মেগা সেমিফাইনালের ম্যাচ চেঞ্জার, এটিকে-বেঙ্গালুরু ম্যাচে নজর রাখবেন যাদের উপর

মেগা সেমিফাইনালের ম্যাচ চেঞ্জার, এটিকে-বেঙ্গালুরু ম্যাচে নজর রাখবেন যাদের উপর

১টা পাস, ১টা গোল। ম্যাচ ঘুরিয়ে দেওয়া পাস, ট্যাকল জলভাত। মেগা সেমিফাইনালের ম্যাচ চেঞ্জার যারা।

  • Share this:

#কলকাতা: সুনীল বনাম সুশাইরাজ। রয় কৃষ্ণা বনাম এরিক পার্তালু। এডু গার্সিয়া বনাম দিমাস দেলগাদো। নিশু কুমার বনাম প্রীতম কোটাল। রবিবাসরীয় কান্তিরাভায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে এমন অসংখ্য ডুয়েল। ছয়ের আইএসএলের দ্বিতীয় সেমিফাইনালের প্রথম লেগের ম্যাচ মানেই মারকাটারি ফুটবল যুদ্ধ।

মাঠের চৌহদ্দিতে এটিকে-বেঙ্গালুরুর ধুন্ধুমার ফুটবল। ডাগ-আউটে হাবাস বনাম কার্লোস কুয়াদ্রাতের স্ট্র্যাটেজির ঝনঝনানি। রবিবার ম্যাচ শুরু সন্ধে সাড়ে সাতটায়। ম্যাচের রং বদলানো ফুটবলারের ছড়াছড়ি দুই দলেই। মার্চ পয়লার কান্তিরাভায় কার কার দিকে নজর রাখবেন?

ATK

১) ডেভিড উইলিয়ামস: জার্সি নম্বর ৯। ৩২ বছর বয়সী অজি ফরোয়ার্ড বদলে দিয়েছেন এটিকে-র স্ট্রাইকিং ফোর্সকে। ছয়ের আইএসএলে চোখ ধাঁধানো পারফর্ম্যান্স ওয়েলিংটন ফোনিক্সের প্রাক্তনের। ১৫ ম্যাচে উইলিয়ামসের নামের পাশে পাঁচটি গোল। অ্যাসিস্ট করেছেন চারটি। টাচ খেলেছেন ৪৭০ টি। পাস বাড়িয়েছেন ৩৬০ টি। বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে শট নিয়েছেন ২৭ বার।

২) রয় কৃষ্ণা: জার্সি নম্বর ২১। ৩২ বছরের রয় কৃষ্ণা এবারের আইএসএলের অন্যতম সেরা আকর্ষণ। ছয়ের আইএসএলে ১৮ ম্যাচ খেলে রয় কৃষ্ণা গোল করেছেন ১৪ টি। অ্যাসিস্ট করেছেন ৫টি। বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে শট নিয়েছেন ৪৯ বার। সতীর্থদের সঙ্গে পাস খেলেছেন ৪৫৬ টি। রয় কৃষ্ণা মানেই প্রতিপক্ষের ত্রাস।

৩) এডু গার্সিয়া: ২৯ বছর বয়সী স্প্যানিয়ার্ডই এই দলটার নিউক্লিয়াস। রয় কৃষ্ণা, ডেভিড উইলিয়ামসের পিছন থেকে খেলাটা ধরেন এডু গার্সিয়াই। জার্সি নম্বর ১০। ছয়ের আইএসএলে ১৩ ম্যাচে ৫টি গোল ও ৩টি অ্যাসিস্ট রয়েছে এডুর। ট্যাকল করেছেন ৩০ টি। পাস বাড়িয়েছেন ৩২৭। টাচ খেলেছেন ৪৫১ টি। কথায় বলে, গার্সিয়া খেললে এটিকে খেলে।

৪)প্রবীর দাস: ছয়ের আইএসএলে যেন নবজন্ম হয়েছে বাঙালি এই ফুটবলারের। জার্সি নম্বর ৩৩। চোট কাটিয়ে মাঠে ফিরে আরও ধারালো হয়ে উঠেছেন। হাবাসের হাতে পড়ে দুরন্ত ফর্মে। ১৭ ম্যাচে পাস খেলেছেন ৪১৮ টি। ক্রস তুলেছেন ৪৯ টি। প্রবীরকে না থামাতে পারলে সেমিফাইনালে দুর্ভোগ রয়েছে বেঙ্গালুরুর।

৫) প্রীতম কোটাল: ভারতীয় ফুটবলে পিকে টোয়েন্টি নামে পরিচিত। কোন্নগর-রিষড়ার এই ডিফেন্ডার এবার এটিকে-র অন্যতম স্তম্ভ। ১৮ ম্যাচে বল ক্লিয়ার করেছেন ১২৪ বার। ট্যাকল করেছেন ৬৫ বার। রক্ষণের পাশাপাশি প্রীতমের অ্যাটাকিং কোয়ালিটি বাড়তি ভরসা জুগিয়েছে কোচ হাবাসকে।

বেঙ্গালুরু এফসি:-

১)সুনীল ছেত্রী: ছয়ের আইএসএলে এখনও সেরা ফর্মে দেখা যায়নি ভারতীয় ফুটবল অধিনায়ককে। তবে ভারতীয় ফুটবলের সেরা ম্যাচ চেঞ্জার এখনও সুনীল। এবারের আইএসএলে ১৫ ম্যাচে ৯ গোল রয়েছে সুনীলের। বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে শট নিয়েছেন ৩৪ বার। পাস খেলেছেন ৪৪২ টি। সুনীল মানেই অঘটন। তাই ফাইনালের ছাড়পত্র পেতে সুনীলকে মার্কিংয়ে রাখতে হবে হাবাসকে। জার্সি নম্বর ১১।

২)এরিক পার্তালু: ৬ নম্বর জার্সিধারী অজি ফুটবলারকে চোখে চোখে না রাখলেই মুশকিল। ব্লকিংয়ের পাশে অ্যাটাকিংয়েও সমান সাবলীল অজি মিডিও। ১৫ ম্যাচে ট্যাকেল করেছেন ৩৯ বার। আবার বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে শট নিয়েছেন ১৬ টি। পাস খেলেছেন ৬০২ টি।

৩) নিশু কুমার: জার্সি নম্বর ২২। ভারতীয় ফুটবলের আগামীর তারকা। ২২ বছর বয়সী নিশু বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে আচমকা শট নিতে পারেন। আইএসএলে ক্রস তুলেছেন ২৬ টি। পাস বাড়িয়েছেন পাঁচশোর বেশি। ট্যাকল করেছেন ৪০ টি।

৪) দেলগাদো : জার্সি নম্বর ১৪। পার্তালুর মতোই অসম্ভব ওয়ার্কলোড নেন। উঠে নেমে খেলে সচল রাখেন দলের মাঝমাঠ। ১৮ ম্যাচে ১১০০ পাস খেলেছেন দেলগাদো। প্রতিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে শট নিয়েছেন ২০ বার। ক্রস তুলেছেন ৩১ বার। ট্যাকল করেছেন ৬৯ বার। বেঙ্গালুরুর ইঞ্জিন দেলগাদো।

৫) আশিক কুরুনিয়ান: ভারতীয় ফুটবলের নতুন তারকা। ১৭ টি ম্যাচে চোখ ধাঁধানো পারফরম্যান্স আশিকের। বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে শট নিয়েছেন ১৯ বার। পাস বাড়িয়েছেন ৪৬৪ টি। ট্যাকল করেছেন ৪৩ বার। বেঙ্গালুরুকে জিততে হলে ভাল খেলতে হবে আশিককে। জার্সি নম্বর ১৯।

PARADIP GHOSH

First published: February 29, 2020, 5:51 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर