• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • ব্রাইটের বিশ্বমানের গোল দাম পেল না, গোয়ার বিরুদ্ধে ড্র এস সি ইস্টবেঙ্গলের

ব্রাইটের বিশ্বমানের গোল দাম পেল না, গোয়ার বিরুদ্ধে ড্র এস সি ইস্টবেঙ্গলের

photo/sc east bengal twitter

photo/sc east bengal twitter

ব্রাইট বলটা ধরে দুটো টোকায় প্রথমে একজনকে কাটিয়ে নিলেন, তারপর শরীরের দোলায় আরও তিনজনকে মাটি ধরালেন। ডান পায়ের শট জড়িয়ে গেল জালে।

  • Share this:

    এস সি ইস্টবেঙ্গল -১ (ব্রাইট)

    এফসি গোয়া -১ (দেবেন্দ্র)

    #গোয়াঃ ঘটনাবহুল ম্যাচ। বিশ্বমানের গোল, লাল কার্ড, হাতাহাতি। কী ছিল না? স্কোরলাইন বলছে এস সি ইস্ট বেঙ্গল এক, এফসি গোয়া এক। প্রথমেই বলতে হবে লাল-হলুদের নাইজেরীয় ফুটবলার ব্রাইটের বিশ্বমানের গোলের কথা। আশি মিনিটের মাথায় বাঁদিক থেকে ভেসে আসা একটা বল নামিয়ে দিলেন মাগোমা। ব্রাইট বলটা ধরে দুটো টোকায় প্রথমে একজনকে কাটিয়ে নিলেন, তারপর শরীরের দোলায় আরও তিনজনকে মাটি ধরালেন। ডান পায়ের শট জড়িয়ে গেল জালে। এককথায় বিশ্বমানের গোল। চলতি টুর্নামেন্টের সেরা বলা যেতে পারে। একক দক্ষতায় পুরো গোয়া ডিফেন্সকে বোকা বানালেন নাইজেরীয় তারকা। এক মিনিটের মধ্যে পাল্টা কাউন্টার থেকে গোল হজম করল লাল হলুদ। দাম পেল না ব্রাইটের অসাধারণ গোল। এক পয়েন্ট নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হল এস সি ইস্টবেঙ্গলকে। লিভারপুলের খেলার সময় সাহসী স্ট্রাইকার হিসেবেই পরিচিত ছিলেন কিংবদন্তি রবি ফাওলার। এদিন এফ সি গোয়ার বিরুদ্ধে দল গঠনে প্রথম থেকেই সাহস দেখিয়েছিলেন ব্রিটিশ কোচ। পিলকিংটন, মাগোমাদের দলে না রেখে প্রথম থেকেই রাখলেন ব্রাইটকে। সঙ্গে হলোওয়েকে নামিয়েছিলেন শুরু থেকে। রফিককে না রেখে নামিয়ে ছিলেন অঙ্কিত মুখোপাধ্যায়কে। এফ সি গোয়ার একচ্ছত্র আধিপত্য।পরপর আক্রমণ, লাল হলুদ ডিফেন্স পরাস্ত হচ্ছিল বারবার। কিন্তু গোলের নীচে এদিন যেন আলাদা প্রতিজ্ঞা নিয়ে নেমেছিলেন দেবজিৎ মজুমদার। অন্তত পাঁচবার লাল হলুদের নিশ্চিত পতন আটকালেন বাঙালি গোলরক্ষক।

    তবে ড্র করলেও এদিন প্রায় দ্বিতীয়ার্ধটা দশ জনে খেলতে হয়েছিল লাল-হলুদকে। বিশ্রী ফাউল করে দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দিলেন ডিফেন্ডার ফক্স। তাও দেখে মনে হয়নি ইস্টবেঙ্গল গুটিয়ে গেল। বরং একজন কম নিয়েও জেতার চেষ্টা করে গেল তাঁরা। দ্বিতীয়ার্ধে কিছু সময় পর মাগোমা,সুরচন্দ্র এবং রফিককে নামান রবি।কিন্তু শেষপর্যন্ত জেতা হল না। ম্যাচের সেরা পুরস্কার পেলেন ব্রাইট। ম্যাচ শেষে ইস্টবেঙ্গল কোচ জানিয়ে গেলেন ব্রাইট অসাধারণ গোল করার পর জিততে না পারায় খারাপ লাগাটা স্বাভাবিক। কিন্তু এদিন ছেলেরা বুঝিয়ে দিয়েছে কতটা উন্নতি করেছে তাঁরা। দলগত প্রচেষ্টা থেকে শুরু করে ব্রাইট, স্টেইনম্যান ব্যক্তিগত নৈপুণ্য প্রমাণ করেছে।

    জার্মান ফুটবলার স্টেইনম্যান একক দক্ষতায় প্রায় গোল করে ফেলেছিলেন। কিন্তু গোলে বল রাখতে না পারায় গোল পাননি।ওড়িশাকে হারিয়ে শেষ ম্যাচে টুর্নামেন্টের প্রথম জয় পেয়েছিল এস সি ইস্টবেঙ্গল। নতুন বছরে নতুন রূপ দেখা গিয়েছিল লাল-হলুদ ব্রিগেডের। বুধবার তিলক ময়দানে গোয়ার বিপক্ষে ম্যাচটা সহজ হবে না জানা ছিল। প্রথমত গোয়া ওড়িশার থেকে অনেক এগিয়ে, তাছাড়া দুর্দান্ত রিজার্ভ বেঞ্চ থাকায় ইস্টবেঙ্গলের তুলনায় গোয়াই ফেভারিট ছিল ম্যাচে। কিন্তু দিনের শেষে ইস্টবেঙ্গলের পারফরম্যান্স সমর্থকদের আশার আলো দেখাচ্ছে।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: