Home /News /sports /
বছরের প্রথম ডার্বি, পরপর দুটি ম্যাচ হেরে আন্ডারডগ লাল-হলুদ, ফেভারিট মোহনবাগানই

বছরের প্রথম ডার্বি, পরপর দুটি ম্যাচ হেরে আন্ডারডগ লাল-হলুদ, ফেভারিট মোহনবাগানই

আজ ডার্বি

আজ ডার্বি

সাংবাদিক সম্মেলনে এসে লাল-হলুদের আলেস‍্যার তাই সহজেই বলতে পারেন, 'পরপর দুই ম্যাচ হারাটাই আমাদের মোটিভেশন। আগে কি হয়েছে সেটা নিয়ে ভাবছি না। মাঠে নামার জন্য পুরোপুরি তৈরি আমরা।'

  • Share this:

হঠাৎ দেখা দুই বন্ধুর। সামান্য খোঁজখবরের পর দুই বন্ধু ঢুকে পড়লেন ময়দানি চর্চায়। খুব তাড়াতাড়ি আলোচনায় চলে এলো আই লিগের প্রথম ডার্বি। দুই বন্ধুই মেনে নিলেন, ইস্টবেঙ্গলের তুলনায় ভালো ছন্দে রয়েছে মোহনবাগান।

এখন নয়, যে ঘটনার কথা বলছি সেটা প্রায় এক মাস আগের ঘটনা। দুই বন্ধুর নাম শুনবেন? হোসে রামিরেজ ব্যারেটো ও ডগলাস দা সিলভা। ব‍্যারেটো না-হয় মোহনবাগানের। সবুজ তোতা বাগানের প্রতি ঝুঁকে থাকবেন সেটাই স্বাভাবিক। কিন্তু ডগলাস? তিনিও? হ্যাঁ, তিনিও ডার্বির আগে ফেভারিট ধরেছিলেন মোহনবাগানকে।

রবিবারের সকালে মোহনবাগানের প্র্যাক্টিস রবিবারের সকালে মোহনবাগানের প্র্যাক্টিস

হলফ করে বলতে পারি, এক মাস পরে দেখা হলেও নিজেদের মতের স্বপক্ষে আজ আরও জোরালো সওয়াল করতেন ব্যারেটো-ডগলাসরা।  তা হলে? তাহলে কি রবিবাসরীয় যুবভারতী সবুজ মেরুনের ? না! বড় ম্যাচে আগাম ভবিষ্যদ্বাণী করা আর কলকাতায় বসে ক্যালিফোর্নিয়ার আবহাওয়ার পূর্বাভাস দেওয়া দুই সমান। ময়দানে চালু মিথ, দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া ইস্টবেঙ্গল খোচা খাওয়া বাঘের চেয়েও না কী ভয়ংকর! চার্চিল ও গোকুলাম ম্যাচে হেরে পয়েন্ট টেবিল ৫-এ নেমে এসেছে লাল-হলুদ। অন্যদিকে প্রতিকূল পরিস্থিতিতে কাশ্মীর থেকে তিন পয়েন্টে ও পাঞ্জাব থেকে অপরাজিত ফিরে আত্মবিশ্বাসের এভারেস্টে সবুজ-মেরুন। সালভা ও কলিনাসের বদলি পাপা বাবাকর ও তুরসভ দলে যোগ দেওয়ায় শক্তি বেড়েছে কিবুর দলে। এটিকে সঙ্গে বাগানের মৌ সই বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে উনিশের ডার্বিতে। আলেজান্দ্রো ও ভিকুনাও জানেন বড় ম্যাচের গুরুত্ব।

সেজে উঠেছে যুবভারতী সেজে উঠেছে যুবভারতী

সাংবাদিক সম্মেলনে এসে লাল-হলুদের আলেস‍্যার তাই সহজেই বলতে পারেন,  'পরপর দুই ম্যাচ হারাটাই আমাদের মোটিভেশন। আগে কি হয়েছে সেটা নিয়ে ভাবছি না। মাঠে নামার জন্য পুরোপুরি তৈরি আমরা।'

অন্যদিকে, বাগানের হটসিটে বসে কিবু ভিকুনা বলছেন, 'এই ম্যাচটার বিশেষত্ব, গুরুত্ব সবটাই জানি। পয়েন্ট টেবিলের কোথায় আছি সেটা এই ম্যাচে অন্তত বিচার্য নয়।' রবিবাসরীয় যুবভারতীতে  বড় ম্যাচ শুরু বিকেল পাঁচটায়। কিন্তু দুই শিবিরের মাইন্ড গেম শুরু হয়ে গিয়েছে অনেক আগেই। মাঠের চৌহদ্দিতে ইস্টবেঙ্গল বনাম মোহনবাগান মানেই তো আবেগের লড়াই, স্নায়ুর যুদ্ধ।

পয়েন্ট টেবিলে কে কোথায় সেটা সত্যিই ৯০ মিনিটের মাঠের লড়াইতে অপ্রাসঙ্গিক।হাইমে কোলাডো, জুয়ান মেরার মতো ম্যাচ উইনার রয়েছে ইস্টবেঙ্গলে। যুবভারতীর রং পাল্টে দিতে পারেন বাগানের বেইতিয়া, গনজালেজরা। ভারতীয়দের মধ্যে অবশ্যই ম্যাচ ফ্যাক্টর হতে পারেন মোহনবাগানের নাওরেম ও গোলের মধ্যে থাকা বাঙ্গালি ফুটবলার শুভ ঘোষ। আলেজান্দ্রোর ভরসা সেখানে ডিকার মত সেট পিস  বিশেষজ্ঞরা। সব মিলিয়ে যুবভারতী তৈরি। তৈরি মহানগরী। কাউন্টডাউন শুরু বাঙালির এল ক্লাসিকোর।

First published:

Tags: Kolkata Derby, Mohun Bagan vs East Bengal

পরবর্তী খবর