Happy Birthday Cristiano Ronaldo: জন্মদিনে ফিরে দেখা ক্রিশ্চিয়ানোর সেরা ১০ গোল!

Happy Birthday Cristiano Ronaldo: জন্মদিনে ফিরে দেখা ক্রিশ্চিয়ানোর সেরা ১০ গোল!
Cristiano Ronaldo. (Photo Credit: Reuters)

১৯৮৫ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি জন্ম। আজ আরও এক বছর বয়স বাড়ল। কিন্তু ৯০ মিনিটের লড়াইয়ে আজও অনবদ্য তিনি।

  • Share this:

#লিসবন:  ১৯৮৫ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি জন্ম। আজ আরও এক বছর বয়স বাড়ল। কিন্তু ৯০ মিনিটের লড়াইয়ে আজও অনবদ্য তিনি। আজও তাঁর দৃঢ় চোখ মনে করিয়ে দেয় এক দশক আগের আনকোরা পোর্তুগিজ স্ট্রাইকারকে। চোট, যন্ত্রণা, ব্যক্তিগত জীবন, বিতর্ক- সব কিছু পেরিয়ে যে তিনি এখনও অনবদ্য, অপ্রতিরোধ্য। ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর ( Cristiano Ronaldo) কেরিয়ার শুরু Sporting CP-তে। এর পর ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড, রিয়াল মাদ্রিদ হয়ে জুভেন্তাস। দেশের হয়েও বার বার জাদু দেখিয়েছেন মাঠে। আজ জন্মদিনে এমনই কিছু জাদুর সাক্ষী হওয়া যাক। ফিরে দেখে নেওয়া যাক রোনাল্ডোর সেরা দশটি গোল!

ম্যাঞ্চস্টার ইউনাইটেড (Manchester United F.C.) বনাম পোর্টস্মাউথ (Portsmouth F.C.)

২০০৮ সাল। কেরিয়ারের অন্যতম সেরা ফ্রি-কিক। তরুণ পোর্তুগিজ স্ট্রাইকারের বল পায়ে সেই ভেল্কি আজও মনে রেখেছে ফুটবল বিশ্ব।

পোর্তো (Port Vale F.C.) বনাম ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইডেট (Manchester United F.C.)

২০০৯ সালের ম্যাচ। চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল। দল ১-০ গোলে ম্যাচ জেতে। সেদিন গোলকিপারের চোখ ধাঁধিয়ে গোল বক্সে ঢুকে যায় বল। তরুণ রোনাল্ডোর সেই গোল আজও ভোলা যায় না।

আলমারিয়া (UD Almería) বনাম রিয়াল মাদ্রিদ (Real Madrid C.F.)

রোনাল্ডো বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, পেনাল্টি বক্স হোক বা মাঝ মাঠ সব জায়গাতেই যে কোনও সময় ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারেন তিনি। ডিফেন্ডারকে কার্যত নির্বাক করে গোল ভরে দিয়েছিলেন ক্রিশ্চিয়ানো।

সেভিয়া (Sevilla FC) বনাম রিয়াল মাদ্রিদ (Real Madrid C.F.)

২০১১ সালের ম্যাচ। করিম বেঞ্জিমার (Karim Benzema) থেকে বল কেড়ে নিয়ে এগিয়ে চলেছেন রোনাল্ডো। গোল বক্সের ডানদিকের কোণে বল ঢুকিয়ে দেন। সেই ম্যাচে তিনটি গোল করেছিলেন। কিন্তু এই গোলটির জবাব হয় না। ৬-২ গোলে সেভিয়াকে হারিয়েছিল মাদ্রিদ।

বার্সেলোনা (FC Barcelona) বনাম রিয়াল মাদ্রিদ (Real Madrid C.F.)

২০১২ সালের ম্যাচ। ফুটবল বিশ্বের দুই মহাতারকা মুখোমুখি। এল-ক্লাসিকোর ৯০ মিনিটের যুদ্ধে মাঠে নেমেছেন রোনাল্ডো ও মেসি (Lionel Messi)। সেই ম্যাচেও রোনাল্ডোর খেলা নজর কেড়েছিল বিশ্ববাসীর।

সুইডেন (Sweden) বনাম পর্তুগাল (Portugal)

২০১৩ সালের ম্যাচ। ২০১৪ FIFA World Cup-এর জন্য কোয়ালিফাইং প্লে-অফে সুইডেনকে হারাতে বদ্ধপরিকর পর্তুগাল। ম্যাচ জুড়ে চলল রোনাল্ডো ম্যাজিক। বিপক্ষকে ৩-২ গোলে পরাজিত করে পর্তুগাল। সেই ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেছিলেন রোনাল্ডো।

রিয়াল মাদ্রিদ (Real Madrid C.F.) বনাম ভ্যালেন্সিয়া (Valencia CF)

২০১৪ সালের ম্যাচ। চোট নিয়েও অপ্রতিরোধ্য রোনাল্ডো। বুদ্ধি করে ব্যাকহিল ভলি গোলে বিপক্ষকে মাত দেন। তবে চেষ্টা করেও দলকে বাঁচাতে পারেননি তিনি।

রিয়াল মাদ্রিদ (Real Madrid C.F.) বনাম এস্পানিয়ল (RCD Espanyol de Barcelona)

২০১৬ সালের স্মরণীয় ম্যাচ। এস্পানিয়ল ৬-০ গোলে গো-হারান হেরেছিল। সেই ম্যাচে হ্যাট্রিক করেছিলেন রোনাল্ডো। মাঠ জুড়ে যেন একাই উড়ে বেড়িয়েছিলেন পর্তুগালের এই তারকা প্লেয়ার।

২০১৭ সালের রিয়াল মাদ্রিদ (Real Madrid C.F.) বনাম বায়ার্ন মিউনিখ (FC Bayern Munich) ম্যাচ

চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল। বায়ার্ন মিউনিখের বিরুদ্ধে জ্বলে উঠেছিলেন ক্রিশ্চিয়ানো। ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেছিলেন তিনি। ম্যাচের ৭৬ মিনিটে প্রথম গোল। পরের পাঁচ মিনিটের মধ্যেই ম্যাচের রং বদলে দেন। সেই ম্যাচে রোনাল্ডোর পায়ের জাদুতে মজেছিল গোটা ফুটবল বিশ্ব।

জুভেন্তাস (Juventus F.C.) বনাম রিয়াল মাদ্রিদ (Real Madrid C.F.)

২০১৮। চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল। এই গোলটি নিঃসন্দেহে রোনাল্ডোর জীবনের অন্যতম সেরা গোল। ওভারহেড কিক উড়ে সোজা গোল বক্সে ঢুকে যায়। গোলকিপারকে রীতিমতো দর্শক বানিয়ে দিয়েছিলেন ক্রিশ্চিয়ানো।

Published by:Debalina Datta
First published: