• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • নবম স্থানে থাকা এসসি ইস্টবেঙ্গলকে নিয়ে ডার্বি যুদ্ধের আগে সাবধানী হাবাস

নবম স্থানে থাকা এসসি ইস্টবেঙ্গলকে নিয়ে ডার্বি যুদ্ধের আগে সাবধানী হাবাস

ডার্বির জন্য অনুশীলন করছেন রয় কৃষ্ণ

ডার্বির জন্য অনুশীলন করছেন রয় কৃষ্ণ

অভিজ্ঞতায় তিনি জানেন এমন সময় যখন একটা দলের কিছু হারানোর থাকে না তখন সেই দল অনেক খোলা মনে খেলতে পারে। শুক্রবার ডার্বিতে নামার আগে ইস্টবেঙ্গল দলের সেই সুবিধাটা আছে।

  • Share this:

    #গোয়া: এই মুহূর্তে এটিকে মোহনবাগান আইএসএল তালিকায় শীর্ষস্থানে রয়েছে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী এসসি ইস্টবেঙ্গল রয়েছে নবম স্থানে। তবুও বড় ম্যাচে নামার আগে অত্যন্ত সতর্ক সবুজ মেরুন হেডস্যার অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাস। যখন প্রথম সাক্ষাতে লাল-হলুদের বিরুদ্ধে জিতেছিল সবুজ মেরুন, সেই সময়ের তুলনায় এই মুহূর্তে ইস্টবেঙ্গল অনেক উন্নত। দুবারের চ্যাম্পিয়ন কোচ মনে করেন এমনিতেই ইস্টবেঙ্গল সব সময় কঠিন প্রতিপক্ষ। ডার্বিতে আবেগ নয়, বাস্তবের জমিতে দাঁড়িয়েই খেলতে চান তিনি। পাশাপাশি ফুটবলারদের সতর্ক করে দিয়েছেন ম্যাচটা হালকা মেজাজে নিলে ভয়ঙ্কর পরিণতি হতে পারে।

    অভিজ্ঞতায় তিনি জানেন এমন সময় যখন একটা দলের কিছু হারানোর থাকে না তখন সেই দল অনেক খোলা মনে খেলতে পারে। শুক্রবার ডার্বিতে নামার আগে এসসি ইস্টবেঙ্গল দলের সেই সুবিধাটা আছে। জিতে গেলে দুর্ধর্ষ প্রাপ্তি, হেরে গেলেও খুব একটা সমালোচনা হবে না। তার অন্যতম কারণ ইতিমধ্যেই প্লে অফ থেকে ছিটকে গিয়েছে ইস্টবেঙ্গল। তাঁদের একমাত্র লক্ষ্য সম্মানের লড়াইয়ে জিতে মাঠ ছাড়া। কোচ রবি ফাওলার নির্বাসিত। এই ম্যাচেও ভিআইপি বক্স থেকে খেলা দেখতে হবে। দায়িত্ব সামলাবেন সহকারী কোচ টনি গ্রান্ট।

    লাল হলুদ দলে মাগোমা, স্টেনম্যান, ব্রাইট, পিলকিংটনদের মতো যেমন আক্রমণভাগের বিদেশি ফুটবলার রয়েছে, তেমনই ডিফেন্সে ড্যানি ফক্স এবং স্কট নেভিল আগের থেকে অনেক উন্নতি করেছেন। সৌরভ, রাজু, সার্থকদের মত ছেলেরা যোগ দেওয়ার পরে লাল-হলুদের পারফরম্যান্স ভাল হয়েছে। গোলের নীচে সুব্রত পালের ফিরে আসা অন্যতম পজিটিভ দিক। ব্রাইট কী করতে পারেন সেই নমুনা ইতিমধ্যেই সবাই দেখেছেন।

    জার্মান ফুটবলার স্টেনম্যান এই দলের নিউক্লিয়াস। হাবাস বুদ্ধিমান কোচ। মুখে বেশি কথা না বললেও প্রতিপক্ষ নিয়ে তাঁর হোম ওয়ার্ক সারা হয়ে গিয়েছে। পাশাপাশি ম্যাচ রিডিং অন্য কোচদের তুলনায় অনেক এগিয়ে। সবুজ মেরুন শিবিরে ডার্বি ম্যাচ নিয়ে যেমন খুব দুশ্চিন্তা নেই, তেমনই খুব হালকা মেজাজও নেই। রয় কৃষ্ণ গোল করছেন। ডেভিড উইলিয়ামস আগের ছন্দে না থাকলেও এই ধরনের ম্যাচে পার্থক্য গড়ে দিতে পারেন। ব্রাজিলীয় ফুটবলার মার্সেলিনো যোগ দেওয়ায় আক্রমণভাগে জোর বেড়েছে এটিকে মোহনবাগানের। গোয়ার ফুটবলার লেনি রদ্রিগেজ চলে আসায় মিডফিল্ড আগের থেকে উন্নত হয়েছে। ডিফেন্সে সন্দেশ এবং তিরি ধারাবাহিক ভরসা দিচ্ছেন।

    এছাড়া মোহনবাগান দলটায় একাধিক বাঙালি ফুটবলার রয়েছে যাঁদের এই ম্যাচটার গুরুত্ব আলাদা করে বোঝাতে হবে না। কিন্তু শেষ কয়েকটা ম্যাচে দেখা গিয়েছে লাল-হলুদ ব্রিগেড সেট পিস থেকে গোল পাচ্ছে। বেশ কিছু ভ্যারিয়েশন বাড়াতে পেরেছে ইস্টবেঙ্গল। দলটার বাঁদিক থেকে পরপর আক্রমণ হয়। তাই এই জায়গাটা নিশ্চয়ই নজর দেবে সবুজ মেরুন।

    পাশাপাশি মোহনবাগানের শক্তি এবং দুর্বলতা দুটোই জানা আছে লাল হলুদ শিবিরের। এই ম্যাচটা জিতে দলের ফুটবলাররা রবি ফাওলারকে উৎসর্গ করতে চান। অতীতে বারবার এমন অবস্থা থেকে বাজিমাত করেছে ইস্টবেঙ্গল। এবারও কী সেই ধারা অব্যাহত থাকবে। নাকি প্রথম লেগের মত আবারো শেষ হাসি হাসবে অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাসের দল? অপেক্ষা আর কয়েক ঘন্টার।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: