• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • 'আকাশের উপরে আবার একদিন দু'জনে এসঙ্গে ফুটবলে শট নেব', মারাদোনার প্রয়াণে শোকাহত পেলে

'আকাশের উপরে আবার একদিন দু'জনে এসঙ্গে ফুটবলে শট নেব', মারাদোনার প্রয়াণে শোকাহত পেলে

তাঁর মৃত্যুতে গোটা বিশ্বের মানুষ শোকাহত। শোকাহত ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলেও

তাঁর মৃত্যুতে গোটা বিশ্বের মানুষ শোকাহত। শোকাহত ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলেও

তাঁর মৃত্যুতে গোটা বিশ্বের মানুষ শোকাহত। শোকাহত ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলেও

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: বিশ্বের সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলার দিয়েগো মারাদোনা আর নেই ৷ একথা ভাবতেই কেমন যেন লাগছে ফুটবল প্রেমীদের ৷ আর্জেন্টিনা দেশটাকেই অনেকে তাঁর জন্য চিনেছে ৷ মারাদোনার খেলা দেখেই অনেকের বেড়ে ওঠা ৷ মেক্সিকো বিশ্বকাপের মহানায়ক দিয়েগো মারাদোনা প্রয়াত। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬০। তাঁর মৃত্যুতে গোটা বিশ্বের মানুষ শোকাহত। শোকাহত ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলেও।

    পেলে বনাম মারাদোনার মধ্যে কে সেরা, চিরকালের তর্ক-বিতর্ক। মারাদোনার মৃত্যুতে পেলে হারালেন ফুটবলের মাঠে তাঁকে অসামান্য করে তোলা চরম প্রতিদ্বন্দ্বীকে। খেলার মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বী, কিন্তু ব্যক্তিগত জীবনে একে অপরকে পরম বন্ধু বলেই সম্বোধন করতেন তাঁরা। খেলা ছাড়ার পরেও অনেক অনুষ্ঠানেই একসঙ্গে দেখা গিয়েছে পেলে ও মারাদোনাকে।

    সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে দেওয়া একটি বিবৃতিতে তিনি জানিয়েছেন, 'ইহকালের বন্ধুকে হারালাম। আকাশের উপরে আমরা দু’জন অবশ্যই একদিন এসঙ্গে ফুটবলে শট নেব'।

    নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচারের ৮ দিন পরে তাঁকে বুয়েনস আইরেসের হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। নিয়ে যাওয়া হয়েছিল এক ক্লিনিকে। সেখানে তাঁর অ্যালকোহল আসক্তি দূর করার চিকিৎসা চলছিল। প্রসঙ্গত, খেলা ছাড়ার পর দু’বার কলকাতা এসেছিলেন ফুটবলের রাজপুত্র। তাঁকে ঘিরে অভাবনীয় উচ্ছ্বাস, অভূতপূর্ব আবেগে ভেসে গিয়েছিল কল্লোলিনী কলকাতা।

    পৃথিবীর সর্বকালীন সেরা ফুটবলারদের অন্যতম আর্জেন্টিনাকে ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপ জিততে সাহায্য করেছিলেন৷ নিজের গগনচুম্বী কেরিয়ারের যেটা একটা মাইলফলক৷ তিনি ক্লাব হিসেব বোকা জুনিয়ার্স, নাপোলি, বার্সেলোনার হয়ে চমৎকার পারফরম্যান্স দিয়েছেন৷ সারা পৃথিবীর মানুষ তাঁর ফ্যান ছিল৷ তবে ১৯৮৬ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে তাঁর হ্যান্ড অফ গড তাঁকে বিখ্যাত করে রেখেছেন৷

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: