সবুজ-মেরুনে ফুল ফোটাচ্ছেন বাবা, বাগানে আগাম বসন্ত

সবুজ-মেরুনে ফুল ফোটাচ্ছেন বাবা, বাগানে আগাম বসন্ত

ইম্ফলে পাপা-নাওরেম ম্যাজিক, নেরোকাকে ৩-০ উড়িয়ে দিল মোহনবাগান।পয়েন্টে লিগ টেবিলের মগডালে সবুজ মেরুন।

  • Share this:

#ইম্ফল :একটা গোল। বড় ম্যাচে একটা গোল কী ভাবে বদলে দিতে পারে একজন স্ট্রাইকারের আত্মবিশ্বাস, দেখিয়ে দিলেন পাপা বাবাকর দিওয়ারা। মণিপুরের খুমান স্টেডিয়ামে একাই ঝলসে দিলেন পয়েন্ট টেবিলের ছয় নম্বরে থাকা নেরোকা এফসি-কে। সেভিয়া, লেভান্তের মত বড় ক্লাবে ঘুরে আসা সেনেগালের পপার টাচ আর টার্নিং বরাবরই ভাল। দুই পায়ে জোরালো শট আছে। তবু গোলটা পাচ্ছিলেন না। ফিটনেসে ঘাটতি এখনও আছে। বড় ম্যাচে বহু প্রতীক্ষার গোল পেতেই ইম্ফলে ভয়ঙ্কর বাবা। একটা গোল করলেন। গোল দেবতা সদয় হলে হ্যাটট্রিকটাও সেরে নিতে পারতেন। শুধু পাপা কেন, ভিকুর পুরো দলই স্বপ্নের ফর্মে আছে।

পাপা, নাওরেম, বেইতিয়াদের সৃজনশীল ফুটবলে বাগানে বসন্তের আগমনী। বাগান ফুটবলাররা মাটিতে বল রেখে টানা ছয়-সাতটা পাস খেলছেন নিজেদের মধ্যে। বিপক্ষে টেনে এনে হুড়মুড় করে ঢুকে পড়ছেন অ্যাটাকিং থার্ডে। নেরোকার ত্রিনিদাদ-টোবাগোর গোলরক্ষক মারভিন ফিলিপ রক্ষাকর্তা হয়ে না দাঁড়ালে, বিরতিতেই স্কোরলাইন হয়ে যায় মোহনবাগান ৪, নেরোকা ০। স্বপ্নের ফর্মে রয়েছেন নাওরেম। অনূর্ধ্ব  ১৭ বিশ্বকাপ থেকেই নজর টানছিলেন মনিপুরের বিস্ময় প্রতিভা। কিবু ভিকুনার হাতে পড়ে বাগানের মাঝে মাঠে বেইতিয়ার পাশে ঝলমল করছেন কুড়ি বছরের নাওরেম। আই লিগে ভারতীয় ফুটবলারদের মধ্যে সেরা এই মনিপুরী কিশোর। ২৭ মিনিটে নাওরেমের গোলে এগিয়ে যায় মোহনবাগান। দুরন্ত টিমগেমের ফসল বাগানের প্রথম গোল। পাপা, সাহিল,গনজালেজদের দাপটে তখন খাবি খাওয়ার অবস্থা কমলা জার্সিধারীদের। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই দ্বিতীয় গোল।

এবার পাপা বাবাকর। বাঁদিক থেকে নাওরেমের তোলা সেন্টার নেরোকার দুই স্টপারের মাঝখান দিয়ে চিলের মতো হেড করে ব্যবধান বাড়ান সেনেগালের স্ট্রাইকার। অতিরিক্ত সময় পরিবর্ত হিসেবে নেমে গোল তাজাকিস্তানের তুরসনভের। স্কোরলাইন মোহনবাগান ৩, নেরোকা ০। ৯ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলে সবার ধরাছোঁয়ার বাইরে কিবু ভিকুনার ছেলেরা। বাগানের পরের ম্যাচ ৩১ জানুয়ারি চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে। মাত্র মাসখানেক আগে ধুঁকতে থাকা দলটা পয়েন্ট টেবিলের মগডালে। আর সেদিনের পয়লা নম্বরী ইস্টবেঙ্গল ৭ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে থমকে আছে সাত নম্বরে। বাগান ম্যাজিকে এক্স ফ্যাক্টর মাঠের বাইরেও। আর সেখানেই কৃতিত্ব সৃঞ্জয় বোস, দেবাশিস দত্ত, সিদ্ধার্থ রায়, সঞ্জয় ঘোষদের। পড়শি ক্লাবের টিম ম্যানেজমেন্টে এই বিচক্ষণ ব্যক্তিত্বেরই যে বড় আকাল!

 
First published: January 23, 2020, 11:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर