• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • আজ বিশাখাপত্তনমে ধোনিরা যে কাজটা করলেন, তাতে গর্ব হবে.....

আজ বিশাখাপত্তনমে ধোনিরা যে কাজটা করলেন, তাতে গর্ব হবে.....

Photo : BCCI Twitter Handle

Photo : BCCI Twitter Handle

টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পাশাপাশি এদিন মেন ব্লু’রা এমন একটা কাজ করলেন, যা নিঃসন্দেহে গর্ব করার মতো ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #বিশাখাপত্তনম: ভাইজ্যাগে আজ সিরিজের শেষ ওয়ান ডে অত্যন্ত গুরুত্বপূ্র্ণ ৷ রাঁচিতে গত ম্যাচে জেতার পর সিরিজ ২-২ করতে সফল হয়েছিলেন কিউইরা ৷ আজ তাই মরণ-বাঁচনের ম্যাচ দুই টিমের জন্যই ৷ টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পাশাপাশি এদিন মেন ব্লু’রা এমন একটা কাজ করলেন, যা নিঃসন্দেহে গর্ব করার মতো ৷

    টসের সময় হঠাৎই ভারত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির জার্সির পিছনে দেখা যায় ধোনির বদলে লখা রয়েছে ‘দেবকী’ ৷ তাহলে কি জার্সিতে ভুল অক্ষর ছাপা হয়েছে ? প্রাথমিকভাবে এমনটা মনে হলেও পরে দেখা যায় গোটা দলেরই জার্সি নাম আলাদা ৷ আসলে প্রত্যেক ভারতীয় ক্রিকেটার নিজেদের মা’কে সম্মান জানানোর জন্যই এদিন এমন জার্সি পড়েছেন। তাঁদের বক্তব্য, এই পিতৃতান্ত্রিক সমাজে সংসারের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ সদস্য মা হলেও, কেউই সেই অর্থে তাঁকে সম্মান জানানোর সুযোগ পান না।

    ‘দেবকী’, ‘সুজাতা’, ‘সরোজ’, ‘পূর্ণিমা’, ‘মন্দাকিনি’, ‘তারা’, ‘প্রীতিবেন’-- টিম ইন্ডিয়ার জার্সিতে এই নাম দেখে চমকে গিয়েছিল বিশ্ব ক্রিকেট। আসলে এটা নতুন ভাবনা। যে ভাবনা ক্রিকেট মাঠে ভেবে দেখাল ধোনির ভারত। এ দেশের এক বেসরকারি সম্প্রচার সংস্থার নতুন ক্যাম্পেন ‘নয়ি সোচ’। যার প্রচার করছেন ধোনি-রাহানে এবং বিরাট। আলোর উৎসবের দিনে তা বাস্তবে করে দেখাল টিম ইন্ডিয়া। তাঁদের জার্সিতে ফুটে উঠল সব ক্রিকেটারের মায়ের নাম।

    টস জেতার পর ধোনি এদিন বলেন, প্রত্যেকেই মাঠে নামার সময় নিজের বাবার পদবি পিঠে লিখে মাঠে নামেন। কিন্তু, সংসারের জন্য একজন মা যতটা করেন সেটা সবচেয়ে বেশি প্রশংসার যোগ্য। তাঁর মতে, একজন মায়ের সঙ্গে সন্তানের সম্পর্ক আবেগের সুতোয় বাঁধা থাকে। সেটা সম্পর্ককে জনসমক্ষে নিয়ে আসা খুবই দরকার। তিনি গোটা দেশের কাছে এই আবেদন করেন যে সকলেই যেন নিজের মা’কে প্রতিদিন সম্মান দেয়।

    এ দেশের বিজ্ঞাপন ভারতীয় ক্রিকেট ছাড়া ভাবা যায় না। তবে সাম্প্রতিক অতীতে ক্রিকেট মাঠে এই ধরনের বিজ্ঞাপন নজির বিহীন।

    First published: