সৌদি আরবের বিজ্ঞাপন দূত! মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে বিরাট অঙ্কের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন মেসি, রোনাল্ডো

সৌদি আরবের বিজ্ঞাপন দূত!  মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে বিরাট অঙ্কের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন মেসি, রোনাল্ডো
photo/the daily mail

অনেক ক্ষেত্রে মহিলাদের সমান অধিকার না দেওয়া বা দোষী সাব্যস্ত অপরাধীদের সকলের সামনে প্রাণদণ্ডে দণ্ডিত করা, এসবই সৌদির বিরুদ্ধে গিয়েছে। মেসি বা রোনাল্ডো যে পর্যায়ের তারকা, তাতে তাঁদের কাছে টাকাটাই সব নয়। সামাজিক ছবিটাই বেশি মূল্যবান।

  • Share this:

    #লিসবন: আধুনিক ফুটবলের দুই সুপারস্টার নিজেদের লড়াইটা মাঠের ভেতরে যতটা বজায় রাখেন, বাইরেও তাই। সব সময় একটা অলিখিত যুদ্ধ চলে দুজনের মধ্যে। সম্প্রতি দুই সুপারস্টারকে নিজেদের বিজ্ঞাপন দূত হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল সৌদি আরব সরকার। কয়েকদিন আগেই ক্রাউন প্রিন্স মহম্মদ বিন সলমনের স্বপ্নের প্রকল্প দ্য লাইনের কথা সামনে এসেছে। নিজেদের পর্যটন ব্যবস্থা ঢেলে সাজানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে দেশটি। পাশের দেশ আমিরাতকে পর্যটন শিল্পে পিছিয়ে দেওয়ার ভাবনা নিয়েই মাঠে নেমেছে সৌদি।যাই হোক,প্রস্তাবটা ছিল ছয় মিলিয়ন ইউরোর। গুগল বলছে, ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৫৫ কোটি টাকা।কী করতে হবে এই টাকা পেতে? তেমন কিছুই না। প্রচারের কাজ। হয়তো দু-একটি বিজ্ঞাপনে নিজের চেহারা দেখাতে হবে, হয়তো শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কিছু কথা বলতে হবে, মাঝে মধ্যে ইনস্টাগ্রাম কিংবা ফেসবুক-টুইটারে দু-একটি পোস্ট দিতে হবে...এই তো! সাধারণত, এমন প্রস্তাবগুলোয় এই কাজই তো করতে হয়।

    রোনাল্ডো এমন কাজ কতশত প্রতিষ্ঠানের জন্যই তো করেছেন, করছেন। ৩৫ বছর বয়সী পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড কোটি কোটি ইউরো কামাইও করছেন সেসব স্পনসরশিপের চুক্তি থেকে। বলা যায়, ফুটবলের বাইরে এসব রোনাল্ডোর বাড়তি আয়ের উৎস। শুধু রোনাল্ডো কেন, দুনিয়াজোড়া প্রায় সব অ্যাথলেট, সব সেলেব্রিটিরই এমন স্পনসরশিপ চুক্তি আছে। কিন্তু সৌদি আরব থেকে আসা প্রস্তাবে মন গলেনি রোনাল্ডোর। নিজেদের নতুন প্রচারণা ক্যাম্পেইন ‘ভিজিট সৌদি’র অংশ হিসেবে সৌদি আরবের পর্যটন বোর্ড দিয়েছিল এই প্রস্তাব, কিন্তু এমন লোভনীয় প্রস্তাবও ফিরিয়ে দিয়েছেন জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড।

    ইংলিশ দৈনিক দ্য টেলিগ্রাফকে উদ্ধৃত করে স্প্যানিশ দৈনিক এএস জানাচ্ছে, প্রস্তাবটা বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড লিওনেল মেসিকেও দিয়েছে সৌদি আরবের পর্যটন বোর্ড। প্রথমে রোনাল্ডো প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ার পর সবাই অপেক্ষায় ছিলেন দেখার মেসি সেই প্রস্তাব গ্রহণ করেন কিনা। অতীতে সৌদি আরবে খেলে গিয়েছেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা। দেশটির প্রশাসনের সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক ভাল। কিন্তু যা খবর তাতে আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে তিনিও সৌদির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু কেন?


    শোনা যাচ্ছে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে বিভিন্ন জায়গা থেকে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। অনেক ক্ষেত্রে মহিলাদের সমান অধিকার না দেওয়া বা দোষী সাব্যস্ত অপরাধীদের সকলের সামনে প্রাণদণ্ডে দণ্ডিত করা, এসবই সৌদির বিরুদ্ধে গিয়েছে। মেসি বা রোনাল্ডো যে পর্যায়ের তারকা, তাতে তাঁদের কাছে টাকাটাই সব নয়। সামাজিক ছবিটাই বেশি মূল্যবান। বিভিন্ন জনসেবামূলক কাজে নিযুক্ত আছেন দুজনেই। আফ্রিকার বাচ্চাদের খাবার পৌঁছে দেওয়া থেকে শুরু করে, সিরিয়া বা প্যালেস্টাইনের শিশুদের বিভিন্ন সাহায্য করে থাকেন এই দুই সুপারস্টার। তাই সেই প্রতিচ্ছবি আঘাত খাবে সৌদির শুভেচ্ছাদূত হলে। নির্দিষ্ট কারণ না বললেও বুঝে নিতে সমস্যা নেই সৌদির সামাজিক ছবির কারণে প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন দুই তারকা।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: