• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • INDIAN CRICKET FANS DEMAND TICKET REFUND AFTER INDIA WRAP UP THIRD TEST IN JUST 2 DAYS TC SR

দু'দিনেই শেষ ভারত-ইংল্যান্ডের তৃতীয় টেস্ট ম্যাচ, টিকিটের টাকা ফেরত চায় দর্শকরা!

যাঁরা পাঁচ দিনের টিকিট কেটেছিলেন কিংবা যাঁরা প্রথম দু'দিনের বদলে অন্য দিনগুলিতে অর্থাৎ শেষের দিকে ম্যাচ দেখবেন ভেবেছিলেন, তাঁদের এখন হাত কামড়াতে ইচ্ছা করছে ।

যাঁরা পাঁচ দিনের টিকিট কেটেছিলেন কিংবা যাঁরা প্রথম দু'দিনের বদলে অন্য দিনগুলিতে অর্থাৎ শেষের দিকে ম্যাচ দেখবেন ভেবেছিলেন, তাঁদের এখন হাত কামড়াতে ইচ্ছা করছে ।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে টেস্টের সংজ্ঞাই বদলে দিয়েছে ভারত। মাত্র দু'দিনেই ১০ উইকেটের ব্যবধানে ইংরেজ বধের জয়ডঙ্কা বাজিয়েছে কোহলি ব্রিগেড। ম্যাচ জুড়ে ফাস্ট বোলার যেন ডুমুরের ফুল। স্পিনের ভেল্কিতেই কুপোকাত দুই দলের ব্যাটসম্যান। তবে আনন্দের পাশাপাশি একটা আফসোস রয়েছে ভারতীয় দর্শকদের মনে। কে-ই বা ভেবেছিল মাত্র দু'দিনে শেষ হয়ে যাবে ভারত-ইংল্যান্ড ম্যাচ? যাঁরা পাঁচ দিনের টিকিট কেটেছিলেন কিংবা যাঁরা প্রথম দু'দিনের বদলে অন্য দিনগুলিতে অর্থাৎ শেষের দিকে ম্যাচ দেখবেন ভেবেছিলেন, তাঁদের কী হবে? সেই সূত্রেই এবার টিকিটের টাকা ফেরতের পক্ষে সওয়াল করেছেন ভারতীয় দর্শকদের একাংশ। আপাতত একের পর এক মিম আর ট্যুইটে জোরালে হয়েছে সেই দাবি।

হেরাফেরি, গোলমাল থেকে শুরু করে নানা সিনেমার মিম বানিয়ে একের পর এক পোস্ট করেছেন ভারতীয় দর্শকরা। তাঁদের কথায়, ভারত জেতার আনন্দ থাকলেও, মাত্র দু'দিনে ম্যাচ শেষ হয়ে গিয়েছে। তাই টিকিটের টাকাগুলো আপাতত জলে গেল।

ইতিমধ্যেই ইংল্যান্ড থেকে শুরু করে ক্রিকেট বিশ্বের নানা মহলে আহমেদাবাদের ক্রিকেট পিচ নিয়ে একটা বিতর্ক দানা বেঁধেছে। অনেকের কথায়, এতে টেস্ট ক্রিকেটের আভিজাত্য ক্ষুণ্ণ হয়েছে। তবে পিচ নিয়ে অধিনায়ক কোহলির (Virat Kohli) গলায় অবশ্য অন্য সুর। তিনি জানান, বল টার্ন করলেও ব্যাট করার জন্য যথেষ্ট ভালো পরিস্থিতি ছিল। তবে, দুই দলের তরফেই ব্যাটিং বড়ই হতাশাজনক। অদ্ভুত লাগছে যে, ৩০টি উইকেটের মধ্যে ২১টি এসেছে স্ট্রেট বলেই। ব্যাটিংয়ের ক্ষেত্রে কোথাও যেন একটা খামতি থেকে গিয়েছে।

অধিনায়কের মতো খানিকটা একই পথে হেঁটেছেন দলের অন্যতম ভরসা ওপেনার রোহিত শর্মা (Rohit Sharma)। বলা বাহুল্য, এই ব্যাটিং পিচেই প্রথম ইনিংসে ৯৬ বলে ৬৬ রান করেন তিনি। সাংবাদিক বৈঠকে তিনি জানান, তেমন আলাদা করে কিছু করার ছিল না। এখানকার উইকেটের ধরন অনুযায়ী একটু বেশি মনোযোগ দিয়ে ব্যাটিং করতে হবে। শুধু ব্লক করলেই চলবে না। বলে বলে স্কোরকেও এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। পাশাপাশি বলের টার্নকেও বুঝতে হবে। না হলে অঘটন ঘটতে পারে। এক্ষেত্রে বোলারের মানসিকতার থেকে এগিয়ে রাখতে হবে নিজেকে। নিজের স্টেপ আউট আর ফুটওয়ার্ক নিয়েও সচেতন থাকতে হবে।

তবে দিনের শেষে জেতা-হারাই শেষ কথা বলে। আর এই জয়লাভের পর ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে অনেকটা এগিয়ে গেল ভারত। পাশাপাশি চার ম্যাচের সিরিজে ২-১ নিজেদের এগিয়ে রাখল কোহলি ব্রিগেড। প্রসঙ্গত, আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে টসে জিতে ব্যাট করার সিন্ধান্ত নেয় ইংল্যান্ড। প্রথম ইনিংসে ১১২ রানে গুটিয়ে যায় ইংরেজদের শিবির। অক্ষর পটেলের (Axar Patel) স্পিনের ভেল্কিতে রীতিমতো কাবু হয়ে যান স্টোকস-রুটরা। অন্য দিকে, ব্যাট করতে নেমে ভারতও তেমন সুবিধা করতে পারেনি। রোহিত শর্মার (Rohit Sharma) ৬৬ ছাড়া তেমন কিছু প্রাপ্তি নেই। ১৪৫ রানে শেষ হয়ে কোহলিদের ইনিংস। রুট ও লিচ একা হাতে শেষ করে দেয় ভারতীয় ব্যাটিং। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে আরও খারাপ পরিস্থিতি তৈরি হয়। মাত্র ৮১ রানে শেষ হয়ে যায় ইংল্যান্ড। সৌজন্যে অক্ষর ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন (Ravichandran Ashwin)। আর সহজেই জয় ছিনিয়ে নেয় ভারত। তবে পিচ নিয়ে একটা চাপা বিতর্ক থেকেই গিয়েছে।

First published: