খেলা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

হুগলির মাঠে খেলে বেড়াচ্ছে দিয়েগো, চেনেন একে?

হুগলির মাঠে খেলে বেড়াচ্ছে দিয়েগো, চেনেন একে?
Photo Source: Twitter

মারাদোনা-ভক্ত বাবা ছেলের নামও রেখেছেন দিয়েগো মারাদোনা।

  • Share this:

#হুগলি: মাথায় ঝাঁকড়া চুল, গায়ে ১০ নম্বর জার্সি। হুগলির মাঠে খেলে বেড়াচ্ছেন মারাদোনা। পায়ে ফুটবল নিয়ে খেল দেখাচ্ছেন দিব্যি। সঙ্গে ব্যক্তিগত ট্রেনার। দেখলে মনে হবে কোনও ম্যাচের জন্য প্রস্তুতি চলছে। কী মনে হচ্ছে- মারাদোনার কলকাতা ভিজিটের কথা বলছি? না। এ বছর চারেকের হুগলির মারাদোনা। মারাদোনা-ভক্ত বাবা ছেলের নামও রেখেছেন দিয়েগো মারাদোনা।

ফুটবল নিয়ে বাংলার উন্মাদনার কথা জানা সকলেরই। আই লিগ হোক বা ডার্বি, সবুজ-মেরুনে ছেয়ে যায় বাংলার রাস্তাঘাট। জাতীয় ফুটবলের প্রতি যেমন বাঙালির প্রেম, আন্তর্জাতিক ফুটবলের প্রতিও কম নয়। মারাদোনার কলকাতায় আসা ও তাঁকে নিয়ে ভক্তদের ভিড়ই তা প্রমাণ করে দেয় বার বার। কলকাতায় এসে মারাদোনা অনেকবারই বলেছেন, নাপোলির পর দ্বিতীয় শহর কলকাতা, যা তাঁকে এত ভালোবাসা দিয়েছে।

আর সেই ফুটবলপ্রেমীদের একজনই শতদ্রু দত্ত। যিনি চান তাঁর ছেলেও ফুটবলার হোক। তার জন্য বাড়িতেই বানিয়ে দিয়েছেন খেলার মাঠ। রেখেছেন ব্যক্তিগত কোচও। জার্সি পরে সেই মাঠেই দিন-রাত খেলে বেড়াচ্ছে ছোট্ট দিয়েগো। ছেলের নাম দিয়েগো রাখা নিয়ে শতদ্রুবাবু জানান, ছেলে যে দিন জন্ম নেয় তার কয়েক মিনিট পরই মারাদোনার কলকাতায় আসা নিশ্চিত হয়। মারাদোনার অফিস থেকে জানানো হয়, তিনি কলকাতা আসছেন। তার পরই এক বন্ধুর সাজেশনে ছেলের নাম রাখা হয় দিয়েগো।

আর দুই দিয়েগোর দেখাও হয়ে যায় পরে কলকাতায়। তাকে কোলেও তুলে নেন মারাদোনা। তখন মারাদোনার কাছে শতদ্রুবাবু জানান, তাঁর ছোট্ট ছেলের নাম তিনি ফুটবলের ঈশ্বরের নামে রেখেছেন।

ফুটবলের প্রতি হুগলির বাবা-ছেলের প্রেম এতটাই যে, ছোট্ট এক বছরের দিয়েগোকে নিয়ে ২০১৮ সালে রাশিয়ায় বিশ্বকাপ দেখতে যান শতদ্রুবাবু।আর এই দিয়েগোও ভালোবাসে ফুটবল। তার ট্রেনারের কথায়, ও খুব এনজয় করে খেলা। ট্রেনার তাই চেষ্টা করেন যতটা সম্ভব ওকে শেখাতে। প্র্যাক্টিসও করে মন দিয়ে ও। সকলেরই এক আশা- ও বড় হয়ে ফুটবলার হোক।

চলতি মাসের ২৫ তারিখ ভারতীয় সময় রাত ১১টা নাগাদ খবর এসেছিল যে ফুটবলের রাজপুত্র আর নেই। কার্ডিয়াক অ্যারেস্টে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। এই খবরের পর রীতিমতো শোকের ছায়া পড়ে যায় ক্রীড়াজগতে। এ দেশে তাঁর অগণিত ভক্তরা সোশ্যাল মিডিয়ায় শ্রদ্ধা জানান। তাঁর দেশেও একই দৃশ্য দেখা যায়। করোনাকে উপেক্ষা করেও তাঁকে শেষবারের জন্য দেখতে বহু মানুষ ভিড় জমান।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 1, 2020, 1:27 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर