে কম সমালোচনা হচ্ছিল না। গত ম্যাচে প্রমাণ দিয়েছিলেন ফর্মে ফেরার। টি টোয়েন্টি ক্রিকেটে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে তিন হাজার রান করেছিলেন। এদিন সেই মেজাজেই ব্যাট করতে দেখা গেল ভারত অধিনায়ককে। পাওয়ার হিটার নন। ক্রিকেটীয় শট খেলে রান তুলতে ভালোবাসেন। এদিন সেভাবেই সাজালেন নিজের ইনিংস।

    কভার ড্রাইভ থেকে শুরু করে পুল করে ছক্কা, বিভিন্ন শট খেলতে দেখা গেল কিং কোহলিকে। বুঝিয়ে দিলেন ফর্ম যাই হোক না কেন, ক্লাস চিরন্তন। তবে এদিনও প্রশংসা করতে হবে ইংল্যান্ডের দুই ফাস্ট বোলারের। আর্চার এবং উড গতির ঝলকানি দেখালেন। পান্ডিয়া একটি ওভার বাউন্ডারি মারলেন বটে, কিন্তু সেভাবে ব্যাটে বলে হচ্ছিল না। কিন্তু অনবদ্য ইনিংস খেলে ইনিংস খেলে চেষ্টা করলেন বিরাট। কিন্তু দিনটা ছিল ইংল্যান্ড এবং বাটলারের। সঙ্গে জনি বেয়ারস্টোর মারকুটে ইনিংস। এগিয়ে গিয়ে ইংল্যান্ড প্রমাণ করল এই ফর্ম্যাটে তাঁদের উড়িয়ে দেওয়া সহজ নয়। দশ বল বাকি থাকতেই লক্ষ্যে পৌঁছে গেল ইংরেজরা।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: