• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • অবশেষে জয়! ওড়িশাকে উড়িয়ে আইএসএলে প্রথম তিন পয়েন্ট এস সি ইস্টবেঙ্গলের

অবশেষে জয়! ওড়িশাকে উড়িয়ে আইএসএলে প্রথম তিন পয়েন্ট এস সি ইস্টবেঙ্গলের

Photo: ISL

Photo: ISL

ম্যাচ শেষ হওয়ার কয়েক মিনিট আগে মাগোমার জায়গায় নামানো হয় ব্রাইটকে। নেমেই প্রথম ম্যাচে গোল পেয়ে গেলেন নাইজেরীয় ফুটবলার।

  • Share this:

    #গোয়া: অবশেষে স্বস্তি। তিন জানুয়ারি তারিখটা মনে রাখবেন লাল-হলুদ সর্মথকরা। রেড লেটার ডে। অন্তত আইএসএলে প্রথম জয় তুলে নেওয়ার ক্ষেত্রে এমনটা বলা যেতেই পারে। এদিন তিলক ময়দানে ওড়িশাকে তিন গোলে উড়িয়ে দিল লাল হলুদ। ম্যাচের বারো মিনিটে প্রথম গোল পিলকিংটনের। ডানদিক থেকে রাজু একটা লম্বা বল বাড়িয়েছিলেন। ওড়িশা বক্সে ফক্স হেড দিয়ে বলটা নামিয়ে দিলে দ্বিতীয় পোস্টে বল ফলো করে আসা পিলকিংটন হেডে বল জালে জড়ালেন। বিরতির পাঁচ মিনিট আগে দ্বিতীয় গোল। স্টেইনম্যান বল বাড়িয়েছিলেন মাগোমাকে। কঙ্গোর ফুটবলারটি বাঁদিক থেকে বলটা টেনে নিয়ে গিয়ে বাঁপা দিয়ে জোরালো শট নিলেন। শটে এত জোর ছিল বিপক্ষ গোলরক্ষক কিছু করতে পারেনি।

    এছাড়াও পিলকিংটন একটা শট নিয়েছিলেন, যা পোস্টে লেগে প্রতিহত হয়। দ্বিতীয়ার্ধে হারমান, অঙ্কিত, আঙ্গুকে নামানো হয়। ম্যাচ শেষ হওয়ার কয়েক মিনিট আগে মাগোমার জায়গায় নামানো হয় ব্রাইটকে। নেমেই প্রথম ম্যাচে গোল পেয়ে গেলেন নাইজেরীয় ফুটবলার। তাঁর প্রথম শট গোলরক্ষক বাঁচিয়ে দিলেও ফিরতি বল ধরে ডান পায়ের প্লেসমেন্ট করে গোল পেয়ে গেলেন। ম্যাচের অতিরিক্ত সময় ওড়িশার হয়ে ব্যবধান কমালেন মোরিসিও। তবে এদিন গোটা লাল-হলুদ দলটা টিম গেম খেলেই পুরো পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ল। প্রথম ম্যাচে রাজু গায়কোয়াড় রাইট ব্যাক পজিশনে মানিয়ে নিলেন। প্রথম ম্যাচে নেমেই গোল পেলেন ব্রাইট। স্টেইন্ম্যান মাঝমাঠে দলকে নেতৃত্ব দিলেন। রফিক,বিকাশ জৈরু নিজেদের উজাড় করে দিলেন। ম্যাচের সেরা পুরস্কার পেলেন পিলকিংটন। পাশাপাশি ডিফেন্স সামলালেন দুই বিদেশি ফক্স এবং স্কট। তবে ওড়িশা নিজেদের সুযোগ কাজে লাগাতে পারলে ম্যাচটা ড্র হলেও হতে পারত। ওনুই, মরিসিও,বিনীত, জেরিদের মত ফুটবলাররা চেষ্টা করেছেন ঠিকই, কিন্তু ইস্টবেঙ্গলের মরিয়া ভাবে দিন সবকিছু ছাপিয়ে গিয়েছে।

    এই জয় প্রমাণ করল ধীরে ধীরে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে লাল হলুদ। কোচ রবি জানেন তাঁর প্রবল সমালোচনা হচ্ছে বাইরে। আজকের জয়টা ভীষণভাবে দরকার ছিল। তাই নিজেদের উজাড় করে দেওয়ার প্রতিজ্ঞা নিয়ে নেমেছিল প্রতিটা লাল-হলুদ ফুটবলার। ফাও লার মেনে নিলেন এই জয় দলের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেবে, পাশাপাশি ব্রাইট আগামী দিনে আরও উজ্জ্বল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখাতে শুরু করে দিলেন। পাশাপাশি স্বদেশীরা ও দায়িত্ব নিয়ে লড়াই করছেন। লাল হলুদ কোচ আশাবাদী এই জায়গা থেকে আর ফিরে তাকাতে হবে না তাঁদের। তবে লিগ তালিকায় এমন কিছু পরিবর্তন হল না। দশম স্থানে রয়ে গেল ইস্টবেঙ্গল। ওড়িশা সবার নীচে। কিন্তু অবশেষে একটা জয় আত্মবিশ্বাস কিছুটা হলেও ফেরাতে সাহায্য করবে।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: