খেলা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

কলকাতার লজ্জা! উধাও মারাদোনার বাঁ পায়ের ছাপ! ফুটবল রাজপুত্রের ইতিহাস ধরে রাখতে পারল না তিলোত্তমা

কলকাতার লজ্জা! উধাও মারাদোনার বাঁ পায়ের ছাপ! ফুটবল রাজপুত্রের ইতিহাস ধরে রাখতে পারল না তিলোত্তমা

মারাদোনার মৃত্যুর পর সেই পায়ের ছাপ খুঁজতে গিয়ে খালি হাতে ফিরে আসা। সারাদিন বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ খবর করার পর হতাশা ছাড়া কিছু নেই। উধাও হয়ে গেছে ঐতিহাসিক সেই পায়ের ছাপের স্মারক।

  • Share this:

#কলকাতা: লজ্জা। কলকাতার লজ্জা। ফুটবল রাজপুত্রের ইতিহাস ধরে রাখতে পারলো না তিলোত্তমা। মারাদোনার স্মৃতি বেমালুম হারিয়ে ফেলল কলকাতা। ফুটবল রাজপুত্র দিয়েগো মারাদোনার বাঁ পা মানে একের পর এক ইতিহাস। চিরস্মরণীয় হয়ে থেকে যাওয়া গোল গুলো। সেই পায়ের ছাপটাই হারিয়ে ফেলল কলকাতা। মারাদোনার মৃত্যুর পর সেই স্মারকের স্মৃতির খোঁজ শুরু করলো নিউজ18 বাংলা।

২০০৮ সালে প্রথমবার ভারতে আসেন ফুটবল রাজপুত্র মারাদোনা। বিভিন্ন কর্মসূচির মাঝে মহেশতলার ফুটবল স্টেডিয়াম এবং ফুটবল স্কুলের জমি উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে যান বিশ্বকাপ জয়ী কিংবদন্তি ফুটবলার। হেলিকপ্টার করে মহেশতলা পৌঁছনোর পর হাজার হাজার মানুষের ভালোবাসায় ভেসে গিয়েছিলেন মারাদোনা। ছোট ছোট শিশুদের ফুটবল পায় দেখে মারাদোনা মুগ্ধ হয়ে পড়েছিলেন। মঞ্চ থেকেই বাঁ পায়ে ফুটবল স্কিল দেখান তিনি। শিশুর মতো আনন্দে ভাসেন। তারপর আসে সেই ঐতিহাসিক মুহূর্ত। প্লাস্টার প্যারিস নিয়ে এসে মারাদোনার বাঁ পায়ের ছাপ তুলে রাখা হয়। যে বাঁ পা ছুঁয়ে দেখার জন্য তাঁর অনুগামী থেকে ফুটবলপ্রেমীরা লক্ষ লক্ষ মাইল ছুঁটে যেতে পারেন ৷ দিনের পর দিন অপেক্ষা করতে পারেন সেই পা দর্শককে দেখিয়ে ছাপ দেন মারাদোনা। সেদিন মারাদোনাকে দু’দিক থেকে ধরেছিলেন প্রাক্তন ফুটবলার মানস ভট্টাচার্য এবং কৃষ্ণেন্দু রায়। কথা ছিল সেই বাঁ পায়ের ছাপ নবনির্মিত স্টেডিয়ামে রাখা হবে। সেদিনের সেই ছবি আজও জীবন্ত।

তবে তারপরে বাকিটাই রাজনীতি দলাদলি আর ফুটবল রাজপুত্রকে ভুলে যাওয়া। মহেশতলার সেই জায়গায় গিয়ে দেখা গেল ১২ বছর পরও স্টেডিয়াম হয়নি। আগের সরকার এবং বর্তমান সরকারের জটে আটকে রয়েছে সেই স্টেডিয়াম তৈরির কাজ। ইডেন সিটি নামে এক বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে তৎকালীন সিপিআইএম নেতা এবং মারাদোনার অনুষ্ঠানের অন্যতম উদ্যোক্তা শমীক লাহিড়ী তার টিম-সহ মহেশতলা পৌরসভার মধ্যে আধুনিক মানের ফুটবল স্কুল এবং স্টেডিয়াম তৈরি চুক্তি হয়। সেই স্টেডিয়াম তৈরি হলে নিজে উদ্বোধন করতে আসার ইচ্ছে প্রকাশ করেছিলেন মারাদোনার স্বয়ং। তবে ১৫ কোটি টাকার জন্য এখনও সেই জমি সরকার থেকে হস্তান্তর করা হয়নি ইডেন সিটি কর্তৃপক্ষকে। আশপাশের অঞ্চলে হাউসিং হয়ে গেলেও ফুটবলের কোনও উন্নতি হয়নি।

মারাদোনার মৃত্যুর পর সেই পায়ের ছাপ খুঁজতে গিয়ে খালি হাতে ফিরে আসা। সারাদিন বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ খবর করার পর হতাশা ছাড়া কিছু নেই। উধাও হয়ে গেছে ঐতিহাসিক সেই পায়ের ছাপের স্মারক। ইডেন সিটি কর্তৃপক্ষের জানা নেই সেই ছবি কোথায়। সেই অঞ্চলে একটা ইন্ডোর স্টেডিয়াম হওয়ার কথা থাকলেও তার কাজ শুরু হয়নি এখনও।

দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তাকর্মীরা কোনওভাবেই খোঁজ দিতে পারলেন না সেই ছবির। ১২ বছর আগে অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা শমীক লাহিড়ীও জানেন না কোথায় আছে সেই ছবি। শুধু তিনি বললেন, "কয়েকজন এসে পায়ের ছাপ নিয়েছিল ঠিকই। তবে সেটা উদ্যোক্তাদের বিষয় ছিল না। পৌরসভা এবং ইডেন সিটি কর্তৃপক্ষ সবথেকে ভাল বলতে পারবে। তবে স্টেডিয়াম না হওয়াটা খুব হতাশার।" তৎকালীন সময়ে মহেশতলা পৌরসভা বামেদের হাতে থাকলেও এখন তৃণমূলের। বিদায়ী চেয়ারম্যান দুলাল দাস বলেন, "আমরা কোনও ছবি কোনওদিনও পুরসভায় পাইনি। স্টেডিয়াম করার ব্যাপারে ১২ বছর আগে একটা গিমিক ছিল। মারাদোনাকে নিয়ে এসে ভোটে জেতার কৌশল। তবে পৌরসভা এখনও উদ্যোগে স্টেডিয়ামটা করার ব্যাপারে। আশা করি দ্রুত সমস্যা মিটে যাবে।"

১২ বছর আগের মারাদোনাকে সাহায্য করা দুই ফুটবলার মানস ভট্টাচার্য্য এবং কৃষ্ণেন্দু রায়ের হাতজোড় করে আর্জি, অমূল্য সম্পদ খুঁজে বের করা হোক অতিসত্বর। ফুটবলের রাজপুত্র বাঁ পায়ের ছবি হারিয়ে যাওয়াটা রাজ্যবাসীর কাছে লজ্জা।

Eeron Roy Barman

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: November 30, 2020, 5:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर